সারফেস ওয়েব কি | Surface web এর কাজ কি | What is surface web in bengali

সারফেস ওয়েব কি : প্রিয় পাঠক, ইন্টারনেট সম্পর্কে আমাদের জানার কোন শেষ নেই। বরং সময়ের সাথে সাথে এই ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর ক্রমাগত ভাবে বেড়ে উঠছে।

সারফেস ওয়েব কি | Surface web এর কাজ কি | What is surface web in bengali
সারফেস ওয়েব কি

আর সেই তুলনায় বর্তমান সময়ে এই ইন্টারনেট জগৎ সম্পর্কে অনেকের অনেক রকম প্রশ্ন এর জন্ম নিচ্ছে।

কেননা আমরা বর্তমান সময়ে যেটাকে শুধুমাত্র ইন্টারনেট বলে চিনি। সেটি এখন আরও বেশ কয়েকটি ভাগে ভাগ হয়েছে।

যেমন, আপনি এখন ইন্টারনেট এর প্রকারভেদ হিসেবে প্রধানত তিন ধরনের ইন্টারনেট জগত দেখতে পারবেন। যেমন, প্রথমত রয়েছে ডার্ক ওয়েব, তারপরে রয়েছে ডিপ ওয়েব।

এবং সর্বশেষে রয়েছে সারফেস ওয়েব। তবে ডার্ক ওয়েব কাকে বলে এবং ডিপ ওয়েব কাকে বলে, সে সম্পর্কে আমি আমার পরবর্তী আর্টিকেল বিস্তারিত আলোচনা করবো।

কিন্তু আজকের এই আর্টিকেল থেকে আপনি জানতে পারবেন যে সারফেস ওয়েব কি (Surface web কি), সারফেস ওয়েব কাকে বলে (What is surface web).

দেখুন ইন্টারনেট জগতে এমন অনেক কিছু রয়েছে যেগুলো সব ধরনের মানুষ এক্সেস করতে পারে না। বরং ইন্টারনেট জগতের স্বল্প কিছু অংশ সাধারণ মানুষ অ্যাক্সেস করতে পারে।

এবং ইন্টারনেট এর যে অংশ গুলো সর্ব সাধারণের জন্য উন্মুক্ত। মূলত সেই অংশটুকু কে বলা হয়ে থাকে সারফেস ওয়েব। আমরা যেমন ফেসবুক ব্যবহার করি, ইউটিউব ব্যবহার করি।

তো এই সবকিছু হলো সারফেস ওয়েব এর অন্তর্ভুক্ত। যেগুলো আমরা আমাদের পছন্দ অনুযায়ী ব্যবহার করতে পারি। এবং সেই অংশ গুলো তে অ্যাক্সেস করতে পারি।

অপরদিকে আপনি যদি ডার্ক ওয়েব কিংবা ডিপ ওয়েব এর কথা চিন্তা করেন। তাহলে কিন্তু এই ইন্টারনেট এর অংশ গুলো সর্বসাধারণের জন্য উন্মুক্ত থাকে না।

এখন হয়তোবা আপনার মাথায় একটি প্রশ্ন ঘুরপাক খেতে পারে। আর সেটি হলো যে, আমরা তো আমাদের মোবাইল কিংবা কম্পিউটার এর ব্রাউজার থেকে যে কোন ওয়েবসাইটে প্রবেশ করতে পারি।

তাহলে এখানে অ্যাক্সেস করার প্রশ্ন আসছে কেন? যদি আপনার মনে এই ধরনের প্রশ্ন থেকে থাকে। তাহলে আমি আপনাকে স্বল্প আকারে বিষয়টিকে বুঝিয়ে দিচ্ছি।

আপনি এই লেখা গুলা পড়তে পারেন…

যাতে করে এই বিষয় টি বুঝতে আপনার কোন প্রকার সমস্যা না হয়। দেখুন বর্তমান সময়ে এই ওয়েব কে প্রধানত তিনটি ভাগে ভাগ করা হয়ে থাকে। যেমন,

  1. সারফেস ওয়েব
  2. ডার্ক ওয়েব এবং
  3. ডিপ ওয়েব

তবে ওয়েব জগতে এই তিন ধরনের প্রকারভেদ থাকার পরেও। আমরা সাধারন মানুষ শুধুমাত্র সারফেস ওয়েব কে উন্মুক্ত ভাবে ব্যবহার করতে পারি।

কারণ আমরা আমাদের কম্পিউটার অথবা মোবাইল ডিভাইস গুলোতে যেসব ডাটা শেয়ারিং করার জন্য ব্রাউজার ব্যাবহার করি। সে গুলোর সাথে এই ওয়েব জগতে একটি বিশেষ কানেকশন রয়েছে।

এবং সেই কানেকশন কে বলা হয়ে থাকে, Http Protocol. করুন অর্থাৎ Hypertext Transfer Protocol.

