বাংলাদেশী অ্যাপ থেকে প্রতিদিন 1000 টাকা আয় পেমেন্ট বিকাশে

আমরা যখন বিভিন্ন প্রকারের অ্যাপস থেকে অনলাইন ইনকাম করার চেষ্টা করি। তখন আমাদের সামনে বড় একটি সমস্যা এসে হাজির হয়। আর সেই সমস্যা টি হলো, পেমেন্ট মেথড নিয়ে।

বাংলাদেশী অ্যাপ থেকে প্রতিদিন 1000 টাকা আয় পেমেন্ট বিকাশে

কেননা বর্তমান সময়ে যে সকল অনলাইন ইনকাম করার অ্যাপস রয়েছে। সেই অ্যাপস গুলো ভার্চুয়াল মাস্টার কার্ড এর মাধ্যমে পেমেন্ট করে থাকে। যেমন, পেপাল, পেওনিয়ার ইত্যাদি।

কিন্তু আমাদের মধ্যে অধিকাংশ মানুষের এই ধরনের ভার্চুয়াল মাস্টার কার্ড না থাকার কারণে। আমরা সেই সকল অ্যাপসে কাজ করতে পারলেও।

কাজের বিনিময়ে যে পরিমাণ অর্থ উপার্জন করতে পারি, সে গুলো উইথড্র করতে পারি না।

আর সে কারণে আমরা এমন অনলাইন ইনকাম করার অ্যাপস গুলোর খোঁজ করি। যে গুলো তে কাজ করার মাধ্যমে বিকাশের পেমেন্ট পাওয়া সম্ভব।

আপনি আরোও জানতে পারবেন…

তো যারা আসলে এমন ধরনের বাংলাদেশি অ্যাপ থেকে আয় করার চেষ্টা করছেন এবং bangladeshi app প্রতিদিন 1000 টাকা ইনকাম পেমেন্ট বিকাশ এ নিতে চান।

মূলত bangladeshi app per day 1000 taka income payment bkash এ করতে পারবেন তাদের জন্যই আজকের এই আর্টিকেল টি লেখা হয়েছে। 

বাংলাদেশী অ্যাপ থেকে টাকা আয় করা যাবে কি? 

সত্যি বলতে আপনি অন্যান্য দেশের অ্যাপ গুলো থেকে যেভাবে কাজ করে টাকা আয় করেন। ঠিক একই পদ্ধতি অনুসরণ করে আপনি আমাদের বাংলাদেশের অ্যাপস থেকেও অনলাইন ইনকাম করতে পারবেন।

আর সেই অ্যাপস গুলো থেকে আপনি যে পরিমাণ টাকা আয় করতে পারবেন। সে গুলো বিকাশের মাধ্যমে উত্তোলন করতে পারবেন।

কিন্তু আপনি যদি আমাদের বাংলাদেশী অ্যাপ থেকে টাকা আয় করতে চান। আর সেই আয় করা টাকা গুলো বিকাশে পেমেন্ট নিতে চান।

তাহলে অবশ্যই আপনাকে সেই অ্যাপস গুলোর নাম জানতে হবে। যে অ্যাপস গুলো বর্তমান সময়ে আমাদের বাংলাদেশে চালু রয়েছে।

তো এবার আমি আপনাকে সেই সকল অ্যাপস এর তালিকা প্রদান করব। যে অ্যাপস গুলো তে আপনি বাংলাদেশ থেকে কাজ করতে পারবেন।

আর সেই কাজের বিনিময়ে উপার্জিত অর্থ গুলো বিকাশে পেমেন্ট নিতে পারবেন।

আর আপনি যদি সেই বাংলাদেশী অনলাইন ইনকাম অ্যাপস গুলো সম্পর্কে জানতে চান। তাহলে নিচের আলোচিত আলোচনা গুলো তে নজর রাখুন। 

