ঘরে বসে অনলাইনে ইনকাম করার উপায় ২০২১

ঘরে বসে অনলাইনে ইনকাম : সত্যিই কি ঘরে বসে ইনকাম করা সম্ভব? কিভাবে অনলাইনে ইনকাম করা যায়? আর টাকা ইনকাম করার ওয়েবসাইট কোন গুলো?

হয়তবা এই প্রশ্ন গুলো আপনার মনে বার বার জেগে থাকবে ৷ আর এই প্রশ্নের উওর খোজার জন্য আপনি গুগলে সার্চ করেছেন। এবং গুগল মামা আপনাকে আমার এই ওয়েবসাইটে নিয়ে এসেছে।

ঘরে বসে অনলাইনে ইনকাম করার উপায়
ঘরে বসে অনলাইনে ইনকাম করার উপায়

আর আজকে এই প্রশ্ন গুলোর উওর নিয়ে আলোচনা করার চেস্টা করবো। যদি আপনি জানতে চান যে, কিভাবে অনলাইনে টাকা ইনকাম করা যায়।

তাহলে আজকের এই আর্টিকেলটি আপনার জন্য অনেক হেল্পফুল হবে।

কারন আপনি আজকে জানবেন, কিভাবে অনলাইনে ইনকাম করা যায়। তার জন্য আপনাকে কি কি করতে হবে। এবং আপনি অনলাইন থেকে কি পরিমানে টাকা ইনকাম করতে পারবেন।

সে সম্পর্কে যাবতীয় বিষয় গুলো স্টেপ বাই স্টেপ আলোচনা করবো।

[💡PRO TIPS: আপনার হাতে যদি ল্যাপটপ বা কম্পিউটার না থাকে৷ তাহলে কিভাবে আপনার হাতে থাকা মোবাইল ফোন দিয়ে ইনকাম করবেন ৷ সে বিষয়েও আজকে আলোচনা করবো ]

তাই কোনো প্রকার তাড়াহুড়ো না করে, হাতে মাএ অল্প কিছু সময় নিয়ে এই আর্টিকেলটি মনোযোগ সহকারে পড়ুন ৷ তাহলে আজকের পর থেকেও আপনিও ঘরে বসে অনলাইনে আয় করতে পারবেন। 

ঘরে বসে প্রতি মাসে আয় করুন ১৫০০০ – ২০০০০ টাকা 

যদি আমরা আজ থেকে ১০ বছর পিছনে ফিরে যাই। তাহলে আপনি দেখতে পারবেন যে, সেই সময়ে কিন্তুু অনলাইন সম্পর্কে মানুষের তেমন একটা ধারনা ছিলো না।

সেই সময়ে Online Income তো দুরের কথা,  কিভাবে ইন্টারনেট ব্যবহার করতে হয় সেটা অধিকাংশ মানুষ জানতো না।

কিন্তুু সময়ের পরবর্তনের সাথে সাথে আমরাও নিজেদের পরিবর্তন করে ফেলেছি। অনলাইন সম্পর্কে ধারনা না থাকা মানুষ গুলো এখন জেনে গেছে কিভাবে ইন্টারনেট ব্যবহার করতে হয়।

আপনি আরো পড়ুন…

সবচেয়ে মজার বিষয় হলো, যে মানুষ গুলো ইন্টারনেট ব্যবহার সম্পর্কে জানতো না ৷ আজকের দিনে সেই মানুষ গুলোই ঘণ্টার পর ঘন্টা অনলাইনে ব্যয় করে আসছে ৷

কিন্তুু আপনি যদি সেই দিনগুলোর সাথে আজকের দিনগুলির সাথে তুলনা করেন ৷ তাহলে আপনি বিরাট বড় একটা পার্থক্য লক্ষ্য করতে পারবেন।

কেননা, আজকের দিনের মানুষ গুলো শুধু অনলাইন ব্যবহার এর মধ্যে সীমাবদ্ধ নেই। বরং এখন মানুষ অনলাইনকে কাজে লাগিয়ে লক্ষ লক্ষ টাকা ইনকাম করতে পারছে।

আমি আপনাকে এমন ডজনখানেক মানুষের সাথে পরিচয় করিয়ে দিতে পারবো ৷ যে মানুষ গুলো প্রতি মাসে ঘরে বসে অনলাইনে ইনকাম করছে লক্ষ লক্ষ টাকা।

তবে প্রশ্ন হলো, কিভাবে তারা এতো টাকা ইনকাম করতে পারছে?  তারা অনলাইনে এমন কি কাজ করে, যার বিনিময়ে তারা আজ এতো বেশি টাকা  আয় করতে পারছে। এবার সে সম্পর্কে ছোট্ট করে আলোচনা করা যাক। 

কারা ঘরে বসে ইনকাম করতে পারবে? 