এই হাইপার টেক্সট প্রটোকল এর মাধ্যমে আমরা খুব সহজেই আমাদের ব্যবহার করার ডিভাইস গুলো কে ইন্টারনেট জগতের সাথে সংযুক্ত করতে পারি।

ইন্টারনেট কাকে বলে ?

সারফেস ওয়েব কি – সে সম্পর্কে আমরা অবশ্যই বিস্তারিত আলোচনা করবো। তবে সবার আগে আপনাকে জেনে নিতে হবে যে,ইন্টারনেট কাকে বলে

কারণ যখন আপনি জানতে পারবেন যে, ইন্টারনেট কি। তখন আপনার পরবর্তী আলোচনা গুলো বুঝতে সুবিধা হবে।

তাই চলুন সবার আগে জেনে নেওয়া যাক, ইন্টারনেট কাকে বলে এবং কিভাবে এই ইন্টারনেট কাজ করে।

সহজ কথায় বলতে গেলে ইন্টারনেট হল আধুনিক টেলি যোগাযোগ করার জন্য বিশেষ একটি মাধ্যম।

এটি মূলত স্যাটেলাইট, তার কিংবা টেলিফোন লাইনের মাধ্যমে একটি কম্পিউটার ডিভাইসকে অন্য আরেকটি কম্পিউটারের সাথে সংযুক্ত করা হয়ে থাকে।

আর এই সংযোগ এর পেছনে অন্যতম ভূমিকা রাখে (www) world wide web.

এই www হাইপারটেক্সট লিংক এর মাধ্যমে ইন্টারনেট ব্যবহারকারীরা তাদের প্রয়োজন অনুযায়ী বিভিন্ন ধরনের তথ্য এবং ডকুমেন্টস ইন্টারনেটের মাধ্যমে সংগ্রহ করতে পারে।

সারফেস ওয়েব কি? (What is surface web in Bangla)

উপরের আলোচনা থেকে আপনি জানতে পারলেন যে ইন্টারনেট হলো স্যাটেলাইট, তার, কিংবা টেলিফোন লাইনের মাধ্যমে একটি কম্পিউটার থেকে আরেকটি কম্পিউটার কে সংযোগ করার অন্যতম একটি মাধ্যম।

যেখানে www মূলত হাইপারটেক্সট লিংক (Http) এর মাধ্যমে একজন ব্যবহারকারী খুব সহজেই ইন্টারনেট জগৎ এর সাথে সংযুক্ত হতে পারে।

এবং সেই ব্যবহারকারী তার প্রয়োজনীয় ফাইল গুলোকে খুজে পায়। আর চাহিদা অনুসারে সেই ফাইল গুলো কে তার কম্পিউটারের মধ্যে জমা করে রাখতে পারে।

তবে প্রশ্ন এখানে থেকেই যাচ্ছে যে, সারফেস ওয়েব কাকে বলে। চলুন এবার সে সম্পর্কে জেনে নেওয়া যাক।

সহজ কথায় বলতে গেলে ইন্টারনেট এর যে অংশ গুলো দৃশ্যমান এবং সর্ব সাধারণের জন্য উন্মুক্ত। মূলত সেই অংশ গুলো কে বলা হয়ে থাকে সারফেস ওয়েব।

আপনার জন্য আরোও লেখা…

মূলত এই অংশ গুলো তে একজন ব্যক্তি তার নিজের ইচ্ছামত এক্সেস করতে পারবে। এবং এই ইন্টারনেটের অংশ গুলো থেকে তার প্রয়োজন অনুসারে যে কোনো ধরনের তথ্য আদান প্রদান করে নিতে পারবে।

মূলত ইন্টারনেট এর এই অংশ গুলোতে থাকা বিভিন্ন ধরনের তথ্য গুলো সার্চ ইঞ্জিনে মাধ্যমে খুঁজে পাওয়া যায়।

যেমন, আপনি যদি গুগল সার্চ ইঞ্জিনে কোন কিছু লিখে সার্চ করেন। তাহলে কিন্তু আপনি খুব সহজেই সেই বিষয়ে রিলেটেড সকল ধরনের তথ্য পেয়ে যাবেন।

ঠিক একই ভাবে আমরা আমাদের মোবাইল অথবা কম্পিউটার ডিভাইস গুলো থেকে প্রতিনিয়ত ফেসবুক ব্যবহার করি, ইউটিউব ব্যবহার করি।

এর পাশাপাশি আরও বিভিন্ন ওয়েবসাইটে ভিজিট করি। আর আমাদের ব্যবহার করা এই ওয়েবসাইট গুলো মূলত সারফেস ওয়েব এর সাথে অন্তর্ভুক্ত।

যেখানে আমরা আমাদের ইচ্ছা মতো যেকোনো তথ্য কে খুজে নিতে পারি। এবং আমরা আমাদের প্রয়োজন মত যে কোন অংশে এক্সেস হতে পারি।

তো ইন্টারনেট জগতের যেসব অংশ গুলো তে সব ধরনের মানুষ এক্সেস করতে পারে। মূলত সেই অংশ গুলো কে বলা হয়ে থাকে সারফেস ওয়েব।

সারফেস ওয়েব কিভাবে কাজ করে?

