গেস্ট পোস্ট (guest post) কি ? কিভাবে এবং কেন গেস্ট পোস্ট করবেন?

গেস্ট পোস্ট (guest post) কি :  অফ পেজ এসইও করার জন্য গেষ্ট পোষ্ট খুব গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। গেষ্ট পোষ্ট হলো ব্যাকলিংক নেয়ার কিছু হিডেন টেকনিক। যার মাধ্যমে আপনার ওয়েবসাইট এর যে ডোমেইন আছে। সেই ডোমেইনে খুব সহজেই হাই অথোরিটি বিল্ডআপ করতে পারবেন।

গেস্ট পোস্ট কি ? কেন গেস্ট পোস্ট প্রয়োজন
গেস্ট পোস্ট কেন প্রয়োজন

এর পাশাপাশি আপনার টার্গেটেড কিওয়ার্ড গুলোকে সার্চ ইঞ্জিনের টপ পজিশনে নিয়ে আসতে পারবেন। কিন্তুু ব্যাকলিংক নেয়ার অন্যান্য স্ট্রাটেজি গুলো সবাই ফলো করলেও, Guest Post কে তেমন একটা গুরুত্ব দেয়না।

এর প্রধান কারন হলো, গেষ্ট পোষ্ট এর মাধ্যমে যেমন High Quality Backlink পাওয়া যায়। ঠিক তেমনি এই কাজের জন্য আপনাকে প্রচুর সময়, শ্রম আবার মাঝে মাঝে যথেষ্ট পরিমানে অর্থ ব্যয় করতে হবে।

এছাড়াও আপনি চাইলেন আর গেষ্ট পোষ্ট করার সুযোগ পেয়ে গেলেন। বিষয়টা এরকমও নয়। বরং হাই অথোরিটির ওয়েবসাইট থেকে Guest Post এর মাধ্যমে Backlink নিতে হলে আপনাকে অনেক কৌশল সম্পর্কে জানতে হবে।

আপনি আরো পড়ুন…

আজকের আর্টিকেলে আমি গেষ্ট পোষ্ট করার সেই কৌশল গুলোকে স্টেপ বাই স্টেপ আলোচনা করবো। এর পাশাপাশি Guest Post কি এবং কেন আমাদের গেষ্ট পোষ্ট করা উচিত। সে সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করবো।

তাই যদি আপনার একটি ওয়েবসাইট থাকে। এবং সেই ওয়েবসাইট কে গেষ্ট পোষ্টের মাধ্যমে অফ পেজ এসইও করতে চান। তাহলে আজকের আর্টিকেলটির শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত মনোযোগ সহকারে পড়বেন।

তাহলে আপনি অনেক কিছু শিখতে পারবেন। যা আপনার ব্লগিং ক্যারিয়ারকে আরও এক ধাপ এগিয়ে যেতে সাহায্য করবে। 

গেষ্ট পোষ্ট কি? (Guest Post in Bangla)

সাধারন ভাষায় Guest শব্দের অর্থ হলো, অতিথি। তো যখন আপনার লেখা কন্টেন্টকে অন্য কোনো ওয়েবসাইটে গিয়ে অতিথি হিসেবে পাবলিশ করবেন। তখন সেই কন্টেন্টকে বলা হবে, গেষ্ট পোষ্ট।

এই প্রক্রিয়ার মাধ্যমে কিন্তুু দুই পক্ষের ই সমান লাভ হয়। একদিকে আপনি যেমন হাই অথোরিটি ওয়েবসাইট থেকে ব্যাকলিংক নিতে পারলেন। অপরদিকে আপনি যার ওয়েবসাইটে কন্টেন্ট পাবলিশ করলেন। সেও কিন্তুু বিনামূল্য একটি কন্টেন্ট পেয়ে গেলো।

তো যারা মূলত এসইও এক্সপার্ট বা যারা Backlink Service প্রদান করে। তারা অফ পেজ এসইও করার সময় এই গেষ্ট পোষ্টকে সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দেয়। কারন অফ পেজ এসইও এর সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো ব্যাকলিংক।

আর এই ব্যাকলিংক নেয়ার যতোগুলো টেকনিক আছে। তার মধ্যে অন্যতম হলো, Guest Post. তাই আপনি যখন অফ পেজ এসইও করবেন ৷ তখন আপনাকেও এই টেকনিক গুলো করতে হবে। 

কেন গেস্ট পোস্ট করবেন?

