রোবট কি | রোবট এর কাজ কি (What is Robot in Bengali)

রোবট কি –  What is Robot in bengali ? – রোবট হল বর্তমান বিজ্ঞান এর সবচেয়ে উন্নত একটি প্রযুক্তি।

এটি স্বয়ংক্রিয় ভাবে চালিত এক ধরনের মানব মেশিনের সাথে তুলনা করা হয়ে থাকে।

রোবট কি | রোবট এর কাজ কি (What is Robot in Bengali)
রোবট কি | রোবট এর কাজ কি

মানব মেশিন গুলো দেখতে এবং কাজকর্মে মানুষের মতো হলেও আমাদের মানুষের মধ্যে যে মানবিক গুণ করা হয়েছে।

সেগুলো কিন্তু এ ধরনের মেশিন গুলো তে পাওয়া সম্ভব নয়।

তবে আমাদের মানব জীবনের যে সব কাজকর্ম রয়েছে সেই কাজকর্ম গুলোকে খুব দ্রুতগতিতে করার জন্য এই ধরনের রোবটিক গুলো বেশ উপকারী ভূমিকা পালন করে থাকে।

আর সেই কারণে অনেকেই বলে থাকে যে রোবট হলো এক ধরনের উন্নত মেশিন। যা একই সাথে অনেকগুলো কাজ খুব দ্রুততার সাথে সম্পাদন করতে পারে।

এর পাশাপাশি কোন কাজের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা থেকে শুরু করে উক্ত কাজটি সম্পাদন করা পর্যন্ত রোবটের ভূমিকা অপরিসীম।

সে কারণেই মূলত বর্তমান বিশ্বের উন্নত দেশগুলোতে রোবট এর ব্যাপক ব্যবহার বৃদ্ধি পাচ্ছে।

সেই প্রভাব থেকে বাদ পড়েনি আমাদের বাংলাদেশ। বর্তমান সময়ে আমাদের দেশেও এই ধরনের রোবট মেশিন গুলোর ব্যবহার হচ্ছে।

তো আজকের আর্টিকেলটি মূলত এই রোবট কি নিয়ে আলোচনা করা হবে।

আপনি আরোও দেখতে পারেন…

যদি আপনি জানতে চান যে রোবট কি (what is robot in bangla ) এবং রোবটের কাজ কি আর বর্তমান সময়ে কত ধরনের রোবট আছে, তাহলে আজকের এই আর্টিকেলটি আপনার জন্য অনেক বেশি হেল্পফুল হবে।

তো চলুন এবার তাহলে রোবট এর আদ্যোপান্ত সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য জেনে নেওয়া যাক। যেন আজকের পর থেকে আপনার মনে রোবট সম্পর্কে কোন কিছু অজানা না থাকে।

রোবট কি | What is robot in bangla?

আজকের আর্টিকেলে আমরা আর রোবট সম্পর্কে অবশ্যই বিস্তারিত আলোচনা করব। তবে সবার আগে আপনাকে জেনে নিতে হবে যে, Robot কি

যদিও বা রোবট নিয়ে এক একজন এক এক রকম সংজ্ঞা দিয়েছেন।

কিন্তু আজকের আর্টিকেলে আমি তাদের সংজ্ঞাগুলো থেকে একটু ভিন্নভাবে আপনাদের ধারণা দেওয়ার চেষ্টা করব, যাতে করে আপনার বুঝতে সুবিধা হয়।

চলুন এবার তাহলে জেনে নেওয়া যাক রোবট কি।

রোবট হলো, মানুষের মতো দেখতে একটি কৃত্রিম মানব যার চেহারা থেকে শুরু করে আচরণ পর্যন্ত মানুষের সাথে সাদৃশ্য রয়েছে।

একজন মানুষ যেভাবে তার শারীরিক শক্তি দিয়ে বিভিন্ন কাজ কর্ম করতে পারে, ঠিক তেমনি ভাবে এই রোবটিক মেশিন গুলো মানুষের মত শক্তি প্রয়োগের মাধ্যমে যেকোনো কাজ করতে সক্ষম।

কোন একটি কাজ করার জন্য যেসব উপযোগী চিন্তাভাবনা, সিদ্ধান্ত নেওয়ার প্রয়োজন হয়। এই সিদ্ধান্ত এবং চিন্তাভাবনা নেওয়ার ক্ষমতা ও কিন্তু এই ধরনের রোবট গুলোর মধ্যে বিদ্যমান রয়েছে।

