অনলাইন ইনকাম মোবাইল দিয়ে ২০২১

অনলাইন ইনকাম মোবাইল দিয়ে বিষয়টা সত্যিই অবাক করার মতো। ঘরে বসে নিজের কাছে থাকা মোবাইল দিয়ে যদি অনলাইন থেকে ইনকাম করা যায়। তাহলে বিষয়টা মোটেও মন্দ হবে না, তাইনা?

অনলাইন ইনকাম মোবাইল দিয়ে
অনলাইন ইনকাম মোবাইল দিয়ে

কেননা, পড়াশোনা বা চাকরির পাশাপাশি যদি বাড়তি কিছু টাকা ইনকাম করা যায়। তাহলে অন্ততপক্ষে আপনার নিজের পকেট খরচটা চালিয়ে নিতে পারবেন।

হুমমম, আজকের আর্টিকেলটি মূলত সে বিষয় নিয়েই লেখা হয়েছে। কিভাবে আপনি মোবাইল দিয়ে অনলাইন ইনকাম করবেন। তার প্রত্যেকটা বিষয় আজকে স্টেপ বাই স্টেপ আলোচনা করবো।

[💡READ THIS: অনলাইন ইনকাম করার জন্য আপনার কোনো হাই কনফিগারেশন এর মোবাইল প্রয়োজন হবে না। তাই আপনার ফোনটি দামি নাকি কমদামি সে নিয়ে কোনো চিন্তা করার দরকার নেই। ]

মূলত আমরা সবাই জানি যে, বর্তমান সময়ে অনলাইন থেকে ইনকাম করা যায়। কিন্তুু আজকের দিনে মোবাইল থেকেও যে অনলাইন এর মাধ্যমে ইনকাম করা সম্ভব। সে সম্পর্কে এখনও অনেকেই জানে না।

আপনি জানলে অবাক হবেন কারন, আমরা প্রতিদিন Facebook কিংবা Youtube এ যে সময় গুলো নষ্ট করি। সেই সময় গুলো যদি অনলাইন এর কোনো কাজ করার জন্য ব্যয় করি।

তাহলে মাস শেষে আপনার মোবাইল দিয়ে টাকা ইনকাম করার জন্য পকেট গরম করতে পারবেন।

তো এই অজানা মানুষ গুলোকে জানানোর জন্য আজকের আর্টিকেলটি লেখা হয়েছে। আজ থেকে আপনিও মোবাইল দিয়ে টাকা আয় করুন

আর মোবাইল দিয়ে টাকা আয় বিকাশে পেমেন্ট নিন।

যদি আপনিও অন্যদের মতো মোবাইল দিয়ে টাকা আয় করতে চান। তাহলে আজকের পুরো আর্টিকেলটি মনোযোগ দিয়ে পড়বেন।

তাহলে আপনি মোবাইল দিয়ে ইনকাম সম্পর্কে অনেক অজানা বিষয় সম্পর্কে জানতে পারবেন। 

কেন মোবাইল দিয়ে অনলাইন ইনকাম করবেন? 

এখন আপনার মনে প্রশ্ন জাগতে পারে যে, অনলাইন থেকে ইনকাম করার জন্য তো অনেক কিছু আছে। তাহলে কেন আপনি শুধু অনলাইন ইনকাম মোবাইল দিয়ে করবেন? তাহলে শুনুন…

আমাদের মধ্যে এমন অনেকেই আছেন। যারা মূলত চাকরি বাকরি না পাওয়ার কারনে অযথা বাড়িতে বসে থাকি।

আর নিজের এই মূল্যবান সময় গুলোকে ফেসবুক কিংবা ইউটিউব এর ভিডিও দেখে দেখে ব্যয় করে থাকি।

কিন্তুু সেই বেকার মানুষ গুলো যদি পড়াশোনা বা ছোটো-ছোটো চাকরি করার পাশাপাশি দৈনিক ২-৩ ঘন্টা করে অনলাইনে টুকটাক কাজ করি।

আপনার জন্য আরো লেখা…

তাহলে কিন্তুু মাস শেষে একটা মোটা অংকের টাকা অনলাইন থেকে আয় করে নিতে পারবো।

আর একজন বেকার মানুষ যদি মোবাইল দিয়ে অনলাইনে কাজ করে। তাহলে কিছু না হলেও, অন্ততপক্ষে তার নিজের পকেট খরচটা চালিয়ে নিতে পারবে।

যা আপনার নিজের জন্য অনেক হেল্পফুল হবে বলে আমি মনে করি।

[NOTE: আপনি গুগলে সার্চ করলে মোবাইল দিয়ে টাকা আয় বিকাশে পেমেন্ট 2021 সম্পর্কে অনেক গুলো আর্টিকেল দেখতে পারবেন।

কিন্তুু তাদের মধ্যে অনেকেই আপনাকে ভুয়া তথ্য দিয়ে বিভ্রান্তি তে ফেলে দিবে। কারন তারা বেশিরভাগ সময় Paid Sponsorship করে থাকে।]

মোবাইল দিয়ে অনলাইন ইনকাম করতে কি কি প্রয়োজন হয়?

আপনাদের মধ্যে এমন অনেকেই আছেন। যারা মনে করে যে মোবাইল দিয়ে ইনকাম করার জন্য মনে হয় অনেক কিছুর প্রয়োজন হয়ে থাকে।

আসলে বিষয়টি কিন্তুু তেমন নয়। বরং আপনার হাতে থাকা স্মার্টফোন দিয়েও আপনি অনলাইনে কাজ করে আয় করতে পারবেন।

তবে যে বিষয় গুলো সচারাচর দরকার পড়ে। তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য একটি বিষয় হলো ইন্টারনেট কানেকশন। হুমম, যেহুতু আপনি অনলাইন এর মাধ্যমে ইনকাম করতে চাচ্ছেন ৷

সেহুতু আপনার অবশ্যই ইন্টারনেট কানেকশন থাকতে হবে।

আর শুধু ইন্টারনেট কানেকশন থাকলেই হবে না। বরং সেটি অবশ্যই মানসম্মত হতে হবে। মানে সেই Internet Connection দিয়ে যেন স্মুথলি ব্রাউজিং করা, ভিডিও দেখা সহো যাবতীয় কাজ গুলো করা যায়।