প্রতিদিন ১০০০ টাকা আয় করার বাংলাদেশী অ্যাপস

তো আপনারা যারা বাংলাদেশী অ্যাপ থেকে প্রতিদিন এক হাজার টাকা আয় করতে চান। এবং সেই টাকা গুলো বিকাশে পেমেন্ট নিতে চান। তাদের জন্য এবার আমি বেশ কিছু অ্যাপস এর কথা বলব।

আর আপনি যদি এই অ্যাপস গুলো তে সঠিকভাবে কাজ করতে পারেন। তাহলে আপনি খুব সহজ ভাবে প্রতিদিন ১০০০ টাকা ইনকাম করতে পারবেন। যেমন, 

বিকাশ (Bkash) বাংলাদেশী অ্যাপ থেকে আয় করুন 

আপনি যদি বিশ্বস্ত কোন বাংলাদেশী অ্যাপ থেকে টাকা আয় করতে চান। তাহলে আমি সবার শুরুতেই আপনাকে বিকাশ অ্যাপস এর মধ্যে কাজ করার পরামর্শ দিব।

এখন হয়তোবা আপনার মনে প্রশ্ন জেগে থাকতে পারে যে, বিকাশের মাধ্যমে তো আমরা টাকা লেনদেন করি। কিন্তু এই অ্যাপস দিয়ে কিভাবে আয় করা যায়?

আর আপনার মনে যদি এই ধরনের প্রশ্ন জেগে থাকে। তাহলে আমি আপনাকে বলব যে, এমন অনেক উপায় রয়েছে। যে উপায় গুলো সঠিক ভাবে ফলো করার মাধ্যমে।

আপনি আপনার নিজস্ব বিকাশ অ্যাপস থেকে টাকা আয় করতে পারবেন। আর সেই উপায় গুলো হলো,

  1. বিকাশ রেফার করে টাকা আয়। 
  2. বিকাশ থেকে কুইজ খেলে টাকা আয়। 
  3. বিকাশ অ্যাপসে গেমস খেলে টাকা আয়। 
  4. নির্দিষ্ট লেনদেনের মাধ্যমে পুরস্কার জিতে টাকা আয়।

মূলত আপনি যদি বিকাশ অ্যাপস থেকে টাকা আয় করতে চান। তাহলে আপনাকে উপরের এই কাজ গুলো করতে হবে।

তবে আপনি যদি বিকাশ অ্যাপ থেকে অধিক পরিমাণ টাকা আয় করতে চান। তাহলে অবশ্যই আপনাকে রেফার প্রোগ্রামে অংশগ্রহণ করতে হবে।

আর আপনি এই বিকাশ এপস এর মধ্যে কাজ করার পর যে পরিমাণ টাকা আয় করবেন। সে গুলো সরাসরি আপনার বিকাশ একাউন্টে যুক্ত হবে।

আর পরবর্তীতে আপনি আপনার প্রয়োজন অনুযায়ী সেই টাকা গুলো ক্যাশ আউট করতে পারবেন। 

দারাজ (Daraz) বাংলাদেশী অ্যাপ থেকে টাকা আয় করুন

আপনারা যারা bangladeshi app প্রতিদিন 1000 টাকা ইনকাম পেমেন্ট বিকাশ নিতে চান। তাদের জন্য অন্যতম একটি অ্যাপস হবে, দারাজ।

যেখানে আপনি অনেক ছোট ছোট কাজের বিনিময়ে প্রচুর পরিমাণ টাকা আয় করতে পারবেন।

তো যদি আপনি বুঝতে না পারেন যে, কিভাবে এই বাংলাদেশি অ্যাপ থেকে টাকা আয় করার পর বিকাশে পেমেন্ট নিবেন। তাহলে নিচের আলোচনা গুলো দেখুন।

মূলত বর্তমান সময়ে জনপ্রিয় একটি ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান হলো, দারাজ। যার মাধ্যমে বিভিন্ন পদ্ধতি ফলো করে টাকা আয় করা যায়।