আবার রোবটকে অন্যভাবেও সংজ্ঞায়িত করা যায়, সেটি হলো যে রোবট এক ধরনের কম্পিউটার নিয়ন্ত্রিত উন্নত প্রযুক্তি সম্পন্ন যন্ত্র, যা মানুষের মতই অনেক দুঃসাধ্য কাজ করতে পারে।

এই রোবট গুলোর সাথে মানুষের বেশ খানিকটা সম্পর্কযুক্ত রয়েছে। কখনো বা আচরণগত দিক থেকে আবার কখনো বা কাজের দিক থেকে।

আর সে কারণেই এই ধরনের রোবটিক যন্ত্র গুলো কে মানুষের নকল বলা হয়ে থাকে।

তবে একজন মানুষ তার শারীরিক শক্তি দিয়ে যে পরিমান কাজ করতে পারবে ,তার থেকে অধিক কাজ একই সময়ে এই ধরনের রোবট গুলোর পক্ষে করা সম্ভব।

রোবট এর ইতিহাস | History of Robot

উপরের আলোচনা থেকে আপনি কি রোবট কি সে সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে পেরেছেন। আশা করি সেই আলোচনাটি পড়ার পর আপনার মনে রোবট কি সে সম্পর্কে আর কোন বিষয় জানা নেই ।

তবে এবার আপনাকে নতুন একটি বিষয় জেনে নিতে হবে সেটি হল যে ,রোবট এর ইতিহাস বা রোবট কে আবিষ্কার করেন সে সম্পর্কে।

কারণ রোবট সৃষ্টির পিছনে বিরাট একটা ইতিহাস আছে, যেটি আপনার অবশ্যই অবশ্যই জেনে রাখা উচিত ।

চলুন এবার তাহলে রোবট এর ইতিহাস সম্পর্কে একটু আলোকপাত করা যাক । যাতে করে আপনার কোন বিষয় জানা না থাকে।

অনেক প্রাচীনকালের পৌরাণিক কাহিনী গুলো থেকে জানা যায় যে পৃথিবীর সৃষ্টির পর থেকেই এই মানুষ, মানুষের মতোই এক ধরনের মেশিন আবিষ্কারের চেষ্টা চালিয়ে গেছেন।

আপনি যদি প্রাচীন চীন, প্রাচীন গ্রীস কিংবা টলেমির মিশরের প্রকৌশলীদের কথা জানার চেষ্টা করেন।

তাহলে আপনি জানতে পারবেন যে, সেই সময় পর্যন্ত কিন্তু আমাদের মানুষ এমন এক ধরনের মেশিন তৈরি করার চেষ্টা করেছিল যা দেখতে হুবহু মানুষের মতোই হবে এবং মানুষের মতোই কাজ করবে।

আবার এমন অনেক প্রকৌশলীর কথা জানতে পারবেন যারা মূলত মানুষের মতো দেখতে এরকম মেশিন তৈরি করার পাশাপাশি বিভিন্ন প্রাণীর মতো দেখতে হবে এ ধরনের মেশিন বানানোর চেষ্টা করেছিলেন।

আর অনেক আগে থেকেই পৌরাণিক প্রকৌশলীরা এমন ধরনের কৃত্রিম মানুষ তৈরি করার চেষ্টা অব্যাহত রেখেছিলেন।

অবশেষে প্রাচীন গ্রিসের একজন প্রকৌশলী 270 খ্রীষ্টপূর্বাব্দে নিউ ম্যাট্রিক্স এবং হাইড্রোলিক প্রযুক্তির সাহায্য এক ধরনের বিশেষ অঙ্গ এবং জলঘড়ি তৈরি করতে সক্ষম হয়েছিলেন।

যা সেই সময় পুরো বিশ্বের মানুষকে তাক লাগিয়ে দিয়েছিল। এর পাশাপাশি চতুর্থ খ্রিস্টাব্দে একজন গণিতবিদ বিশেষ এক ধরনের যান্ত্রিক বাষ্প চালিত পাখি তৈরি করেছিলেন।

মূলত এই ধরনের যন্ত্র তৈরি করেছিলেন বায়ুর চাপ, বাষ্প এবং জল দ্বারা চালিত করার জন্য।