আমি শুরুতেই বলেছি যে, Guest Post করার মূল উদ্দেশ্য হলো, আপনার ওয়েবসাইটের অথোরিটি বৃদ্ধি করা। অর্থ্যাৎ যখন আপনি বড় বড় ওয়েবসাইট থেকে আপনার সাইটকে লিংকিং করতে পারবেন। তখন সার্চ ইন্জিন গুলোতে আপনার ওয়েবসাইট এর Ranking ক্রমশ বৃদ্ধি পেতে থাকবে। 

এখন আপনার মনে প্রশ্ন জাগতে পারে যে, ” গেষ্ট পোষ্টের মাধ্যমে বড় ওয়েবসাইট থেকে লিংক নিলে কিভাবে ওয়েবসাইটের Ranking বৃদ্ধি হয়”?

যদি এমন প্রশ্ন আপনার মনেও জেগে থাকে। তাহলে এখন একটু মনোযোগ দিন আর ভাবুন। ধরুন, আপনি একটি মোবাইল কিনতে চাচ্ছেন। এখন আপনি বুঝতে পারছেন না যে, কোন Brand এর মোবাইল কিনবেন।

ঠিক এই সময়ে আপনাকে একজন বন্ধু বললো, Realme Brand এর ফোন নিতে। আবার আপনার বাকি সব বন্ধুরা বললো, Samsung Brand এর ফোন নিতে। এখন আপনি কি করবেন, নিশ্চই বাকি বন্ধুদের কথায় Samsung কে বেশি প্রাধান্য দিবেন, তাইনা? 

কারন আপনার একজন বন্ধু রিয়েলমি এর কথা বললেও বাকি সব বন্ধুরা কিন্তুু স্যামস্যাং এর কথা বলছে। ঠিক একইভাবে এবার গুগল সার্চ ইঞ্জিনের কথা ভাবুন। যখন আপনি নতুন একটি ওয়েবসাইট তৈরি করবেন।

তখন কিন্তুু গুগল আপনার সেই ওয়েবসাইট সম্পর্কে তেমন কিছুই জানবে না। তো এই সময়ে যদি আপনি হাই কোয়ালিটি সম্পন্ন ওয়েবসাইট গুলো থেকে আপনার ওয়েবসাইটে লিংক নেন। তাহলে কিন্তুু গুগলের কাছে এটি এক প্রকার Positive Signal প্রদান করবে।

যখন কোয়ালিটি সম্পন্ন ওয়েবসাইট গুলো আপনার ওয়েবসাইট কে সাপোর্ট করবে। তখন গুগল মনে করবে আপনার ওয়েবসাইটে নিশ্চই ভালো কিছু আছে। যার কারনে অন্যান্য ওয়েবসাইট গুলো আপনাকে সাপোর্ট করছে।

তো এটিই হলো গেষ্ট পোষ্ট করার মূল উদ্দেশ্য। একদিকে যেমন আপনি হাই অথোরিটি গেইন করতে পারছেন। অপরদিকে আপনার কারনে আরও একজন বিনামূল্য একটি কন্টেন্ট পেয়ে যাচ্ছে ।

[💡PRO TIPS: মনে রাখবেন, গেষ্ট পোষ্ট শুধুমাএ লিংক বিল্ডিংয়ের মধ্যে সীমাবদ্ধ নয়। বরং আপনি যদি জনপ্রিয় কোনো ওয়েবসাইট থেকে এই টেকনিক ফলো করে আপনার ওয়েবসাইটকে Linking করতে পারেন। তাহলে আপনি Authority Gain করার পাশাপাশি সেই ওয়েবসাইট থেকে প্রচুর পরিমানে ভিজিটর নিয়ে আসতে পারবেন]

গেস্ট পোস্ট করার আগে কি কি লক্ষ রাখতে হবে?