আরও একটা গুরুত্বপূর্ণ বিষয় এর প্রয়োজন হবে। সেটি হলো একটি ভালো মানের স্মার্টফোন। তবে আবার ভাবিয়েন না যে, অনলাইন এ কাজ করার জন্য খুব দামী ফোনের প্রযোজন।

যদি আপনি এমনটা ভেবে থাকেন। তাহলে কিন্তুু আপনার ধারনা সম্পূর্ণ ভুল।

কারন, এই কাজ গুলো করার জন্য যে দামী ফোন নিতে হবে। এমনটা কোথাও দেখতে পারবেন না।

তবে আবার এমন ফোন দিয়েও অনলাইন এ কাজ করতে পারবেন না। যেগুলোর কনফিগারেশন একেবারে লো কোয়ালিটির।

মোটকথা, আপনার হাতে এমন একটি ফোন থাকতে হবে। যার কনফিগারেশন মোটামুটি পর্যায়ের। তাহলেই আপনি সেই মোবাইল দিয়ে অনলাইন থেকে আয় করতে পারবেন।  

কিভাবে অনলাইন ইনকাম মোবাইল দিয়ে করবেন? 

যাক, যেহুতু আমাদের আজকের মূল টপিক হলো মোবাইল দিয়ে অনলাইন ইনকাম করা। সেহুতু আমাদের সরাসরি মূল আলোচনা তে যাওয়া উচিত।

কারন অহেতুক কথা বাড়ালে আপনার মূল্যবান সময় গুলো নষ্ট হয়ে যাবে।

তো আপনি যদি আপনার হাতে থাকা মোবাইল দিয়ে অনলাইন ইনকাম করতে চান। তাহলে আপনার সামনে এমন অনেক গুলো উপায় বের হয়ে আসবে।

এখন আপনি আপনার নিজের ইচ্ছেমতো যেকোনো একটি বা একাধিক উপায় কে অবলম্বন করতে পারবেন।

যেমন, আপনার যদি অনলাইন সম্পর্কে টুকিটাকি ধারনা থাকে। এর পাশাপাশি আপনার যদি কোনো স্কিল থাকে। তাহলে কিন্তুু আপনি আপনার সেই দক্ষতা কে কাজে লাগাতে পারবেন।

মনে করুন, আপনি ভিডিও বানাতে পছন্দ করেন।

তাহলে আপনি সরাসরি ইউটিউব এ একটি চ্যানেল তৈরি করে। তারপর সেই চ্যানেলে নিত্য নতুন ভিডিও আপলোড করেও ইনকাম করতে পারবেন।

আবার আপনার যদি লেখালেখি করার মতো দক্ষতা থাকে। তাহলে আপনি মোবাইল দিয়ে লেখা লেখি করে ব্লগিং বা কন্টেন্ট রাইটিং রিলেটেড কাজ গুলো করে বেশ ভালো পরিমানে ইনকাম করতে পারবেন।

মোটকথা আপনার হাতে যদি কোনো কম্পিউটার বা ল্যাপটপ না থাকে।

তারপরেও আপনি অনলাইনে বিভিন্ন কাজ করে প্রচুর পরিমানে টাকা অনলাইন থেকে ইনকাম করতে পারবেন। 

মোবাইল দিয়ে অনলাইনে ইনকাম করার মাধ্যম গুলো কি কি?

আপনি উপরের আলোচনা থেকে বুঝে গেছেন যে, বর্তমানে অনলাইনে বিভিন্ন কাজ করেও ইনকাম করা সম্ভব। আর মোবাইল দিয়ে আয় করা যায়, এমন অনেক গুলো উপায় রয়েছে।

যেখানে আপনি আয় করে বিকাশে টাকা নিতে পারবেন।

বর্তমানে অনলাইন এ এমন অনেক অনলাইন ইনকাম সাইট এবং টাকা ইনকাম করার অ্যাপ ২০২১ রয়েছে। তবে আমি আপনাদের উল্লেখযোগ্য কিছু উপায় সম্পর্কে বলবো।

যে উপায় গুলো ফলো করলে আপনি নিজের ঘরে বসে মোবাইলে আয় করতে পারবেন। তো চলুন এবার মোবাইল দিয়ে টাকা ইনকাম ২০২১ সম্পর্কে বিস্তারিত জেনে নেয়া যাক। 

#০১ঃ ইউটিউব থেকে ইনকাম

আমরা সবাই জানি যে, আজকের দিনে বিশ্বের সবচেয়ে জনপ্রিয় ভিডিও শেয়ারিং প্লাটফর্ম হলো, Youtube. যেখানে প্রতিদিন হাজার হাজার ভিডিও আপলোড করা হয়ে থাকে।

আর এমন অনেক মানুষ আছেন যারা এই Youtube এ ভিডিও আপলোড করার বিনিময়ে প্রচুর পরিমান টাকা ইনকাম করে আসছে। 

তবে ইউটিউবে কাজ করে ইনকাম করতে চাইলে আপনার নিজের কোনো না কোনো বিষয়ে ক্রিয়েটিভিটি থাকতে হবে।

যেমন, আপনি যদি ভালো নাচতে পারেন, তাহলে আপনি নাচের ভিডিও তৈরি করে সেগুলো কে আপলোড করতে পারবেন।

আবার আপনি যদি গান গাইতে পারেন, তাহলে গানের ভিডিও আপলোড করে মোবাইল দিয়ে টাকা আয় করতে পারবেন। 

মোবাইল দিয়ে ইউটিউব থেকে কিভাবে আয় করতে পারবো? 

ইউটিউব থেকে মোবাইল দিয়ে আয় করতে হলে আপনাকে বেশ কিছু কাজ করতে হবে। যেমন, প্রথমত আপনাকে একটি Youtube Channel তৈরি করতে হবে।

এরপর সেই ইউটিউব চ্যানেল কাস্টমাইজ করতে হবে। যখন আপনি সঠিকভাবে আপনার চ্যানেল কে তৈরি করতে পারবেন। তারপর থেকে আপনি আপনার Channel এ ভিডিও আপলোড করতে পারবেন।

এখন আপনার মনে প্রশ্ন জাগতে পারে যে, আপনি কি মোবাইল দিয়ে এই কাজ গুলো করতে পারবেন কিনা?