তো অনলাইন থেকে ঘরে বসে ইনকাম করা যায়। এ নিয়ে তো আপনার মনে আর কোনো দ্বিমত নেই। কিন্তুু এখন জানার বিষয় হলো যে, এমন কোন মানুষ গুলো নিজের ঘরে বসে অনলাইনে ইনকাম করতে পারবে।

কারন সবার মধ্যে ইনকাম করার স্বপ্ন থাকলেও সবাই কিন্তুু ঘরে বসে  অনলাইনে আয় করতে পারবে না।

যদি আপনি নিজের ঘরে বসে অনলাইন থেকে ইনকাম করতে চান ৷ তাহলে আপনার মধ্যে দুটো গুন থাকা অত্যন্ত জরুরী। যেমন, 

#01- কাজ শেখার আগ্রহ

দেখুন সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো, আপনার মধ্যে কাজ শেখার আগ্রহ থাকতে হবে। কারন অনলাইন হলো এমন এক ধরনের জগত। যেখানে সব কিছুই থাকলেও বিবেকের কোনো স্থান নেই।

আপনি যদি বাস্তবিক জীবনে একদিন না খেয়ে থাকেন। তাহলে কেউ না কেউ আপনার কষ্টের পরিমানটা বুঝতে পারবে। আবার অনেকেই আপনার সাহায্যের জন্য হাত বাড়িয়ে দিবে।

কিন্তুু অনলাইন জগতে এর বিপরীত দিকটা লক্ষ্য করতে পারবেন ৷

অনলাইন জগতে আপনি ঠিক ততোক্ষণ টিকে থাকতে পারবেন। যতোক্ষন আপনার মধ্যে কোনো ক্রিয়েটিভিটি থাকবে ৷ আর যখনি আপনার ক্রিয়েটিভিটি এর মধ্যে চুল পরিমান কমতি থাকবে।

ঠিক তখনি আপনি মূল্যহীন হয়ে পড়বেন।

তাই অনলাইন থেকে ইনকাম বলেন আর ঘরে বসে ইনকাম বলেন। সবার আগে আপনাকে কোনো কাজ ভালোভাবে দক্ষতার সাথে শিখে নিতে হবে ৷ এরপর সেই কাজের মধ্যে নতুনত্ব নিয়ে আসতে হবে।

তাহলেই আপনি অনলাইন থেকে নিজের জন্য ভালো কিছু করতে পারবেন। অন্যথায় এখানেও আপনাকে ব্যর্থতার গ্লানি বহন করতে হবে।

[PRO TIPS: কাজ শেখার বিষয়টি খুবই গুরুত্বপূর্ণ। যদি আপনি এই ধাপটিকে স্কিপ করে যান। তাহলে আপনার অনলাইন ইনকাম করতে ব্যাঘাট ঘটে যাবে। ]

#02- নির্দিষ্ট কাজে লেগে থাকতে হবে 

ঘরে বসে অনলাইনে চাকরি করতে হলে সবার আগে আপনাকে নির্দিষ্ট কোনো কাজে লেগে থাকতে হবে। যদি আপনি এই ধাপে ব্যর্থ হয়ে পড়েন। তাহলে এখানে আপনার সময় ও শ্রম দুটোই বন্যার জলে ভেসে যাবে।

দেখুন, যখন আপনি কোনো কাজ শেখা শুরু করবেন। তখন আপনার মধ্যে নানা রকম কৌতুহল শুরু হবে। যেমন, আপনি গ্রাফিক্স ডিজাইন শেখা শুরু করছেন ৷

কিন্তুু কোনো এক ভাই আপনাকে বললো, গ্রাফিক ডিজাইন এর চাইতে Web Design এ বেশি টাকা ইনকাম করা যায়।

এরপর আপনি সব বাদ দিয়ে Web Design শেখা শুরু করে দিলেন। আবার আরও একজন বললো যে, ধুর! সব কাজের থেকে Web Development এর চাহিদা বেশি ৷ তখন আপনি সব বাদ দিয়ে ডেভলপমেন্ট শেখা শুরু করে দিলেন।