দেখুন আপনি এতোক্ষন ধরে জানলেন যে, গেষ্ট পোষ্ট করলে অনেকভাবে বেনিফিট পাওয়া সম্ভব। কিন্তুু তাই বলে আবার না জেনে না বুঝেই কাজ শুরু করে দিয়েন না। কারন এর আগে আপনাকে আরও বেশ কিছু বিষয় মাথায় রাখতে হবে। 

[⚠️WORNING: যদি আপনি নিন্মে উল্লেখিত বিষয়গুলো মেনে না চলেন। তাহলে আপনার ওয়েবসাইট Ranking করার পরিবর্তে হিতে বিপরীত হয়ে যাবে। ]

দেখুন আমি উপরে বলেছিলাম, যখন বিভিন্ন ওয়েবসাইট থেকে আপনার ওয়েবসাইট কে লিংকিং করার মাধ্যমে সাপোর্ট করবে। তখন Google এর কাছে এই সাপোর্ট একপ্রকার পজেটিভ সিগন্যাল বহন করবে।

কিন্তুু এখানে আপনাকে একটি বিষয় বুঝতে হবে। সেটি হলো, কোনো লো কোয়ালিটির ওয়েবসাইট কিংবা গুগলের নিয়মবহির্ভূত একটি ওয়েবসাইট থেকে যদি আপনার সাইটে লিংকিং করা হয়।

তাহলে কিন্তুু গুগল আপনার ওয়েবসাইট সম্পর্কে গুগলের কাছে নেগেটিভ সিগনাল বহন করবে। সেজন্য যখন আপনি গেষ্ট পোষ্ট করবেন। তখন যে ওয়েবসাইট থেকে আপনি লিংক নিতে চান।

আপনাকে অবশ্যই সেই ওয়েবসাইট সম্পর্কে বিশেষভাবে বিবেচনা করতে হবে। তো এবার সেই বিষয় গুলো নিয়েই আলোচনা করবো। যে বিষয় গুলো আপনাকে বিশেষভাবে বিবেচনা করতে হবে। 

#01- সিমিলার নিশ ওয়েবসাইট

গেষ্ট পোষ্ট করার আগে আপনাকে Similar Niche Website কে সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দিতে হবে। যার অর্থ হলো, আপনি যে নিশে কাজ করছেন। ঠিক একই নিশে কাজ করছে এমন ওয়েবসাইটে পোষ্ট করা।

অর্থ্যাৎ, আপনি যদি Technology নিশে কাজ করেন। তাহলে আপনাকে সেম নিশের ওয়েবসাইট গিয়ে পোষ্ট করতে হবে। আবার আপনি যদি News নিয়ে কাজ করেন। তাহলে আপনাকে এমন ওয়েবসাইট থেকে লিংক নিতে হবে যারা মূলত নিউজ নিয়ে কাজ করছে।

এখন আপনার মনে প্রশ্ন জাগতে পারে যে, “ভাই আমি যদি আলাদা নিশের ওয়েবসাইট থেকে Guest Post এর মাধ্যমে লিংকিং করি। তাহলে কি কোনো প্রকার বেনিফিট পাবো না “?

এ প্রশ্নের উওরে বলবো, হ্যাঁ! অবশ্যই বেনিফিট পাবেন। কারন ON Page SEO এর উদ্দেশ্যেই হলো ব্যাকলিংকের মাধ্যমে অথোরিটি বৃদ্ধি করা।

আপনি আরো দেখুন…

তবে আপনি যদি সেম নিশের ওয়েবসাইট থেকে লিংকিং করতে পারেন। তাহলে আপনি অন্যদের তুলনায় বেশি লাভবান হবেন। যা ভিন্ন নিশের ওয়েবসাইট থেকে লিংক আদান – প্রদান করে ঠিক ততোটা বেনিফিট পাবেন না।