হুমমম, আপনি চাইলে মোবাইল দিয়েও এই কাজ গুলো করতে পারবেন। সচারচর আপনি যদি মোবাইল দিয়ে ভিডিও তৈরি করতে চান।

তাহলে আপনি Google Play Store এ এমন অনেক ভিডিও ইডিটিং এপস পাবেন ৷ যেগুলোর মাধ্যমে আপনি খুব সহজেই যেকোনো ভিডিওকে ইডিট করতে পারবেন।

TIPS-1: মোবাইল দিয়ে ভিডিও ইডিট করা যায়। এমন কিছু জনপ্রিয় এপস এর নাম হলো, Kinemaster, Filmora, Power Director ইত্যাদি।

TIPS-2: আপনার আপলোড করা ভিডিওতে বেশি View নিয়ে আসার জন্য অবশ্যই SEO করতে হবে। যদি আপনি ইউটিউব ভিডিও এসইও সম্পর্কে জানতে চান। তাহলে আমার ব্লগে আর্টিকেল টি পড়ে নিন।

TIPS-3: আপনি যখন আপনার ইউটিউব চ্যানেল এর ভিডিওতে প্রচুর পরিমান ভিউ নিয়ে আসতে পারবেন। তখন আপনি বিভিন্ন উপায়ে টাকা আয় করতে পারবেন। যেমন, Google AdSense, Affiliates, Sponsorship ইত্যাদি। 

#০২ঃ ব্লগিং থেকে ইনকাম

অনলাইন এর মধ্যে আরও একটি মুক্তপেশার নাম হলো ব্লগিং। যেখানে আপনি লেখালেখি করে বিভিন্ন উপায়ে বেশ ভালো পরিমানে ইনকাম জেনারেট করতে পারবেন।

বর্তমানে মোবাইল দিয়ে আয় করার সবচেয়ে সহজ একটি মাধ্যম হলো ব্লগিং করে আয় করা

আমাদের মধ্যে এমন অনেক মানুষ আছেন। যারা মূলত লেখালেখি করতে পছন্দ করে। কিন্তুু আপনি যদি আপনার সেই লেখালেখি করার দক্ষতাকে ব্লগিং সেক্টরে প্রয়োগ করেন।

তাহলে কিন্তুু আপনি এই কাজের বিনিময়ে অনলাইন ইনকাম মোবাইল দিয়ে করতে পারবেন।

[NOTE: ব্লগিং করে আয় সে সম্পর্কে আমি একটি আর্টিকেলে বিস্তারিত আলোচনা করেছি। যদি আপনি ব্লগিং সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে চান। আমার ব্লগ থেকে পড়ে নিন।]

মোবাইল দিয়ে ব্লগিং করে ইনকাম করতে চাইলে কি করতে হবে?

এখন আপনার মনে প্রশ্ন জাগতে পারে যে, আপনার লেখালেখি করার দক্ষতা আছে। কিন্তুু আপনি কিভাবে আপনার হাতে থাকা মোবাইল দিয়ে ব্লগিং করবেন?

এজন্য আপনাকে কি কি করতে হবে? চলুন এবার সে সম্পর্কে জেনে নেয়া যাক।

তো যদি আপনি মোবাইল দিয়ে টাকা ইনকাম করার জন্য ব্লগিং করতে চান। তাহলে সবার আগে আপনাকে একটি বা একাধিক ব্লগ তৈরি করতে হবে।

এরপর সেই ব্লগটিতে আপনাকে যেকোনো টপিকে লেখালেখি করতে হবে।

এরপর আপনার ব্লগে পাবলিশ করা সেই লেখাগুলো পড়ার জন্য যতো বেশি পাঠক আসবে। আপনি আপনার সেই ব্লগ থেকে ঠিক ততো বেশি আয় করতে পারবেন।

TIPS-1: একটি ব্লগে বেশি ভিজিটর নিয়ে আসার জন্য SEO এর কোনো বিকল্প নেই। তাই আপনি যদি বেশি পরিমানে ইনকাম করতে চান। তাহলে অবশ্যই আপনাকে এসইও করতে হবে।

TIPS-2: কিভাবে আপনার ব্লগ সাইট কে এসইও করবেন। সে নিয়ে অলরেডি আমার ওয়েবসাইট এ আর্টিকেল পাবলিশ করা আছে। আপনি সেখান থেকে বিস্তারিত ধারনা নিতে পারবেন।

TIPS-3: যখন আপনি একটি ব্লগ তৈরি করে লেখালেখি করবেন। তখন আপনার জন্য ইনকাম করার জন্য অনেক গুলো পথ খুলে যাবে। যেমন, Google Adsense, Affiliates, Products Selling, Paid Sponsorship ইত্যাদি। 

#০৩ঃ আর্টিকেল লিখে ইনকাম

মোবাইল দিয়ে আয় করার আরও একটি সহজ কাজ হলো আর্টিকেল লিখে ইনকাম করা ৷ যাকে আমরা এক কথায় বলে থাকি, Content Writing.

যেখানে আপনি শুধু নিজের মোবাইল দিয়ে কোনো একটি বিষয়ে আর্টিকেল লিখবেন। এবং তার বিনিময়ে আপনি টাকা আয় করতে পারবেন।

বর্তমান সময়ে এমন অনেকেই আছেন, যারা আর্টিকেল রাইটিং করে মাস শেষে বেশ ভালো পরিমানে ইনকাম জেনারেট করতে পারছে।

এখন যদি আপনার লেখালেখি করার দক্ষতা থাকে। তাহলে আপনিও এই দক্ষতা কে কাজে লাগিয়ে মোবাইল দিয়ে অনলাইন ইনকাম করতে পারবেন।

মোবাইল দিয়ে কিভাবে আর্টিকেল লিখে ইনকাম করা যায়?