ব্যাস! ফলাফল আপনি কিছুই শিখতে পারবেন না। উল্টো আপনি যে সময় গুলো ব্যয় করছেন। সেগুলো বৃথা যাবে।

[NOTE: কোন কাজ শিখলে টাকা বেশি পাবেন ৷ আপনি সে নিয়ে কোনো চিন্তা করবেন না। বরং প্রত্যেকটা কাজে যথেষ্ট টাকা আছে। প্রয়োজন শুধু আপনার পূর্ন দক্ষতার। ]

কিভাবে অনলাইনে ঘরে বসে টাকা ইনকাম করা যায়

তো পৃথিবীতে অনলাইন থেকে ইনকাম করার যতো গুলো উপায় রয়েছে। সেই সব গুলো উপায় কে প্রধানত দুইটি ভাগে ভাগ করা সম্ভব। যেমন, 

  1. Freelancing এবং 
  2. Outsourcing 

আসলে ফ্রিল্যান্সিং এবং আউটসোর্সিং কি, সে নিয়ে অলরেডি আমার ওয়েবসাইটে পোষ্ট করা আছে। আপনি যদি সে সম্পর্কে পরিস্কার ধারনা পেতে চান ৷ তাহলে সেই আর্টিকেল গুলো পড়ে নিতে পারবেন।

আপনি আরো দেখুন…

তবে আপনার বোঝার সুবিধার জন্য আমি ছোট্ট করে বলি। সহজ কথায় যখন আপনি অনলাইনের মাধ্যমে কোনো কাজ করবেন। এবং সেই কাজের বিনিময়ে কেউ আপনাকে অর্থ প্রদান করবে।

তখন এই কাজের সম্পূর্ন প্রক্রিয়া কে বলা হয়, Freelancing.

অপরদিকে আউটসোর্সিং কিন্তুু আলাদা একটি সেক্টর। এখানে আপনি অনলাইন এর মাধ্যমে বিভিন্ন Freelancer কে দিয়ে কাজ করিয়ে নিবেন। এবং সেখান থেকে আপনি কিছু পরিমান কমিশন বা অর্থ ইনকাম করতে পারবেন।

মূলত এই কাজের প্রক্রিয়াকে বলা হয়, Outsourcing.

[NOTE: এমন অনেক মানুষ আছেন, যারা আউটসোর্সিং এবং ফ্রীল্যান্সিং কে একই বিষয় মনে করে। সবাই বলে এই দুটোই হলো মুক্ত পেশা। কিন্তুু এই দুটো কখনই এক নয়, বরং দুটোই ভিন্ন বিষয়।]

তো কোন কাজ গুলো আউটসোর্সিং এর আওতায় পড়বে ৷ এবং কোন কাজ গুলো ফ্রিল্যান্সিং এর আওতায় পড়বে। সে নিয়ে আর বেশি কথা বলবো না।

কারন আমাদের মূল বিষয় হলো, ঘরে বসে অনলাইনে ইনকাম করার উপায় সম্পর্কে জেনে নেওয়া। তো এবার সে নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করা যাক। 

ঘরে বসে অনলাইনে ইনকাম করার উপায় 

তো আপনি যদি নিজের ঘরে বসে অনলাইনে আয় করতে চান ৷ তাহলে আপনার জন্য এমন অনেক গুলো পথ খোলা আছে। তার ভিতরে পপুলার কিছু কাজের নাম বা উপায় সমূহ যেমন, 

TIPS-1: Web Design 

বর্তমান সময়ে অনলাইন থেকে আয় করার জনপ্রিয় একটি উপায় হলো ওয়েব ডিজাইন এর কাজ করা। কারন বর্তমান সময়ে আমরা ক্রমেই প্রযুক্তির উপর নির্ভরশীল হয়ে পড়ছি।

আর প্রযুক্তির সাথে তাল মেলানোর জন্য ওয়েবসাইট এর ব্যবহার দিন কে দিন বেড়েই চলেছে। অপরদিকে ওয়েবসাইট এর চাহিদা বেড়ে গেলেও সবাই কিন্তুু Website ডিজাইন বা তৈরি করতে পারে না।