[💡NOTE: কিভাবে আপনার নিশ রিলেটেড (Similar Niche) ওয়েবসাইট খুজে নিবেন। তা নিচে আলোচনা করা হয়েছে। তাই অবশ্যই সেটি দেখে নিবেন]

#02- অথোরিটি ওয়েবসাইট 

এই বিষয়টি বোঝার আপনাকে DA এবং PA সম্পর্কে জানতে হবে। এর পাশাপাশি আমি শুরু থেকেই “অথোরিটি” শব্দটির ব্যবহার করেছি। এই অথোরিটি শব্দটি কি উদ্দেশ্যে ব্যবহার করা হয়েছে।

সেটি সম্পর্কেও আপনার একটি ক্লিয়ার ধারনা থাকতে হবে। তো DA এর পূর্নরুপ হলো, Domain Authority এবং PA এর পূর্নরুপ হলো, Page Authority. আর এই DA এবং PA সমন্বয়কে বলা হয় ওয়েবসাইট অথোরিটি বিল্ডআপ।

কিন্তুু আপনি যদি ওয়েবসাইট অথোরিটি সম্পর্কে জানতে চান। তাহলে আপনাকে আরও একটি সংঙ্গা দিয়ে বোঝাতে হবে। সংঙ্গাটি হলো,” যখন কোনো ওয়েবসাইট নির্দিষ্ট কোনো নিশে গুগলের নিকট বিশ্বস্ততা অর্জন করবে।

তখন তাকে বলা হয় অথোরিটি ওয়েবসাইট”। যেমন, Facebook একটি সোশ্যাল মিডিয়া ওয়েবসাইট। এখন ফেসবুক কিন্তুু গুগলের কাছে বিশ্বস্ততা অর্জন করতে পেরেছে। যার অর্থ হলো, যদি কেউ জনপ্রিয় সোশ্যাল মিডিয়া সম্পর্কে গুগলের কাছে জানতে চায়।

তাহলে গুগল কিন্তুু অবশ্যই ফেসবুককে রেকমেন্ড করবে। ঠিক একইভাবে যখন আপনি আপনার ওয়েবসাইট এর জন্য গেষ্ট পোষ্ট করবেন। তখন লক্ষ্য রাখবেন, যেন সেটি অথোরিটি যুক্ত ওয়েবসাইট হয়।

#03- যথেষ্ট ভিজিটর থাকা

যখন আপনি কোনো ওয়েবসাইট থেকে Guest Post এর মাধ্যমে লিংক নিবেন। তখন আপনাকে অবশ্যই সেই ওয়েবসাইটের ভিজিটর এর দিকে খেয়াল রাখতে হবে। অর্থ্যাৎ সেই ওয়েবসাইটে যথেষ্ট পরিমানে ভিজিটর থাকতে হবে।

এখন আপনার মনে প্রশ্ন জাগতে পারে যে, “ভাই আমি গেষ্ট পোষ্ট করবো Linking করার জন্য। এখানে ভিজিটর কি ভূমিকা পালন করবে”?

তাহলে শুনুন, ভিজিটর এর দিকে অবশ্যই ফোকাস রাখতে হবে। প্রথমত সেই ওয়েবসাইটে যে ভিজিটর আছে। সেখান থেকে কিছু পরিমান ভিজিটর আপনার ওয়েবসাইটে নিয়ে আসতে পারবেন।

এবং দ্বিতীয়ত, যখন ভিজিটররা আপনার Guest Post এর সেই লিংকে ক্লিক করে আপনার ওয়েবসাইট আসবে। এবং আপনার সাইটে এসে যতো বেশি সময় ব্যয় করবে। আপনার সেই Link টি ততোবেশি প্রধান্য পাবে। যাকে সহজ কথায় বলা হয়, Link Juice (লিংক জুস)।

তো এই কারনে যখন আপনি কোনো ওয়েবসাইট থেকে গেষ্ট পোষ্টের মাধ্যমে লিংক নিবেন। তখন অবশ্যই সেই ওয়েবসাইটের ভিজিটর এর দিকে যথেষ্ট ফোকাস রাখবেন।  