কিভাবে আপনি আপনার মোবাইল দিয়ে আর্টিকেল লিখবেন। সে নিয়ে অবশ্যই আলোচনা করবো। তবে তার আগে জানতে হবে যে, আপনি কোথায় আর্টিকেল লিখলে টাকা আয় করতে পারবেন।

তো আপনি যদি অনলাইন এর বিভিন্ন Freelancing Marketplace গুলোতে নজর রাখেন। তাহলে আপনি এই মার্কেটপ্লেস গুলোতে এমন অনেক আর্টিকেল রাইটিং জব দেখতে পারবেন।

অনলাইন ইনকাম করার উপায়…

যেখানে আপনি একজন দক্ষ রাইটার হতে পারলে আপনার প্রতিটা আর্টিকেল এর জন্য বেশ ভালো পরিমানে ডিমান্ড নিতে পারবেন।

তো এবার আপনার মনে প্রশ্ন জাগতে পারে যে, ভাই সব কিছু তো বুঝলাম। কিন্তুু মোবাইল দিয়ে আর্টিকেল লিখবো কিভাবে? তাহলে শুনুন…

TIPS-1: সাধারনত কম্পিউটারে আর্টিকেল লেখার জন্য অনেক ধরনের সফটওয়্যার রয়েছে। তার মধ্যে Ms Office হলো অন্যতম একটি সফটওয়্যার।

তবে বর্তমান সময়ে আপনি চাইলে সেই Ms Office কে মোবাইলে ব্যবহার করতে পারবেন। এবং এই এপস গুলো আপনি Google Play Store গিয়ে খুজলেই পেয়ে যাবেন।

TIPS-2: বর্তমানে গুগল মাইক্রোসফট অফিস এর মতো একটি নতুন এপস তৈরি করেছে। যেখানে আপনি চাইলে খুব সহজেই মোবাইল দিয়ে আর্টিকেল লিখতে পারবেন।

আপনি যদি প্লে স্টোরে গিয়ে Google Docs লিখে সার্চ করেন। তাহলে আপনি উক্ত এপসটি কে খুজে নিতে পারবেন। 

#০৪ঃ ফেসবুক থেকে ইনকাম

আজকের দিনে ফেসবুক চিনে না, এমন কোনো মানুষ খুজে পাওয়া মুশকিল। বরং আমরা বর্তমানে কম বেশি সবাই অনেকটা সময় ফেসবুকেই ব্যয় করে থাকি।

আর ফেসবুকের ব্যবহারকারীর সংখ্যা বেড়ে যাওয়ার কারনে এখন তারা তাদের প্লাটফর্ম থেকে আয় করার সুযোগ তৈরি করে দিয়েছে।

আমরা উপরের আলোচনা থেকে জেনেছি যে, ইউটিউব এ ভিডিও আপলোড করার মাধ্যমে ইনকাম করা সম্ভব। ঠিক একইভাবে আপনি যদি ইউটিউব এর মতো ফেসবুকে Video Upload করেন।

তাহলে আপনি ফেসবুক থেকেও আয় করতে পারবেন।

বাড়িতে অযথা বসে থেকে ফেসবুকের নিউজফিড স্ক্রল করে সময় নষ্ট না করে আপনি যদি সেই সময়টাকে কাজে লাগাতে পারেন।

তাহলে আপনি কিন্তুু দৈনন্দিন ব্যবহার করা এই ফেসবুক থেকেই বেশ ভালো পরিমানে ইনকাম করতে পারবেন। 

মোবাইল দিয়ে কিভাবে ফেসবুক থেকে ইনকাম করতে পারব?

অনলাইন ইনকাম মোবাইল দিয়ে করার আরও একটি সহজ কাজ হলো ফেসবুকের মাধ্যমে আয় করা। আজকের দিনে এমন অনেকেই আছেন,

যারা শুধুমাএ ফেসবুক এ কাজ করে মাস শেষে বেশ ভালো পরিমানে আয় করতে পারছেন।

TIPS-1: ফেসবুক থেকে মোবাইল দিয়ে আয় করতে চাইলে সবার আগে আপনাকে একটি Facebook Page তৈরি করতে হবে। এরপর সেই পেজে আপনাকে নিজের তৈরি করা ভিডিও আপলোড করতে হবে।

TIPS-2: যখন আপনি নিয়মিত ভিডিও আপলোড করবেন। এবং ফেসবুক এর টার্মস এন্ড কন্ডিশন ফলো করবেন। তখন আপনি আপনার সেই FB Page কে মনিটাইজ করতে পারবেন।

এবং আপনার আপলোড করা ভিডিও তে বিজ্ঞাপন দেখিয়ে টাকা ইনকাম করতে পারবেন। 

#০৫ঃ বিভিন্ন অ্যাপস থেকে ইনকাম 

আপনি যদি অনলাইন ইনকাম মোবাইল দিয়ে করতে চান। তাহলে আপনার জন্য সবচেয়ে সহজ একটি মাধ্যম হলো বিভিন্ন এপস এর মাধ্যমে ইনকাম করা।

যেখানে আপনি মোবাইল দিয়ে টাকা আয় বিকাশে পেমেন্ট 2021 নিতে পারবেন।

আর আপনি জানলে অবাক হবেন কারন, বর্তমানে এমন অনেক বাংলাদেশি app দিয়ে টাকা ইনকাম 2021 করা যাচ্ছে।

যেখানে আপনার মতো অনেক মানুষ ছোটো খাটো কিছু কাজ করে দিনশেষে ৩০০ থেকে ৪০০ টাকা পর্যন্ত ইনকাম করে আসছে।

তাছাড়া আপনি যদি অন্যান্য দেশের এপস এ কাজ করে ইনকাম করতে চান। সেক্ষেত্রে বেশিরভাগ সময় আপনার পেমেন্ট নিতে অনেক ঝামেলায় পড়তে হয়।

কারন সেই এপস গুলো বিদেশের তৈরি হওয়ার কারনে সেগুলোতে কোনো প্রকার বিকাশ পেমেন্ট করার মতো অপশন থাকে না।

যার কারনে আপনি কাজ তো করতে পারবেন। কিন্তুু সেই এপস থেকে আয় করা টাকা গুলো উওলন করতে পারবেন না। 

অপরদিকে আপনি যদি মোবাইল দিয়ে টাকা আয় বিকাশে পেমেন্ট app খুজতে চান।

তাহলে আপনার জন্য উপযুক্ত হবে যে বিকাশে পেমেন্ট করে এমন এপস গুলোতে কাজ করা। তাহলে আপনি খুব সহজেই আপনার উপার্জিত টাকা গুলো উওলন করতে পারবেন।  

মোবাইল অ্যাপস এ কি কি কাজ করে ইনকাম করা যায়?