তো এর পরবর্তীতে বিভিন্ন প্রকৌশলীরা বিভিন্ন রকমের যান্ত্রিক রোবট তৈরি করতে সক্ষম হয়েছিলেন । যেমন 1738 সালে ফ্রান্সের একজন বিখ্যাত বৈজ্ঞানিক বেশকিছু অটমেশন যন্ত্র আবিষ্কার করতে সক্ষম হয়েছিলেন।

তিনি একটি হাঁস আবিষ্কার করেছিলেন যে হাঁস টি ছিল সম্পূর্ণ যান্ত্রিক। এবং এই হাঁস টি তার ডানা ঝাপটাতে পারতো, দৌড়াতে পারতো ইত্যাদি।

এবং ধীরে ধীরে বিজ্ঞানের অনেকটাই অগ্রসর হয়েছে, আর আমরা দেখতে পেয়েছি বিভিন্ন ধরনের যান্ত্রিক রোবট কে।

যা কালক্রমে আমরা বর্তমান সময়ে বিভিন্ন কর্ম ক্ষেত্রে সেই যান্ত্রিক রোবটগুলোকে আমাদের কাজের সুবিধার জন্য ব্যবহার করে আসছি।

রোবট এর কাজ কি ?

বর্তমান সময়ে আমাদের বিশ্বে বিভিন্ন ধরনের যান্ত্রিক রোবট গুলোকে দেখতে পাওয়া যায়। আমাদের বাসায় টিভি কিংবা ফ্যান থেকে শুরু করে আরো বিভিন্ন কাজে কিন্তু আমরা যান্ত্রিক রোবট কে ব্যবহার করে থাকি।

তো এই ধরণের ইলেকট্রিক যন্ত্র গুলো কিন্তু স্বয়ংক্রিয় ভাবে কাজ করতে পারে। যেগুলো কে আপনি একবার চালু করে দিবেন এবং সেগুলো তার সাধ্যমত অটোমেটিক ভাবে কাজ করে যাবে।

ঠিক একইভাবে কিন্তু এই ধরনের রোবটিক যন্ত্র গুলো কে বিভিন্ন কাজে ব্যবহার করা হয়ে থাকে ।

চলুন এবার তাহলে সেই রোবট এর কাজ কি সে সম্পর্কে একটু ধারনা নেওয়া যাক।

তো রোবট এর কাজ কি সে সম্পর্কে বিস্তারিত জানান আগে আপনাকে রোবট এর অর্থ কি সে সম্পর্কে জানতে হবে।

এই রোবট শব্দটির অর্থ হলো, জোর পূর্বক শ্রম অর্থাৎ আপনি এই ধরনের যান্ত্রিক মেশিন গুলো কে জোর করে কোন কাজ করাতে পারবেন।

এবং এই ধরনের যান্ত্রিক মেশিন গুলো ততক্ষণ অব্দি কাজ করতে পারবে যতক্ষণ পর্যন্ত আপনি তাদেরকে নির্দেশনা দিবেন।

যেমন ধরুন আপনার একটি গাড়ি আছে এবং আপনি চাচ্ছেন সেই গাড়িতে কোন মানুষ ড্রাইভার না রেখে একজন রোবটিক ড্রাইভারকে রাখতে।

সে ক্ষেত্রে কিন্তু আপনি একটি রোবট কে রাখতে পারেন, যে কিনা আপনার ড্রাইভার এর অভাব পূরণ করে দিতে পারবে।

বর্তমান বিশ্বে আমাদের সবার কাছে রোবট শব্দটি বেশ পরিচিত কারণ সময় অতিবাহিত হওয়ার সাথে সাথেই এই ধরনের মেশিন রোবটিক যন্ত্র গুলোর ব্যবহার ব্যাপক হারে বৃদ্ধি পাচ্ছে।

এই রোবটিক যন্ত্রগুলোর কারণে কিন্তু আমরা আকাশে উড়তে পারি এবং বর্তমান সময়ে উন্নত দেশ গুলোতে এমন অনেক ধরনের রেস্টুরেন্ট আছে, যেখানে মানুষের পরিবর্তে রোবট এর মাধ্যমে খাদ্য পরিবেশন করা হয়ে থাকে ।

এর পাশাপাশি বর্তমান সময়ে অনেক ঝুঁকিপূর্ণ কাজগুলো কিন্তু এই ধরনের রোবটিক যন্ত্রগুলোর মাধ্যমে সম্পন্ন করা হচ্ছে।

যেমন ধরুন আপনার একটি বহুতল ভবন তৈরি করার প্রয়োজন হবে। সেক্ষেত্রে একটি ভবন তৈরি করার আগে উক্ত ভবনটির ডিজাইন তৈরি করতে হয়