#04- স্প্যামবিহীন ওয়েবসাইট 

একটা কথা মনে রাখুন, যে ওয়েবসাইট গুলো Spamming এর সাথে যুক্ত। তারা কিন্তুু গুগলের চিরকালের শত্রু। আপনি যতোদিন ব্লগিং সেক্টরের সাথে যুক্ত থাকবেন। ততোদিন এই কথাটি মাথায় রেখে কাজ করবেন।

এখন আপনি যদি Spamming করে এমন একটি ওয়েবসাইটে গেষ্ট পোষ্ট করেন। এবং সেই সাইট থেকে আপনার ওয়েবসাইটে লিংক নেন। তাহলে কিন্তুু হিতে বিপরীত হয়ে যাবে।

তাই চেষ্টা করবেন, স্প্যামিং করে এমন ওয়েবসাইট থেকে দুরে থাকার। এসব সাইটে গেষ্ট পোষ্ট তো দুরের কথা, কোনো প্রকার লিংক আদান-প্রদান করবেন না। 

কিভাবে গেস্ট পোস্ট করার ওয়েবসাইট খুজে বের করবেন?

এবার আমরা মূল টপিক নিয়ে আলোচনা করবো। আপনি এতোক্ষনে Guest Post কি এবং কেন আপনার গেষ্ট পোষ্ট করা উচিত সে সম্পর্কে জানলেন। এবার আমরা জানবো যে, গেষ্ট পোষ্ট এপ্রুভ করে এমন ওয়েবসাইট গুলোকে কিভাবে খুজে নিবেন।

আপনি যদি এই কাজটি ম্যানুয়ালি করতে চান। তাহলে কিন্তুু আপনার অনেক সময় ব্যয় করতে হবে। কিন্তুু আপনি যদি কিছু প্যারামিটার’স ব্যবহার করেন। তাহলে কিন্তুু এই কাজটি আপনি খুব কম সময়ের মধ্যে সম্পন্ন করতে পারবেন।

এখন আপনার মনে প্রশ্ন জাগতে পারে যে, “প্যারামিটার আবার কি জিনিস “? তাহলে শুনুন, প্যারামিটার হলো এমন কিছু শর্টকার্ট টেকনিক। যার মাধ্যমে আপনি খুব সহজেই আপনার টার্গেটেড ফলাফলকে খুজে নিতে পারবেন।

উদাহরন হিসেবে, আপনি যদি গেষ্ট পোষ্ট করার জন্য গুগলে গিয়ে একটির পর একটি ওয়েবসাইট চেক করেন। তাহলে কিন্তুু আপনার অনেক সময় ব্যয় হবে। অপরদিকে আপনি যদি ছোট্ট একটা প্যারামিটার এর শর্টকার্ট টেকনিক ব্যবহার করেন।

তাহলে কিন্তুু সহজেই এই কাজটি করতে পারবেন। যেমন, Your Keyword “guest post”.

আপনার জন্য আরো লেখা…

তো ধরে নিলাম যে আপনার টার্গেটেড কিওয়ার্ড হলো, ” Make Money Online”. এখন যদি আপনি এই কিওয়ার্ডে গেষ্ট পোষ্ট করার জন্য ওয়েবসাইট খুজতে চান। তাহলে আপনাকে নিচের প্যারামিটার টি ব্যবহার করতে হবে। যেমন, 

make money online “guest post”.