আমি উপরেই বলেছি যে, অনলাইন এর সবচেয়ে সহজ কাজ হলো মোবাইল এপস থেকে ইনকাম করা। আপনার যদি ইন্টারনেট সম্পর্কে তেমন কোনো ধারনা না থাকে।

তারপরেও আপনি এই এপস গুলোতে স্মুথলি কাজ করতে পারবেন।

এখন আপনার মনে প্রশ্ন জাগতে পারে যে, ভাই তাহলে মোবাইল দিয়ে অনলাইন ইনকাম করার জন্য এই apps গুলো তে কি কি কাজ করা হয়? তাহলে শুনুন….

অনলাইন মোবাইল দিয়ে করতে হলে আপনি এই এপস গুলোতে বিভিন্ন ধরনের কাজ দেখতে পারবেন। যেমন,

Watching Video: বর্তমানে এমন অনেক ইনকাম apps আছে। যেগুলোতে আপনাকে তেমন কোনো কাজ করতে হবে না। সেজন্য আপনি শুধু ভিডিও দেখবেন।

আর তার বিনিময়ে আপনি টাকা আয় করতে পারবেন। আমার মনে হয় আপনি এর থেকে আর সহজ কাজ খুজে পাবেন না।

Spinning: কিছু কিছু এপস আছে, যেগুলো তে আপনি ভিডিও দেখার পাশাপাশি Spin করেও আয় করতে পারবেন। আপনাকে কিছুই করতে হবে না, শুধু সেই এপস গুলোতে প্রবেশ করবেন।

আর কিছুক্ষণ পর পর একটা বা একাধিক স্পিন করবেন। ব্যস! এই কাজটি করেও আপনি বেশ ভালো পরিমানে মোবাইল দিয়ে অনলাইন ইনকাম করতে পারবেন।

View Ad: দেখুন, ভিডিও দেখে ইনকাম করার মতো আরও একটি সহজ কাজ হলো Ad (বিজ্ঞাপন) দেখা। যে কাজটি আপনি কোনো পরিশ্রম ছাড়াই করতে পারবেন।

আপনি শুধু এই এপস গুলোতে প্রবেশ করবেন, এরপর তাদের দেওয়া এড গুলো দেখবেন। আর আপনার একাউন্টে অটোমেটিক টাকা জমা হতে থাকবে।

Micro Task: মাইক্রো টাস্ক হলো আপনাকে কিছু ছোটো খাটো কাজ করতে হবে।

যেমন, অন্য কারো Facebook Page এ লাইক করা, কারো ভিডিও শেয়ার করা, Instagram account কে Follow করা ইত্যাদি।

তো এই কাজ গুলো কিন্তুু আমরা প্রতিনিয়ত করে থাকি। যখন আমরা ফেসবুক ব্যবহার করি, তখন এমন অনেক পেজকে Like দিয়ে থাকি।

কিন্তুু আপনি যদি এই লাইক (Like) দেয়ার কাজটি কোনো মার্কেটপ্লেস থেকে করি। তাহলে কিন্তুু আপনি অনলাইন ইনকাম মোবাইল দিয়ে করতে পারবেন। 

#০৬ঃ ফ্রিল্যান্সিং করে অনলাইন ইনকাম মোবাইল দিয়ে

যাক, উপরে যে আলোচনা হয়েছে। সেগুলো কিন্তুু আপনি মোবাইল দিয়ে করতে পারবেন। কিন্তুু এটা কিভাবে সম্ভব যে, মোবাইল দিয়ে Freelancing করা যাবে?

হুমমম! বর্তমানে আপনি চাইলে মোবাইল দিয়েও ফ্রিল্যান্সিং করতে পারবেন।

এখন আপনার মনে প্রশ্ন জাগতে পারে যে, ভাই সব কাজ যদি মোবাইল দিয়েই করা যায়। তাহলে মানুষ কম্পিউটার আর ল্যাপটপ কিনে নেয় কেন? তাহলে শুনুন…

যদি আপনি প্রফেশনাল মানের Freelancer হতে চান। তাহলে আপনাকে অবশ্যই কম্পিউটার কিনতে হবে। কিন্তুু আপনি যদি ছোটো খাটো কাজ গুলো করতে চান।

তাহলে সেই কাজ গুলো আপনি মোবাইল দিয়েই করে নিতে পারবেন।

বর্তমানে ফ্রিল্যান্সিং সেক্টরে এমন অনেক জব আছে। যেগুলো আপনি মোবাইল দিয়েই করতে পারবেন। যেমন, কপি রাইটিং, কন্টেন্ট রাইটিং, রিভিউ রাইটিং সহো অনেক ধরনের জব পোষ্ট করতে পারবেন।

তবে বলে রাখা ভালো যে, যদি আপনি একেবারে High Level Job করতে চান। যেমন, গ্রাফিক্স ডিজাইন, মোশন গ্রাফিক্স, ওয়েব ডিজাইন।

তাহলে আপনাকে অবশ্যই একটি ভালো মানের কম্পিউটার বা ল্যাপটপ এর প্রয়োজন হবে। 

কিভাবে মোবাইল দিয়ে ফ্রিল্যান্সিং করে অনলাইন ইনকাম করে?

আপনি যদি মোবাইল দিয়ে ফ্রিল্যান্সিং করতে চান। তাহলে আপনাকে বেশ কিছু কাজ করতে হবে। আর এই কাজ গুলো আপনি যদি সঠিকভাবে করতে পারেন।

তাহলে আপনি প্রতি মাসে ১০ থেকে ৩০ হাজার টাকা পর্যন্ত ইনকাম করতে পারবেন।

এবার কিছু টিপস জেনে নেয়া যাক…..