আর আপনি যদি সে পদ্ধতি গুলো কে সঠিক ভাবে কাজে লাগাতে পারেন। তাহলে আপনি প্রতিদিন শুধু মাত্র এক হাজার নয়। বরং আপনি ১০ হাজার টাকা পর্যন্ত আয় করতে পারবেন। আর সেই টাকা আয় করার পদ্ধতি গুলো হল, 

০১| দারাজ এফিলিয়েট প্রোগ্রামের মাধ্যমেঃ একটা বিষয় আমরা সকলে বেশ ভালো করে জানি।

আর সেই বিষয় টি হলো, আমাদের বাংলাদেশের মধ্যে অন্যতম ও জনপ্রিয় একটি ই-কমার্স প্রতিষ্টান এর নাম হলো, দারাজ। যেখানে মানুষের নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্যের সমাহার রয়েছে।

এখন আপনি যদি একজন সেলার হয়ে তাদের প্রোডাক্ট গুলো সেল করে দিতে পারেন। তাহলে এই প্রোডাক্ট সেল করার বিনিময়ে আপনাকে নির্দিষ্ট পরিমাণ অর্থ প্রদান করা হবে।

যাকে সহজ কথা বলা হয়, অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং। এভাবে আপনি যত বেশি প্রোডাক্ট সেল করে দিতে পারবেন। আপনার ইনকামের পরিমাণ ঠিক ততো বেশি বৃদ্ধি পাবে।

০২| নিজস্ব প্রোডাক্ট সেল করার মাধ্যমেঃ আপনি দারাজে প্রোডাক্ট সেল করার পাশাপাশি যদি আপনার নিজস্ব কোন প্রোডাক্ট থাকে। সেক্ষেত্রে আপনি সে গুলো দারাজের সাহায্য সেল করে টাকা আয় করতে পারবেন।

কেননা যখন আপনি দারাজে আপনার প্রোডাক্ট গুলো যুক্ত করবেন। তারপর দারাজ প্রতিষ্ঠান নিজে থেকেই আপনার প্রোডাক্ট গুলোর মার্কেটিং করবে।

আর মার্কেটিং করার ফলে আপনার সেই প্রোডাক্ট গুলোর সেল হওয়ার সম্ভাবনা বৃদ্ধি পাবে। যার ফলে আপনার প্রোডাক্ট যত বেশি সেল হবে।

আপনি সেখান থেকে ততো বেশি প্রফিট অর্জন করতে পারবেন। মূলত এই পদ্ধতি গুলোর মাধ্যমে আপনি জনপ্রিয় ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান দারাজ থেকে আয় করতে পারবেন।

ফুডপান্ডা (Foodpanda) বাংলাদেশি অ্যাপস থেকে আয় করুন 

বর্তমান সময়ে আমাদের বাংলাদেশ এর মধ্যে খাবার ডেলিভারি দেওয়া প্রতিষ্ঠান  হিসেবে ফুড পান্ডা অনেক জনপ্রিয়।

যার মাধ্যমে আমরা নিচের ঘরে বসে অর্ডার করে পছন্দের খাবার গুলো সংগ্রহ করতে পারি।

কিন্তু এই খাবার গুলো ডেলিভারি দেওয়ার জন্য নির্দিষ্ট পরিমাণ জনবল এর প্রয়োজন হয়। যাদের সাহায্য ফুডপান্ডা প্রতিষ্ঠান তাদের অর্ডার করা খাবার গুলো হোম ডেলিভারি দেয়।

আর আপনি যেহেতু অনলাইনে কাজ করতে চাচ্ছেন। এবং সেই কাজের বিনিময় অর্থ উপার্জন করতে চান।

সেহেতু আপনি অবশ্যই ফুডপান্ডা অ্যাপস এর মধ্যে একজন ডেলিভারি ম্যান হিসেবে কাজ করতে পারেন। তবে আপনি যদি ফুড পান্ডাতে ডেলিভারি ম্যান হিসেবে কাজ করতে চান।