বর্তমান সময়ে আপনি google- এ কোন বিষয়ে সার্চ করার পর আপনি আপনার প্রয়োজনীয় তথ্য গুলো কে খুঁজে পাবেন।

এবং এই সার্চ ইঞ্জিন গুলো থেকে আপনি যা কিছু সার্চ করার পর সঠিক তথ্য খুজে পাবেন। সেই সব গুলো তথ্য কিন্তু সারফেস ওয়েব এর মধ্যে অন্তর্ভুক্ত থাকে।

যেমন বর্তমান সময়ে আপনি আমার এই আর্টিকেল টি একটি ব্লগ সাইটের মাধ্যমে দেখতে পাচ্ছেন। মূলত আমার এই ব্লগ সাইট টি হলো সারফেস ওয়েব এর মধ্যে অন্তর্ভুক্ত।

যে কারণে আপনি উন্মুক্ত ভাবে আমার এই ওয়েবসাইটে প্রবেশ করতে পেরেছেন। এবং এই আর্টিকেল টি পড়তে পারছেন।

তবে এখন হয়তবা আপনার মনে একটি প্রশ্ন জেগে থাকতে পারে। যে আমাদের সর্ব সাধারণের জন্য উন্মুক্ত থাকা এই সারফেস ওয়েব আসলে কিভাবে কাজ করে।

তো চলুন এবার সেই বিষয় টি সম্পর্কে স্বল্প আকারে আলোচনা করা যাক।

দেখুন, এই সারফেস ওয়েব মূলত আমাদের ব্যবহার করা কম্পিউটার অথবা মোবাইল এর মধ্যে থাকা ব্রাউজারের সাথে www এর মাধ্যমে https এর সাথে সংযুক্ত করে থাকে।

যার ফলে আমরা খুব সহজেই আমাদের ডিভাইসে ব্যবহার করা ব্রাউজার গুলোর মাধ্যমে বিভিন্ন ধরনের ওয়েবসাইট ভিজিট করতে পারি।

এবং সেইসব ওয়েবসাইট থেকে আমাদের প্রয়োজনীয় তথ্য গুলো কে আদান প্রদান করতে পারি। তবে যখন আপনি এই সারফেস ওয়েব এর সাথে অন্তর্ভুক্ত থাকার কোন একটি ওয়েবসাইটে প্রবেশ করতে যাবেন।

তখন অবশ্যই আপনাকে সেই ওয়েবসাইট এর ডোমেইন নেম (Domain Name) এর মাধ্যমে প্রবেশ করতে হবে।

যেমন ধরুন আপনি যদি ফেসবুকে প্রবেশ করতে চান। তাহলে আপনাকে facebook.com এবং আপনি যদি ইউটিউবে প্রবেশ করতে চান।

তাহলে আপনাকে youtube.com নামক ডোমেইন এর মাধ্যমে উক্ত ওয়েবসাইট এ প্রবেশ করতে হবে।

তো এই পদ্ধতিতে মূলত সারফেস ওয়েব কাজ করতে পারে। এবং এর কারনে আমরা আমাদের পাশে থাকার ডিভাইস গুলোর মাধ্যমে ইন্টারনেট এর এই উন্মুক্ত অংশ কে ব্যবহার করতে পারি।

Surface web নিয়ে আমাদের শেষ কথা

ইন্টারনেট নিয়ে আমাদের মনে প্রশ্নের শেষ নেই। কেননা এই ইন্টারনেট এর মাধ্যমে বর্তমান সময়ে আমরা আমাদের অনেক প্রয়োজনীয় কাজ গুলো সম্পন্ন করতে পারি।

আর সে কারনেই আমাদের মনে এই ইন্টারনেট সম্পর্কিত বিভিন্ন ধরনের প্রশ্ন জেগে থাকে। তবে এই প্রশ্ন গুলো মধ্যে সবচেয়ে অন্যতম হলো, সারফেস ওয়েব কাকে বলে

আর আজকের আর্টিকেলে আমি এই সারফেস ওয়েব কাকে বলে, সেই বিষয়টি কে সুন্দর ভাবে ফুটিয়ে তোলার চেষ্টা করেছি।

আশা করি এই আর্টিকেল থেকে আপনি সারফেস ওয়েব সম্পর্কিত সমস্ত বিষয়ে ধারণা নিতে পারবেন।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

HandsUp! কপি করা যাবে না বস!

Scroll to Top
Share via
Copy link
Powered by Social Snap