TIPS-1: মনে রাখবেন, এক দক্ষ ফ্রিল্যান্সার তাকেই বলা হয়। যার কোনো একটি বা একাধিক বিষয়ে পূর্ণাঙ্গ দক্ষতা আছে। তাই সবার আগে আপনি কোনো না কোনো বিষয়ে দক্ষতা অর্জন করুন।

TIPS-2: প্রথমে ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেস গুলো ঘোরাঘুরি করুন। সবার আগে আপনাকে জানতে হবে, এই মার্কেটপ্লেস গুলোতে কি কি Job দেওয়া হয়।

এরপর মোবাইল দিয়ে কোন Job গুলো করতে পারবেন। সেগুলোর একটা লিস্ট তৈরি করে ঐ বিষয়টি তে ভালোভাবে দক্ষতা অর্জন করুন।

TIPS-3: এরপর বিভিন্ন ফ্রিল্যান্সিং Marketplace গুলোতে গিয়ে একটা করে Account তৈরি করুন। এবং আপনার দক্ষতার সাথে মিল থাকা কাজ গুলো করা শুরু করে দিন।

TIPS-4:মনে রাখবেন, এখানে আপনি যতো বেশি কাজ করতে পারবেন। আপনার ইনকাম এর পরিমান ঠিক ততো বেশি হবে। 

#০৭ঃ মোবাইল ফটোগ্রাফি করে ইনকাম

অনলাইন ইনকাম মোবাইল দিয়ে করার আরও একটি সহজ উপায় হলো Photography করা। হুমমম, আপনি ঠিক দেখেছেন। আজকাল আপনি এই কাজটি করেও বিপুল পরিমান টাকা ইনকাম করতে পারবেন। 

আমরা অনেক সময় শখের বশে বিভিন্ন ধরনের ছবি তুলে থাকি। আর সেগুলো কে ফেসবুকে গিয়ে নিজের প্রোফাইলে আপলোড করি, তাইনা?

কিন্তুু আপনি যদি পিক তোলার পর সেই পিক গুলো কোনো অনলাইন মার্কেটপ্লেসে গিয়ে আপলোড করেন। তাহলে কিন্তুু আপনি সেই পিক গুলো বিক্রি করে অনলাইন ইনকাম মোবাইল দিয়ে করতে পারবেন।

আমার মতে এর থেকে সহজ কাজ আপনি আর দ্বিতীয়টা খুজে পাবেন না। 

মোবাইল কিভাবে ফটোগ্রাফি করে অনলাইনে ইনকাম করা যাবে?

এখন আপনার মনে প্রশ্ন জাগতে পারে যে ভাই, আপনি মোবাইল দিয়ে পিক তুলবেন। কিন্তুু মানুষ কেন আপনার সেই ছবি কিনে নিবে? তারা এগুলো দিয়ে কি করবে?

দেখুন, তারা আপনার মোবাইলে তোলা ছবি গুলো খাবে নাকি জলে ভাসিয়ে দিবে। সেটা নিয়ে আপনার কোনো টেনশন করার দরকার নেই।

বরং অনলাইনে ছবি বিক্রি করে আয় করতে পারছেন। সেটাই কিন্তু বড় কথা।

যদি আপনার বিশ্বাস না হয়। তাহলে আমি নিচে কিছু ওয়েবসাইট এর লিংক দিচ্ছি। যে ওয়েবসাইট গুলোতে আপনি খুব সহজেই আপনার মোবাইল দিয়ে তোলা ছবি গুলো কে বিক্রি করতে পারবেন।

Photo Selling Website List

  • Adobe Stock
  • Shutterstock
  • Alamy
  • Etsy
  • Fotomoto
  • Crestock
  • 500px

#০৮ঃ মাইক্রোজব সাইট থেকে ইনকাম

বর্তমানে মাইক্রো জব এর ওয়েবসাইট গুলো বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠছে। আর অনলাইন আয় মোবাইল দিয়ে করার জন্য সবচেয়ে উপযুক্ত একটি উপায় হলো, Microjob করা।

যেখান থেকে আপনি প্রতি মাসে ৫ থেকে ১০ হাজার টাকা আয় করতে পারবেন।

এই কাজ গুলো মূলত অনেক সহজ হয়ে থাকে। আর যেকোনো ব্যক্তি এই কাজ গুলো করতে পারবেন।

আপনার জন্য আরো আর্টিকেল…

যেমন, অন্য কারো ভিডিও দেখা, কারো ওয়েবসাইটে ভিজিট করা, অন্য কারো পোষ্টে কমেন্ট করা ইত্যাদি।

আর সবচেয়ে মজার বিষয় হলো হলো, বর্তমানে এমন অনেক মাইক্রো জব সাইট তৈরি হয়েছে।

যেখানে আপনি যে টাকা গুলো মোবাইল দিয়ে অনলাইন আয় করবেন। সেই টাকা গুলো আপনি বিকাশে পেমেন্ট ২০২১ নিতে পারবেন।

কিভাবে মোবাইল দিয়ে মাইক্রো জব করবেন?