সেক্ষেত্রে কিন্তু আপনার বেশ কিছু যোগ্যতা থাকতে হবে। যেমন,

  1. আপনার জাতীয় পরিচয়পত্র থাকতে হবে। 
  2. খাবার ডেলিভারি দেওয়ার জন্য আপনার একটি সাইকেল অথবা মোটরসাইকেল থাকতে হবে। 
  3. আপনার সদ্য তোলা রঙিন ছবির প্রয়োজন হবে।

মূলত উপরের এই প্রয়োজনীয় ডকুমেন্ট গুলো দিয়ে আপনি ফুডপান্ডা ডেলিভারি ম্যান এর জন্য রেজিস্ট্রেশন করতে পারবেন।

আর যখন আপনার রেজিস্ট্রেশন প্রক্রিয়া সম্পন্ন হবে। তখন আপনি উক্ত প্রতিষ্ঠান এর আওতায় ডেলিভারি ম্যান এর কাজ হতে পারবেন।

তো যারা আসলে বাংলাদেশী অ্যাপস থেকে টাকা আয় করতে চান। তারা যদি ফুডপান্ডা অ্যাপস এর মধ্যে সঠিক ভাবে কাজ করতে পারেন।

তাহলে আপনি এই অ্যাপস থেকে প্রতিমাসে ২০ হাজার থেকে ২৫ হাজার টাকা পর্যন্ত আয় করতে পারবেন। আর উক্ত টাকা গুলো আপনি বিকাশে পেমেন্ট নিতে পারবেন।

পাঠাও (Pathao) অ্যাপস থেকে টাকা আয় করুন 

বর্তমান সময়ে আমাদের বাংলাদেশ এর মধ্যে রাইড শেয়ারিং প্ল্যাটফর্ম হিসেবে পাঠাও অন্যতম। যার মাধ্যমে আমরা খুব দ্রুততার সাথে এক স্থান থেকে অন্য স্থানে যেতে পারি।

তো যদি আপনার নিজস্ব বাইক থাকে। সেক্ষেত্রে আপনি এই পাঠাও অ্যাপ এর মধ্যে কাজ করে হাজার হাজার টাকা আয় করতে পারবেন।

আরোও পড়তে পারবেন…

আর আমাদের মধ্যে যে সকল মানুষ বাংলাদেশী অ্যাপস থেকে কাজ করে বিকাশে পেমেন্ট নিতে চান। তারা চাইলে এই অ্যাপসে কাজ করা শুরুতে পারেন।

তো আপনি যদি পাঠাও অ্যাপস এর মধ্যে কাজ করে অর্থ উপার্জন করতে চান। সেক্ষেত্রে কিন্তু আপনাকে রেজিস্ট্রেশন করতে হবে।

আর পাঠাও অ্যাপস এর মধ্যে রেজিস্ট্রেশন করার জন্য আপনাকে বেশ কিছু প্রয়োজনীয় ডকুমেন্টস প্রদান করতে হবে। সেই ডকুমেন্ট গুলো হল,

  1. আপনার একটি নিজস্ব বাইক থাকতে হবে।
  2. সেই বাইকের বৈধ কাগজপত্র থাকতে হবে।
  3. আপনার ড্রাইভিং লাইসেন্স থাকতে হবে।
  4. জাতীয় পরিচয় পত্র এর প্রয়োজন হবে।

যদি আপনার নিকট উপরোক্ত ডকুমেন্ট গুলো থাকে। তাহলে আপনি সেই ডকুমেন্ট গুলোর সাহায্য পাঠাও অ্যাপসে রাইডার হিসেবে রেজিস্ট্রেশন করতে পারবেন। 