এবং অনেক লোক এর মাধ্যমে উক্ত ভবন টি তৈরি করার জন্য কাজ করে যেতে হয়।

কিন্তু এটি অনেক সময় সাপেক্ষ ব্যাপার যা মানুষের করতে অনেক বেশি সময়ের প্রয়োজন হবে।

অপরদিকে আপনি যদি এই কাজটি কোন একটি রোবট যন্ত্রের মাধ্যমে করাতে পারেন, সেক্ষেত্রে কিন্তু আপনি এই কাজগুলো খুব দ্রুত গতিতে করতে পারবেন।

যা মাধ্যমে আপনার সময় এবং মানসিক শ্রম ব্যয় করার থেকে অনেকটা রেহাই পাওয়া সম্ভব।

রোবট কিভাবে কাজ করে

উপরের আলোচনা থেকে আপনি রোবট কি এবং একটি রোবট এর কাজ কি সে সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য জানতে পেরেছেন।

আশাকরি এ পর্যন্ত আর্টিকেল টি পড়ার পর আপনার এই বিষয়গুলো সম্পর্কে পরিষ্কার ধারণা চলে এসেছে।

তো এগুলো জানার পাশাপাশি আপনাকে আরও একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় জেনে নিতে হবে সেটি হলো যে, কোন একটি রোবট আসলে কিভাবে কাজ করে থাকে।

আপনার জন্য আরোও লেখা… 

কারন একটি রোবট কে কাজ করে নিলেই হবে না বরং সে রোবটটি আসলে কিভাবে কাজ করে সেটা সম্পর্কে জেনে নেয়া টাও বেশ গুরুত্বপূর্ণ একটা বিষয়।

চলুন এবার তাহলে জেনে নেয়া যাক রোবট কিভাবে কাজ করে।

আপনি ইতিমধ্যেই জানতে পেরেছেন যে রোবট হল কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তাসম্পন্ন এক ধরনের যন্ত্র। যার সাহায্য অনেক বড় বড় কাজ গুলোকে খুব কম সময়ের মধ্যে দ্রুত গতিতে করা সম্ভব।

তবে এই ধরনের রোবটগুলো কিন্তু শুরু থেকেই নিজের জ্ঞান এবং বুদ্ধিমত্তা দিয়ে কোন কাজ করতে পারে না বরং এগুলো কে নিয়ন্ত্রণ করার প্রয়োজন হয়ে থাকে।

কেননা এই ধরনের রোবট গুলোতে পূর্ব থেকেই নির্দিষ্ট কোন কাজের জন্য প্রোগ্রাম সেটাপ করা থাকে। এবং সেই প্রোগ্রাম গুলো কে পরিচালনা করার জন্য কিন্তু অবশ্যই কম্পিউটার এর মাধ্যমে কাজ করা হয়ে থাকে।

আর সে কারণেই মূলত কোন একটি নির্দিষ্ট কাজের জন্য তৈরি করা রোবট গুলোর শুধুমাত্র সেই নির্দিষ্ট কাজটি করতে পারে।

যেমন ধরুন একটি ক্যালকুলেটর এর কথা। মূলত আমরা এই বিশেষ ধরনের যান্ত্রিক রোবট টির মাধ্যমে অনেক বড় বড় অংকের হিসাব কে নিমিষেই করতে পারি।

কিন্তু এই ধরনের ক্যালকুলেটর নামক রোবটগুলো শুধুমাত্র তখনই কোন অংক করতে পারবে যখন আপনি তাকে কোন একটি হিসেব করতে দিবেন।

তবে একটি ক্যালকুলেটর থেকে আপনি চাইলেও হিসেব করা ছাড়া কখনোই টিভি চালাতে পারবেন না, কিংবা ফ্যানের মত ঘুরাতে পারবেন না।

বরং এই ক্যালকুলেটরে পূর্বে থেকেই একটি প্রোগ্রাম সেটাপ করে দেওয়া হয়েছে এবং পরবর্তী সময়ে এটি শুধুমাত্র এই হিসেব করার কাজে ব্যবহার করা হয়ে থাকবে।

ঠিক তেমনিভাবে বর্তমান সময়ে আবিষ্কৃত প্রত্যেকটি রোবটের মধ্যে একটি করে মেমোরি সেটাপ দেওয়া হয়েছে।