কারন এখানে অনেক ধরনের কোডিং মনে রাখতে হয়। আর এই সুযোগ কে আপনি কাজে লাগাতে পারবেন। মাএ কয়েক মাস সময় ধরে ওয়েব ডিজাইন শিখে নিতে হবে।

এরপর আপনি অনলাইনের মাধ্যমে বিভিন্ন মানুষকে ওয়েবসাইট তৈরি ও ডিজাইন করার সার্ভিস প্রদান করে অনলাইন এর মাধ্যমে ঘরে বসে ইনকাম করতে পারবেন।

[💡PRO TIPS: কিভাবে ওয়েব ডিজাইন শিখবেন ৷ তা নিয়ে আমার ওয়েবসাইট এ একটি আর্টিকেল পাবলিশ করা আছে। আপনি যদি Web Design সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে চান। তাহলে উক্ত আর্টিকেলটি পড়ে নিবেন।]

TIPS-2: Graphic Design

ডিজাইনিং সেক্টর এর সবচেয়ে জনপ্রিয় একটি প্লাটফর্ম হলো, গ্রাফিক ডিজাইন। বর্তমানে যারা নতুন Freelancing এর সাথে যুক্ত হচ্ছে। তাদের মধ্যে প্রায় অধিকাংশ মানুষ ই এই কাজ দিয়েই তাদের অনলাইন ইনকাম এর Journey টা শুরু করছে।

কারন বর্তমানে আপনি যদি ফ্রিল্যান্সিং মার্কেট প্লেস গুলোর দিকে তাকান৷ তাহলে আপনি Graphic Design রিলেটেড অনেক ধরনের জব পোষ্ট দেখতে পারবেন। আর বর্তমান সময়ে একজন দক্ষ ডিজাইনার এর ব্যাপক চাহিদা রয়েছে।

তবে আপনি যদি নিজেকে একজন দক্ষ ডিজাইনার হিসেবে গড়ে তুলতে পারেন ৷ তাহলে আপনি নিজের ঘরে বসে অনলাইনে কাজ করার মাধ্যমে বিপুল পরিমান অর্থ ইনকাম করতে পারবেন। 

[⚠️Warning: গ্রাফিক ডিজাইন শিখে লক্ষ টাকা ইনকাম করার স্বপ্ন দেখে হুট করে আবার এই সেক্টরের সাথে নিজেকে যুক্ত করবেন না। কারন এই সেক্টর এর ব্যাপক ডিমান্ড থাকার কারনে এখানে যথেষ্ট প্রতিযোগীতাও রয়েছে।]

TIPS-3: Affiliate Marketing 

আপনি জানলে অবাক হয়ে যাবেন, কারন বর্তমানে এফিলিয়েট মার্কেটিং এর চাহিদা আকাশচুম্বী।

আর কোনো প্রকার ইনভেস্ট না করে অনলাইনে পন্য ক্রয় বিক্রয় এর মাধ্যমে টাকা ইনকাম করার জন্য Affiliate Marketing এর কোনো বিকল্প নেই। 

যদি আপনি এফিলিয়েট করে টাকা ইনকাম করতে চান। তাহলে সবার আগে আপনাকে একটিই-কমার্স ক্যাটাগরির একটি ওয়েবসাইট তৈরি করতে হবে।

এরপর সেখানে বিভিন্ন অনলাইন শপ যেমন, Amazon, Flippa, Flip Cart এর পন্য গুলোকে লিংকিং করতে হবে।

অনলাইনে ইনকাম নিয়ে আরো…

এরপর কোনো কাস্টমার যখন আপনার সাইটে আসার পর আপনার এফিলিয়েট  Link এ ক্লিক করার পর কোনো পন্য কিনে নেয়। তাহলে আপনি সেই পন্য বিক্রি করার বিনিময়ে বেশ ভালো পরিমানে কমিশন পাবেন।

আর বর্তমান সময়ে অনেক তরুন তরুনী এই কাজ করে নিজের একটা সফল ক্যারিয়ার গড়ে নিতে পেরেছে। এতো মানুষ যদি এফিলিয়েট করে ইনকাম করতে পারে।

তাহলে আপনি কেন পারবেন না? -তাই আপনিও নিজেকে এই সেক্টরের সাথে যুক্ত করতে পারেন ৷

[Inportant NOTE: দেখুন এফিলিয়েট প্রোগ্রাম থেকে টাকা ইনকাম করার জন্য আপনার মধ্যে SEO সম্পর্কে ধারনা থাকতে হবে। এসইও কি এবং কেন“- সে নিয়ে অলরেডি আমার ওয়েবসাইট এ একটি আর্টিকেল পাবলিশ করা আছে।