আর যখন আপনি রেজিস্ট্রেশন সম্পন্ন করতে পারবেন। তারপর পাঠাও অ্যাপস এ রাইডিং এর কাজ করে প্রতি মাসে ২৫ থেকে ৩০ হাজার টাকা ইনকাম করতে পারবেন। 

Bangladeshi app per day 1000 taka income payment bkash

এতক্ষণের আলোচনা তে আমি আপনাদের যে সকল বাংলাদেশী ইনকাম করা অ্যাপস নিয়ে বলেছি। সে গুলো তে আপনি কোন ধরনের মাইক্রো জব করার মাধ্যমে টাকা আয় করতে পারবেন না।

যেমন, এই অ্যাপস গুলো দিয়ে আপনি গেম খেলে কিংবা ভিডিও দেখে অথবা অ্যাপস ইনস্টল করার মাধ্যমে টাকা আয় করতে পারবেন না।

তো এবার হয়তোবা অনেকের মনে প্রশ্ন জাগতে পারে যে, আমাদের বাংলাদেশের কি এমন কোন অ্যাপস আছে। যেখানে অনেক ছোট ছোট কাজের মাধ্যমে ঘরে বসে টাকা আয় করা যাবে?

আর আপনার মনে যদি এই ধরনের প্রশ্ন জেগে থাকে। তাহলে আমি আপনাকে বলব যে, আমাদের বাংলাদেশ এর মধ্যেও অনেক অ্যাপস রয়েছে।

যে গুলো তে ছোট ছোট কাজের বিনিময়ে টাকা আয় করা যায়। কিন্তু সমস্যা হল, সেই অ্যাপস গুলোর অধিকাংশ স্ক্যাম করে থাকে।

অর্থাৎ তারা আপনাকে দিয়ে বিভিন্ন ধরনের ছোট ছোট কাজ করিয়ে নিবে। কিন্তু পরবর্তী সময়ে যখন আপনি আপনার উপার্জিত অর্থ গুলো উইথড্র করতে যাবেন।

তখন আপনি সে গুলো আর উত্তোলন করে নিতে পারবেন না। মূলত এটাই হলো আমাদের বাংলাদেশ এর অনলাইন ইনকাম অ্যাপস এর মূল সমস্যা।

বাংলাদেশী অ্যাপ থেকে প্রতিদিন 1000 টাকা আয়

দেখুন, এবার আমি আপনাকে বেশ কিছু বাংলাদেশি অনলাইনে ইনকাম অ্যাপস এর সাথে পরিচয় করিয়ে দিব। আপনি চাইলে এই অ্যাপ গুলো তে কাজ করে টাকা আয় করার চেষ্টা করতে পারবেন।

তবে শুরুতে আমি বলে দিচ্ছি যে, এই অ্যাপস গুলো আমার নিজস্ব নয়। আর আমি কোনদিন এই অ্যাপস গুলো তে কাজ করিনি।

কেননা, আপনার সুবিধার জন্য আমি অনলাইনে রিসার্চ করার মাধ্যমে এই অ্যাপস গুলো সম্পর্কে জানতে পেরেছি।

তাই পরবর্তী সময় যদি এই অ্যাপস গুলো কাজ করার বিনিময়ে কোন প্রকার অর্থ প্রদান না করে। সেক্ষেত্রে আমি তার কোন দায়ভার নিবো না। 

Daily Taka – প্রতিদিন ইনকাম

বর্তমান সময়ে আমাদের বাংলাদেশ এর মধ্যে অন্যান্য অনলাইন ইনকাম অ্যাপসের তুলনায় উক্ত অ্যাপ এর জনপ্রিয়তা অনেক বেশি রয়েছে।

আর যখন আপনি প্রথমবার উক্ত অ্যাপস টি আপনার মোবাইলের মধ্যে ইন্সটল করবেন। এবং এই অ্যাপ্স এ প্রবেশ করবেন। তখন আপনি এখানে লক্ষ্য করতে পারবেন যে, এই অ্যাপসে খুব সহজ সহজ কাজ করার সুযোগ রয়েছে। যেমন,