আপনাদের সুবিধার কথা চিন্তা করে আমি এমন আরও কিছু শর্টকার্ট প্যারামিটারস সংগ্রহ করেছি। যার মাধ্যমে আপনি আপনার কাঙ্ক্ষিত ফলাফল খুব সহজেই পেয়ে যাবেন। যেমন, 

  • Your Keyword “guest post”
  • Your Keyword “write for us”
  • Your Keyword “guest article”
  • Your Keyword “guest post opportunities”
  • Your Keyword “this is a guest post by”
  • Your Keyword “contributing writer”
  • Your Keyword “want to write for”
  • Your Keyword “submit blog post”
  • Your Keyword “contribute to our site”
  • Your Keyword “guest column”
  • Your Keyword “submit content”
  • Your Keyword “submit your content”
  • Your Keyword “submit post”
  • Your Keyword “This post was written by”
  • Your Keyword “guest post courtesy of ”
  • Your Keyword “guest posting guidelines”
  • Your Keyword “suggest a post”
  • Your Keyword “submit an article”
  • Your Keyword “contributor guidelines”
  • Your Keyword “contributing writer”
  • Your Keyword “submit news”
  • Your Keyword “become a guest blogger
  • “Your Keyword “guest blogger”
  • Your Keyword “guest posts wanted”
  • Your Keyword “looking for guest posts”
  • Your Keyword “guest posts wanted”
  • Your Keyword “guest poster wanted”
  • Your Keyword “accepting guest posts”
  • Your Keyword “writers wanted”
  • Your Keyword “articles wanted”
  • Your Keyword “become an author”
  • Your Keyword “become guest writer”
  • Your Keyword “become a contributor”
  • Your Keyword “submit guest post”
  • Your Keyword “submit an article”
  • Your Keyword “submit article”
  • Your Keyword “guest author”
  • Your Keyword “send a tip”
  • Your Keyword inurl: “guest blogger”
  • Your Keyword inurl: “guest post”
  • allintitle: Your Keyword + guest post

[💡NOTE: উপরোক্ত প্যারামিটার গুলো শামীম স্যারের ব্লগ থেকে কালেক্ট করা হয়েছে। তিনি বাংলাদেশের মধ্যে অন্যতম এসইও এক্সপার্টদের মধ্যে একজন]

কিভাবে গেস্ট পোস্ট করার জন্য যোগাযোগ করবেন?

এটি হলো সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয়। আপনি তো প্যারামিটার’স ব্যবহার করে গেষ্ট পোষ্ট এপ্রুভ করে এমন ওয়েবসাইট গুলোকে খুজে নিতে পারবেন। কিন্তুু তারমানে এই নয় যে আপনি সবগুলো ওয়েবসাইটে গেষ্ট পোষ্ট করতে পারবেন।

এখানে কিন্তুু আপনাকে কিছু এডভান্স টেকনিক অবলম্বন করতে হবে। কেননা, আপনাকে সেই Website Owner কে এমন কিছু বলতে হবে। যেন সেই Owner আপনার গেষ্ট পোষ্ট এপ্রুভ করতে সম্মতি প্রদান করে।

উদাহরন হিসেবে যদি বলি, আপনি প্যারামিটার ব্যবহার করার পর কাঙ্ক্ষিত ওয়েবসাইট গুলোকে খুজে পেলেন। এবার আপনি সেই ওয়েবসাইট এর মালিকের সাথে মেইলের মাধ্যমে যোগাযোগ করলেন। এবং আপনার Mail টি ছিলো এরকম,

Hi [Name]

I am (ABCD). I am a good content writer. I want to write a guest post in your popular website. If you agreed, so please knock me as soon as possible. Thank You

[Your Name]

মনে রাখবেন, যখন আপনি কোনো Website Owner কে এই ধরনের মেইল করবেন। তখন কিন্তুু আপনার মেইলের রিপ্লে পাওয়ার সম্ভাবনা অনেকটাই কমে যাবে। কারন যাকে আপনি এই ধরনের মেইল করবেন, সে মনে করবে আপনি একজন আনপ্রফেশনাল।

আর এই ধরনের মেইলগুলোকে তারা ঠিক ততোটা গুরুত্ব দেয় না। যতোটা একটি Professional Mail এর ক্ষেএে হয়ে থাকে।

তাই আপনার মেইলটিতে যেন একটা প্রফেশনালি ভাব থাকে সেই দিকে যথেষ্ট খেয়াল রাখবেন। আপনার সুবিধার জন্য আমি কিছু Mail এর Template দিলাম। আপনি প্রয়োজনমত সেই টেমপ্লেট গুলোকে ব্যবহার করতে পারবেন। 

Guest Post Template #01

Hi [Name],

This is [Your name] from [Company name], and I’m dropping you a line to see if you’re accepting new guest bloggers. I write about [topics] and thought an article about [relevant topic] would be a good fit for your blog.