আপনি সেই আর্টিকেল থেকে SEO সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে পারবেন।]

TIPS-4: Online Survey 

আপনার যদি অনলাইন সম্পর্কে তেমন কোনো ধারনা না থাকে ৷ তাহলে আপনার জন্য অনলাইন থেকে ইনকাম করার সবচেয়ে সহজ পথ হলো, Survry Job করা।

যেখান থেকে ছোট খাটো কিছু কাজের মাধ্যমে প্রতি মাসে ১০,০০০/- থেকে ১৫,০০০/- টাকা পর্যন্ত ইনকাম করতে পারবেন। মজার বিষয় হলো, যতোই সময় অতিবাহিত হচ্ছে, অনলাইন ইনকাম করার সার্ভে সাইট এর পরিমানও বৃদ্ধি পাচ্ছে।

আর আপনাকে সেই সুযোগটি কে কাজে লাগাতে হবে। এবং এই সুযোগ কে কাজে লাগিয়ে আপনি প্রচুর পরিমানে অনলাইন ইনকাম করতে পারবেন।

আপনি যদি ছাএ হয়ে থাকেন। তাহলে আপনার জন্য উপযুক্ত কাজ হবে অনলাইন সার্ভে। কারন এই কাজগুলো আপনি পড়াশোনা করার পাশাপাশি পার্ট টাইম জব হিসেবে ও করতে পারবেন।

ছাত্রদের জন্য অনলাইনে আয় করার জন্য সার্ভে জবের কোনো বিকল্প নেই।

[Read This: একজন ভালো লেখক হতে হলে সবার আগে আপনাকে একজন ভালো পাঠক হতে হবে। এটা Content Writing এর মূলমন্ত্র।

আর সেজন্য আমার একটি আর্টিকেলে কনটেন্ট রাইটিং নিয়ে একটি আর্টিকেল পাবলিশ করা আছে। সেটি পড়তে চাইলে এখানে ক্লিক করুন।]

TIPS- 6: Blogging

অনলাইন থেকে ইনকাম করার একটি মুক্ত পেশার নাম হলো ব্লগিং। যতোই সময় অতিবাহিত হচ্ছে, ব্লগিং সেক্টর এর জনপ্রিয়তা ঠিক ততোটাই বৃদ্ধি পাচ্ছে।

কারন আগেকার দিনে ব্লগিং শখের বসে করা হলেও, এখনকার দিনে মানুষ Blogging কে পেশা হিসেবে বেছে নিয়েছে।

আপনার মধ্যে যদি লেখালেখি করার মতো দক্ষতা থাকে। তাহলেও আপনিও ব্লগিং করে প্রচুর পরিমাণে ইনকাম করতে পারবেন। সেজন্য সবার আগে আপনাকে একটি Blog তৈরি করতে হবে।

তারপর সেখানে বিভিন্ন বিষয় নিয়ে লেখালেখি করতে হবে।

এরপর আপনার তৈরি করা সেই ব্লগটি তে বিভিন্ন পাঠক আসবে আপনার লেখা গুলো পড়ার জন্য। এভাবে আপনার ব্লগে লেখা পড়ার জন্য যতো বেশি পাঠক নিয়ে আসতে পারবেন। আপনার ইনকাম এর পরিমান ঠিক ততোটাই বৃদ্ধি পাবে।

তাই আজকের দিনে ছেলে এবং মেয়েদের ঘরে বসে রোজগার করার জন্য সবচেয়ে সহজ পথের জন্য ব্লগিং হলো উপযুক্ত পন্থা। যেখানে নারীদের ঘরে বসে কাজ করারও সুযোগ রয়েছে।

[Read This:ব্লগিং কি” এবং কিভাবে ব্লগিং থেকে ইনকাম করতে হয়। সে নিয়ে একটি আর্টিকেল পাবলিশ করা আছে। পড়তে চাইলে এখানে ক্লিক করুন।]

TIPS- 7: YouTubing

বর্তমান সময়ে অনেক গুলো অনলাইন ইনকাম সাইট রয়েছে। তবে তার মধ্যে Youtube হলো অন্যতম একটি সাইট। যেখান থেকে আপনি শুধুমাত্র ভিডিও আপলোড করার মাধ্যমে প্রচুর পরিমান অর্থ ইনকাম করতে পারবেন।