  1. এখানে আপনি বিজ্ঞাপন দেখে টাকা আয় করার সুযোগ পাবেন।
  2. স্পিনিং করে টাকা আয় করার যাবে।
  3. এই অ্যাপস এর মধ্যে ছোট ছোট গেম রয়েছে। যে গুলো খেলার মাধ্যমে আয় করা যাবে।

আর যখন আপনি দীর্ঘ সময় পর্যন্ত এই অ্যাপস এর মধ্যে কাজ করবেন। আর সারাদিন আপনার যে পরিমাণ টাকা আয় হবে। সেই টাকা গুলো আপনি দৈনিক উত্তোলন করতে পারবেন।

এক্ষেত্রে আপনারা যারা বিকাশে পেমেন্ট নিতে চান। তারা উক্ত অ্যাপসে কাজ করে উপার্জিত অর্থ গুলো বিকাশের মাধ্যমে পেমেন্ট নিতে পারবেন।

তো আপনারা যারা বাংলাদেশি অ্যাপস থেকে টাকা আয় করতে চান। তারা শুধুমাত্র একদিনের জন্য এই অ্যাপস টি ব্যবহার করে দেখবেন।

এছাড়াও সেই অ্যাপস টি পেমেন্ট করে কিনা সেই সম্পর্কে অবশ্যই নিচে কমেন্ট করে জানিয়ে দিবেন।

এই বাংলাদেশি অনলাইন ইনকাম অ্যাপস টি ডাউনলোড করার জন্য এখানে ক্লিক করুন। 

Daily Taka Income bd Job

আপনি যদি গুগল প্লে স্টোর এর মধ্যে প্রবেশ করেন এবং এই অ্যাপস টি ডাউনলোড করেন। তাহলে আপনি এই অ্যাপস এর রিভিউ দেখলেই বুঝতে পারবেন।

আপনার মত এমন অনেক মানুষ আছেন। যারা নিয়মিত এই অ্যাপসে কাজ করেন। আর তারা এই কাজ করার বিনিময়ে বিশ্বস্ততার সাথে পেমেন্ট নিতে পেরেছে।

আর উক্ত অ্যাপস এর মধ্যে আপনি যে কাজ গুলো দেখতে পারবেন। মূলত সেই কাজ গুলো খুবই সহজ। সেজন্য আপনার যদি ইন্টারনেট সম্পর্কে তেমন কোন ধারণা না থাকে।

তারপরেও আপনি এই অ্যাপস গুলো থেকে টাকা আয় করে উইথড্রো করতে পারবেন। আর সেই কাজ গুলো হলো,

  1. বিজ্ঞাপন দেখে টাকা আয় করতে পারবেন। 
  2. ক্যাপচা পূরণ করে টাকা আয় করতে পারবেন। 
  3. প্রতিদিন লগইন করার বিনিময়ে টাকা আয় করতে পারবেন। 
  4. এ ছাড়াও রেফার করে টাকা আয় করার সুযোগ রয়েছে।

উপরের তালিকা তে আপনি যে সকল কাজ দেখতে পারছেন। সেই কাজ গুলো করার মাধ্যমে আপনি এই অ্যাপ থেকে টাকা আয় করতে পারবেন।

আর আপনি সারাদিনে যে পরিমাণ টাকা আয় করবেন। সেই টাকা গুলো আপনি দৈনিক ভিত্তিতে উইথড্রো করতে পারবেন।

আর আপনি যদি এই বাংলাদেশি অনলাইন ইনকাম অ্যাপস এর মধ্যে কাজ করতে চান। তাহলে এখানে ক্লিক করে উক্ত অ্যাপস টি ডাউনলোড করে নিন। 

Taka Income Pro – টাকা ইনকাম

আজকের আলোচনায় আমি আপনাদের যে সকল বাংলাদেশী অনলাইন ইনকাম এপস নিয়ে বলেছি। সে গুলোর মধ্যে এটি হল সর্বশেষ একটি অ্যাপস।