Here are some examples of my latest guest posts:

[YOUR SIGNATURE]

Guest Post Template #02

Hey [Name],

I’ve got a great idea for a post that I believe would do well on [Blog name]. Are you looking for more contributors to write for your blog right now? If so, I’d love to send some original content your way. 

I’m already writing regularly for [Blog name 1], [Blog name 2], and [Blog name 3]. Here are a few of my latest posts:

[Blog post link 1]

[Blog post link 2]

[Blog post link 3]

Let me know if you are interested – and I’ll send you some topic ideas.

Thanks,

[YOUR SIGNATURE]

Guest Post Template #03

Hello [Name],

My name is [Your name]. I know you probably receive tons of emails every day, so  I’ll keep it short.

I see that you publish some really great content about the topics like [topic 1] and [topic 2]. I am writing a well-researched, data-driven, and in-depth blog post on [topic] which might be a great addition to your blog.

Here are a few samples of my recently contributed guest posts to other blogs:

[Blog post link 1]

[Blog post link 2]

[Blog post link 3]

Do you mind if I send you the draft so you can see if it’s a good fit for [Blog name]?

Looking forward to hearing from you.

Thanks,

[YOUR SIGNATURE]

💡PRO TIPS: যখন আপনি গেষ্ট পোষ্ট করার জন্য কাউকে ইমেল করবেন। তখন আপনাকে বেশ কিছু বিষয়ের দিকে নজর রাখতে হবে। যেমন,

  • ইমেইলের শুরুটা আর্কষনীয় করার চেস্টা করবেন। যেমন, “আমি আপনার নিয়মিত পাঠক” কিংবা “নির্দিষ্ট কোনো আর্টকেল বা কমেন্টের উল্লেখ করবেন”।
  • আপনার লেখা Mail টিকে বেশি দীর্ঘায়িত করবেন না। প্রয়োজন হলে ১৫০ শব্দের মধ্যে মেইল লেখার চেস্টা করবেন। 
  • আপনি যাকে মেইল করবেন সে যেন কোনোভাবেই বুঝতে না পারে যে, তার সাইটে গেষ্ট পোষ্ট করলে আপনি লাভবান হবেন। 
  • আপনার পূর্বের অভিজ্ঞতা ও পাবলিশ করা কন্টেন্ট এর কথা অবশ্যই উল্লেখ করবেন। 

আমাদের শেষকথা

যদি আপনি উপরোক্ত আলোচনা গুলো ভালোভাবে পড়েন। তাহলে আশা করা যায় আপনি গেষ্ট পোষ্ট সম্পর্কিত যাবতীয় বিষয়গুলো সম্পর্কে একটা পরিস্কার ধারনা পেয়ে গেছেন। এরপরও যদি আপনার কোনো সমস্যা থাকে, তাহলে অবশ্যই কমেন্ট করে জানাবেন। 

আপনি অবশ্যয় পড়বেন… 

এছাড়াও Guest Post রিলেটেড আরও তথ্য জানতে চাইলে নিচের সোর্সগুলোতে ক্লিক করুন। 

বাংলা আইটি ব্লগের সাথে থাকুন। ধন্যবাদ 

আমি নিলয় হাসান-এই ব্লগের প্রতিষ্ঠাতা পাশাপাশি লেখালেখির কাজটাও করি। অনলাইনে প্রযুক্তির বিষয় নিয়ে যা জানি তা মানুষের মাঝে শেয়ার করার ইচ্ছায় এ ব্লগ টি তৈরি করা।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: কপি করা যাবে না !!
Scroll to Top
Share via
Copy link
Powered by Social Snap