আমরা উপরের আলোচনা থেকে জানতে পারলাম যে, বর্তমান সময়ে মোবাইল দিয়ে অনলাইন ইনকাম করার জন্য সবচেয়ে সহজ কাজ হলো মাইক্রো জব করা।

যেখানে আপনি কাজ করে আপনার অনলাইন থেকে ইনকাম করা টাকা গুলো সহজেই বিকাশ পেমেন্ট নিতে পারবেন।

এখন আপনার মনে প্রশ্ন জাগতে পারে যে, কিভাবে আপনি মোবাইল দিয়ে এই Micro Job গুলো করবেন? তো এবার সেই বিষয় গুলো নিয়ে একটু আলোকপাত করা যাক।

দেখুন, সময়ের সাথে তাল মিলিয়ে এখন অনেক মাইক্রোজব ওয়েবসাইট রয়েছে। যেখানে আপনার মতো অনেক মানুষ তাদের হাতে থাকা মোবাইল ফোন দিয়ে কাজ করে থাকে।

এবং তারা এই কাজ গুলোর বিনিময়ে দৈনিক ৩০০ থেকে ৪০০ টাকা বা তারও বেশি ইনকাম করে।

তবে আপনি আসলে কোন ওয়েবসাইট গুলোতে কাজ করবেন। যারা নতুন তারা এই বিষয়টি বুঝতে পারবে না।

কিন্তুু আমি অনলাইনে অনেক খোজা খুজির পর কিছু বিশ্বস্ত মাইক্রোজব ওয়েবসাইট পেয়েছি। এবার সেগুলো সম্পর্কে একটু আলোচনা করবো। 

0.01- Picoworkers 

আমার দেখা মাইক্রো জব এর জন্য সবচেয়ে জনপ্রিয় এবং বিশ্বস্ত একটি ওয়েবসাইট হলো, Picoworkers. এখানে আপনার মতো অনেক মানুষ প্রতিনিয়ত কাজ করে।

আর কাজের বিনিময়ে আপনি এখান থেকে বেশ ভালো পরিমানে ইনকাম করতে পারবেন।

যদি আপনি Picoworkers এ কাজ করতে চান। তাহলে সবার আগে আপনাকে এখানে একটি Account Create করতে হবে। এরপর আপনি সরাসরি কাজ করতে পারবেন।

এখানে আপনি বিভিন্ন ধরনের কাজ করতে পারবেন। যেমন, অন্যের ওয়েবসাইট ভিজিট করা, কোনো ফেসবুক পেজে লাইক করা, অন্য কারো ইউটিউব ভিডিও তে ভিউ করা ইত্যাদি। 

0.02: Rapid Workers 

পিকো ওয়ার্কার এর মতো আরও একটি জনপ্রিয় Micro Job Site এর নাম হলো, Rapid Worker. যেখানে আপনি খুব সহজেই কাজ করতে পারবেন।

এবং সেই কাজের বিনিময়ে অনলাইন ইনকাম মোবাইল দিয়ে করতে পারবেন।

তো এখানে আপনি যে কাজ গুলো করবেন। সেগুলো অনেক সহজ। তাই যে কেউ উক্ত কাজ গুলো করে অনলাইন আয় করতে পারবে।

[💡NOTE: এগুলো ছাড়াও আরও অনেক গুলো মাইক্রো জব ওয়েবসাইট রয়েছে। আপনি যদি গুগলে গিয়ে Best Micro Job Site List লিখে সার্চ দেন। তাহলে আপনি এমন অনেক ধরনের ওয়েবসাইট সম্পর্কে জানতে পারবেন।]

#০৯ঃ প্রোডাক্ট সেল করে মোবাইল দিয়ে অনলাইন ইনকাম

আমরা যখন ফেসবুক ব্যবহার করি। তখন হুট করে নিউজফিডে কিছু Live Video চলে আসে। যেখানে একজন ছেলে বা মেয়ে বিভিন্ন প্রোডাক্ট নিয়ে কথা বলে।

আর আমাদের মতো ইউজারদের যখন কোনো প্রোডাক্ট ভালো লাগে। তখন তারা তাদের কাছে উক্ত পন্যের জন্য অর্ডার করে থাকে।

এখন আপনি চাইলে মোবাইল দিয়ে তাদের মতো কাজ করতে পারবেন। এবং এই কাজটিও আপনি আপনার ঘরে বসে নিজের সুবিধা মতো করতে পারবেন।

এখন আপনার মনে আরও একটি প্রশ্ন জাগে পারে। সেটি হলো, অনলাইনে প্রোডাক্ট সেল করলে আপনি কিভাবে টাকা আয় করবেন? তাহলে শুনুন….

আপনি এই কাজটি দুইভাবে করতে পারবেন। প্রথমত, আপনি নিজের প্রোডাক্ট সেল করে আয় করতে পারবেন।

দ্বিতীয়ত, আপনি নিজের প্রোডাক্ট সেল করে আয় করতে পারবেন।

তবে যদি আপনি অন্যের প্রোডাক্ট সেল করে অনলাইন আয় মোবাইল দিয়ে করতে চান। সেক্ষেএে আপনি কমিশন হিসেবে কাজ করে আয় করতে পারবেন।

[⚠️WARNING: যারা মুলত একেবারে নতুন অনলাইনে ইনকাম করতে আসে। তারা বেশিরভাগ মানুষ প্রথমে পিটিসি ওয়েব সাইটে কাজ করে।

কিন্তুু একটা কথা বলে রাখা ভালো যে, বর্তমানে PTC Site গুলোতে কাজ করার আগে আপনাকে যথেষ্ট সাবধানতা অবলম্বন করতে হবে।]

কারন, অনলাইন সেক্টরে বাটপারিতে ভরপুর হলেও এই সাইট গুলোতে কিন্তুু প্রচুর পরিমানে স্ক্যামিং করা হয়। অর্থ্যাৎ, আপনি সময় ও শ্রম ব্যয় করে কাজ করবেন।

কিন্তুু টাকা নেয়ার সময় তারা আপনাকে আর টাকা দিবে না।

তবে বিষয়টা এমন নয় যে, সব পিটিসি ওয়েব সাইট গুলো এমনটা করে। না! সবাই বাটপারি করেনা, তবে কিছু সংখ্যক মানুষ এমনটা করে থাকে। তাই এ নিয়ে যথেষ্ট সাবধান থাকবেন।

আমার পরিচিত কিছু PTC Website রয়েছে। যারা মূলত বর্তমান সময়ে অনেক বেশি জনপ্রিয় এবং আপনি এখানে কাজ করে খুব সহজেই অনলাইন ইনকাম মোবাইল দিয়ে করতে পারবেন। যেমনঃ