যদি আপনিও তাদের মতো ঘরে বসে অনলাইনে ইনকাম করতে চান। তাহলে সবার আগে আপনাকে একটি YT Channel তৈরি করতে হবে। এরপর সেই চ্যানেলে ভিডিও আপলোড করতে হবে।

এরপর আপনার সেই চ্যানেলটিকে মনিটাইজ করে ইনকাম করতে পারবেন।

আপনি এই লেখাগুলা পড়তে পারেন…

বর্তমানে এমন অনেক ইউটিউবার রয়েছে। যারা শুধুমাএ তাদের চ্যানেলে ভিডিও আপলোড করেই প্রতি মাসে লক্ষ টাকা পর্যন্ত ইনকাম করতে পারছে। আর আপনিও যদি ঘরে বসে ইনকাম করতে চান ৷

তাহলে আজ থেকেই YT তে ভিডিও আপলোড শুরু করে দিতে পারবেন।

[Premium NOTE: ইউটিউব থেকে ইনকাম করতে হলে আপনার Youtube SEO সম্পর্কে জ্ঞান রাখাটা অত্যন্ত জরুরী। আপনি যদি ইউটিউব এসইও সম্পর্কে জানতে চান, তাহলে এখানে ক্লিক করুন।]

তো বন্ধু এগুলো ছাড়াও ঘরে বসে অনলাইনে আয় করার আরও অনেক গুলো উপায় রয়েছে। আপনি যদি সেই উপায় গুলো সম্পর্কে জানতে চান ৷ তাহলে দেরী না করে এখুনি কমেন্ট করে জানান ৷

প্রয়োজন হলে আমি এই আর্টিকেল এর পার্ট-২ বের করবো। 

আমাদের শেষকথা

যদি আপনি এই আর্টিকেলটি মনোযোগ দিয়ে পড়ে থাকেন। তাহলে আশা করা যায় আপনি ঘরে বসে অনলাইনে ইনকাম করার উপায় গুলো সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে পেরেছেন।

এরপরও যদি আপনার কিছু জানার থাকে। তাহলে কমেন্ট করুন। আমি খুব দ্রুত আপনার কমেন্ট এর উত্তর দিব। এছাড়াও আমার ব্লগে অনলাইন থেকে ইনকাম করার অনেক আর্টিকেল আছে চাইলে পড়ে আসতে পারেন।

বাংলা আইটি ব্লগের সাথে থাকুন। ধন্যবাদ

6 thoughts on “ঘরে বসে অনলাইনে ইনকাম করার উপায় ২০২১”

  1. নাইমুল ইসলাম

    ভাই আমি ওয়ার্ডপ্রেসে হোস্টিং নিতে চাই, আপনার হোস্টিং প্লেন জানতে পারি? আর কোন জায়গা থেকে হোস্টিং নিছেন। আমি এডসেন্স এপ্রুভড ব্লগার সাইট ওয়ার্ডপ্রেসে শিফট করবো।

    1. ধন্যবাদ আপনার প্রশ্নের জন্য।
      আমি নেমচিপ থেকে হোস্টিং ব্যবহার করি। আপনি নেমচিমের হোস্টিং এর প্রথম প্লান নিতে পারেন।

      Stellar এই প্লান ব্যবহার করতে পারেন শেয়ারেড হোস্টিং … দাম ১৮.৪৪ ডলার …
      Domain Name
      3 Websites
      20 GB SSD
      Free CDN

      1. নাইমুল ইসলাম

        ও আচ্ছা। তাহলে আমিও নেমচিপ থেকে নিবো। এটাই বেস্ট, অনেকেই বললো।

      2. নাইমুল ইসলাম

        ও আচ্ছা। তাহলে আমিও নেমচিপ থেকে নিবো। এটাই বেস্ট, অনেকেই বললো। আমার অত টাকা নেই। আমি Shared হোস্টিংয়ের ১ নম্বরটা নিবো

        1. হ্যা নতুন হিসাবে শেয়ারেড হোস্টিং বেস্ট হবে … পরের বার বড় প্লান নিয়েন

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: কপি করা যাবে না !!
Scroll to Top
Share via
Copy link
Powered by Social Snap