যার মাধ্যমে আপনি আপনার মোবাইল থেকে অনলাইনে কাজ করতে পারবেন। আর সেই কাজের বিনিময়ে অর্থ উপার্জন করে বিকাশে পেমেন্ট নিতে পারবেন।

অনলাইন ইনকাম নিয়ে আরোও দেখুন…

তো অন্যান্য অ্যাপস গুলোর মত এখানেও অনেক সহজ সহজ কাজ করা হয়। আর সেই সহজ কাজ গুলো হলো. 

  1. কুইজ খেলে টাকা আয় করতে পারবেন। 
  2. বিজ্ঞাপন থেকে টাকা আয় করতে পারবেন। 
  3. স্পিনিং করে টাকা আয় করতে পারবেন।

উপরে উল্লেখিত এই কাজ গুলো করার মাধ্যমে আপনি এই অ্যাপস থেকে টাকা আয় করতে পারবেন। তবে অন্যান্য অ্যাপস এর তুলনায় এই অ্যাপস দিয়ে খুব কম পরিমাণ টাকা আয় করা যায়।

কিন্তু আপনি যদি নির্দিষ্ট সময় পর্যন্ত কাজ করতে পারেন। সে ক্ষেত্রে আপনার প্রতি মাসের মোবাইল খরচের টাকা এই অ্যাপ থেকে ইনকাম করে নিতে পারবেন।

আর আপনি যদি এই অ্যাপস এ কাজ করতে চান। তাহলে এখানে ক্লিক করে গুগল প্লে স্টোর থেকে উক্ত অ্যাপস টি ডাউনলোড করে নিন। তারপর ইন্সটল করে কাজ করা শুরু করে দিন। 

আপনার জন্য আমাদের শেষ কথা 

বাংলাদেশী অ্যাপ থেকে প্রতিদিন ১০০০ টাকা আয় পেমেন্টে বিকাশ নেওয়ার উপায় গুলো সম্পর্কে আজকের বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছে।

যে আলোচনার মধ্যে আমি আপনাদের বেশ কিছু বাংলাদেশি অনলাইন ইনকাম অ্যাপস এর সাথে পরিচয় করিয়ে দিয়েছি। 

এর পাশাপাশি আমি আপনাকে এমন কিছু বাংলাদেশি মাইক্রো জব অ্যাপস এর কথা বলেছি। যে অ্যাপস গুলো তে আপনি অনেক ছোট ছোট কাজের বিনিময়ে টাকা আয় করতে পারবেন।

আর সেই আয় করা অর্থ গুলো বিকাশ অথবা নগদে পেমেন্ট নিতে পারবেন। তো আশা করি, আজকের এই আর্টিকেল টি আপনার অনেক ভালো লেগেছে।

আর আপনি যদি এই ধরনের অনলাইন ইনকাম রিলেটেড আরও অজানা তথ্য জানতে চান। তাহলে নিয়মিত আমাদের ওয়েবসাইটে ভিজিট করবেন।

ধন্যবাদ, এতক্ষণ ধরে আমাদের সাথে থাকার জন্য। ভালো থাকুন, সুস্থ থাকুন।

12 thoughts on “বাংলাদেশী অ্যাপ থেকে প্রতিদিন 1000 টাকা আয় পেমেন্ট বিকাশে”

  1. ভাইয়া ২০২৩ সালে ব্লগিং শুরু করতে চাইছি আমি কি ব্লগিং শুরু করতে পারি ব্লগিং করলে আমি যদি দৈনিক ৬ ঘন্টা সময় দেই তাহলে সফলতা পেতে পারি দয়া করে জানাবেন

    1. সরকারীভাবে বেটিং সাইট চালানো নিষেধ এবং এর জন্য আপনার নামে মামলা হতে পারে।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Scroll to Top
Share via
Copy link