#১০ঃ মোবাইল দিয়ে ইনস্টাগ্রাম থেকে ইনকাম 

অন্যান্য কাজের মতো আরও একটি জনপ্রিয় কাজ হলো, Instagram থেকে আয় করা। আমরা সবাই জানি যে, বর্তমান বিশ্বে ইনস্টাগ্রাম হলো জনপ্রিয় একটি ফটো শেয়ারিং সোশ্যাল মিডিয়া ওয়েব সাইট।

যেখানে গোটা পৃথিবীতে মিলিয়ন মিলিয়ন ইউজার রয়েছে।

এখন আপনি চাইলে এই মিলিয়ন মিলিয়ন ইউজারকে দিয়ে ইনকাম করতে পারবেন। তবে একটা কথা বলে রাখা ভালো যে, আপনি মোবাইল দিয়ে ইনস্টাগ্রাম থেকে আয় করতে পারবেন।

তবে এখানে কাজ করতে হলে আপনাকে অনেক বিষয় সম্পর্কে জানতে হবে।

[💡NOTE:কিভাবে মোবাইল দিয়ে ইনস্টাগ্রাম থেকে আয় করবেন। সে নিয়ে আমার ওয়েবসাইট এ একটি ডেডিকেটেড আর্টিকেল পাবলিশ করা আছে।

আপনি যদি সে সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে চান। তাহলে অবশ্যই সেই আর্টিকেলটি পড়ে নিবেন। ]

#১১ঃ পিটিসি সাইট থেকে মোবাইল দিয়ে অনলাইন ইনকাম 

PTC শব্দটি হলো একটি শব্দ সংক্ষেপ। যার পূর্নরুপ হলো, Paid To Click. অর্থ্যাৎ, আপনি এখানে প্রতি ক্লিক করার বিনিময়ে নির্দিষ্ট পরিমান আয় করতে পারবেন।

এখন আপনার মনে প্রশ্ন জাগতে পারে যে, আপনি কোথায় ক্লিক করবেন আর কিভাবে প্রতি ক্লিক থেকে মোবাইল দিয়ে ইনকাম করবেন? তাহলে শুনুন…

এমন অনেক ওয়েবসাইট আছে, যেগুলো মূলত পিটিসি নিয়ে কাজ করে থাকে। এরা মূলত বিভিন্ন Advertising কোম্পানির সাথে যোগাযোগ করে। যেন তাদের ওয়েবসাইটে Ad দেখানো হয়।

এরপর তারা এই Ad দেখিয়ে যে পরিমান ইনকাম করে। সেখান থেকে কিছু পরিমান টাকা আপনার বা আমার মতো সাধারন মানুষকে দেয়। যারা মূলত এই পিটিসি সাইট গুলোতে কাজ করে থাকে।

তো আপনি যদি এইসব পিটিসি ওয়েব সাইট গুলোতে কাজ করতে চান। সেক্ষেএে আপনাকে তেমন কোনো কাজ করতে হবে না। আপনি শুধমাএ এই ওয়েব সাইট গুলোতে একটি করে একাউন্ট তৈরি করবেন।

এরপর তাদের ওয়েবসাইটে যে বিজ্ঞাপন গুলো দেখানো হবে। আপনাকে সেই বিজ্ঞাপন (Ad) গুলোতে ক্লিক করতে হবে।

আর আপনি যতো বেশি বিজ্ঞাপন এ ক্লিক করবেন। আপনার ইনকাম ও ঠিক ততো বেশি পরিমানে বৃদ্ধি পাবে।

তাই চেস্টা করবেন এই সাইট গুলোতে একটু বেশি সময় দিয়ে কাজ করার। তাহলে আপনি প্রতিদিন ৪০০ থেকে ৫০০ টাকা পর্যন্ত আয় করতে পারবেন। 

Best PTC Website List For Earn Money From Mobile 

এবার আমরা কিছু জনপ্রিয় ও বিশ্বস্ত পিটিসি ওয়েব সাইট সম্পর্কে জানবো। যেখানে আপনি সঠিকভাবে কাজ করতে পারলে দৈনিক ৪০০ থেকে ৫০০ টাকা মোবাইল দিয়ে অনলাইন ইনকাম করতে পারবেন।

এমন কিছু ওয়েবসাইট এর নাম হলোঃ

  • NeoBux 
  • ClixSense 
  • FamilyClix 
  • Scarlet Click 
  • GPTPlanet 
  • ojooo
  • clixblue 
  • ayuwage

এগুলো ছাড়াও আরও অনেক PTC Website আছে। আপনি গুগলে সার্চ করলে এমন অনেক সাইট সম্পর্কে জানতে পারবেন।

আমাদের শেষকথাঃ 

আশা করি আপনি অনলাইন ইনকাম মোবাইল দিয়ে নিয়ে বিস্তারিত জানতে পেরেছেন। কারন আমি উপরে মোবাইল দিয়ে অনলাইন ইনকাম নিয়ে প্রত্যেকটা বিষয় স্টেপ বাই স্টেপ আলোচনা করেছি।

এছাড়াও আপনি মোবাইল দিয়ে অনলাইন ইনকাম করার পর। কিভাবে সেই টাকা গুলো বিকাশ পেমেন্ট ২০২১ নিবেন। সে সম্পর্কে পরিস্কার ধারনা দেয়ার চেস্টা করেছি।

তবে, এরপরও যদি আপনার মোবাইল দিয়ে অনলাইন ইনকাম নিয়ে আরও কোনো প্রশ্ন থাকে। তাহলে প্লিজ তা কমেন্ট করে জানাবেন।

বাংলা আইটি ব্লগ (Banglaitblog) এর সাথে থাকুন। ধন্যবাদ

Related article

4 thoughts on “অনলাইন ইনকাম মোবাইল দিয়ে ২০২১”

  1. ফারদিন মিম

    খুব সহজভাবে বোঝানোর জন্য ভাল লেগেছে। মোবাইল দিয়ে কি আসলেই ইনকাম করা যাবে?

  2. শুভল দাস

    আমি একজন ইন্ডিয়ান এবং আপনার লেখা পড়ে অনেক কিছুই জানতে পেরেছি। তার জন্য আপনাকে অনেক ধন্যবাদ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই লেখা কপি করবেন না!
Scroll to Top
Share via
Copy link
Powered by Social Snap