যেখানে নির্দিষ্ট একটি কাজের জন্য প্রোগ্রাম সেটা করে দেওয়া হয়েছে। এবং পরবর্তীতে উক্ত রোবটটি শুধুমাত্র সেই কাজ গুলো করতে পারবে যা তার প্রোগ্রাম থেকে নির্দেশনা দেবে।

তবে এই রোবট গুলো ততক্ষণ অব্দি কাজ করতে পারবে, যতক্ষণ পর্যন্ত আপনি তাকে নির্দেশনা প্রদান করবেন।

কেননা এই ধরনের রোবট গুলোর মধ্যে কোন প্রকার মানসিক ক্লান্তি নেই যা একজন মানুষের মধ্যে বিদ্যমান রয়েছে।

রোবট কত কত ধরনের

উপরের গুরুত্বপূর্ণ আলোচনা থেকে আপনি রোবট কি রোবট এর কাজ কি এবং একটি রোবট আসলে কিভাবে কাজ করে সে সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য জানতে পেরেছেন।

তবে এই বিষয়ে তথ্য গুলো জানার পাশাপাশি আপনাকে আরো একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় সম্পর্কে জেনে নিতে হবে।

আর সেই গুরুত্বপূর্ণ বিষয়টি হলো রোবট কত ধরনের হয়ে থাকে। কেননা বর্তমান সময়ে আপনি বিভিন্ন ধরনের রোবট দেখতে পারবেন চলুন এবার সেই সকল প্রকারের রোবট সম্পর্কে পরিষ্কার ধারণা নেওয়া যাক।

যাতে করে রোবট সম্পর্কিত আপনার কোন বিষয় জানা না থাকে।

০১| শিল্প রোবট

বর্তমান বিশ্বে অনেক ধরনের শিল্প ও কারখানা রয়েছে। মূলত এ ধরনের শিল্প গুলোতে বিভিন্ন পণ্যের উৎপাদন করা হয়ে থাকে।

আর এই কাজগুলো একজন মানুষের পক্ষে করা বেশ কষ্টসাধ্য ব্যাপার। যে কারণে এসব কাজ সহজ এবং দ্রুত গতিতে করার জন্য বিভিন্ন শিল্প প্রতিষ্ঠান গুলো তে যান্ত্রিক রোবট এর ব্যবহার করা হচ্ছে।

যার মাধ্যমে উক্ত শিল্পপ্রতিষ্ঠান গুলোতে যেসব ভারি ভারি কাজ রয়েছে, যেগুলো মানুষের করতে অনেক বেশি সময় লাগে। সেই কাজ গুলো এই ধরনের যান্ত্রিক রোবট গুলো খুব অল্প সময়ের মধ্যে করতে সক্ষম হচ্ছে।

যে কারণে বিভিন্ন ধরনের শিল্প প্রতিষ্ঠান গুলো তে যান্ত্রিক রোবট এর ব্যবহার ব্যাপক হারে বৃদ্ধি পেয়েছে।

০২| মহাকাশ রোবট

সৌরজগৎ সম্পর্কে আমাদের আগ্রহ এর কোনো শেষ নেই। পৃথিবীর বাইরে যে জগত রয়েছে সে জগতের অজানা বিষয় গুলোকে জানার জন্য মহাকাশ বিজ্ঞানীরা প্রতিনিয়ত কাজ করে যাচ্ছে।

আর তাদের এই কাজে বিশেষভাবে সহায়তা করছে মহাকাশ রোবটগুলো। যেমন ধরুন আজকের পৃথিবীতে যদি রকেট না থাকতো, তাহলে কিন্তু মানুষের পক্ষে চাঁদের বুকে পা রাখা টা বেশ অসম্ভব হয়ে দাঁড়াতো।

এভাবে এরকম আরো অনেক ধরনের মহাকাশ রোবট রয়েছে যার মাধ্যমে আমরা পৃথিবীর বাইরের জগত সম্পর্কে অজানা অনেক অজানা বিষয়গুলোকে জানতে পারছি।

এবং এই রোবট গুলোর মাধ্যমে মূলত মহাকাশ সম্পর্কিত বিভিন্ন অজানা বিষয় গুলোকে জানা হচ্ছে।

০৩| ঘরোয়া রোবট

বর্তমান সময়ে বিশেষ কিছু রোবট কে আমাদের নিজের ঘরের কাজের জন্য ব্যবহার করা হয়ে থাকে।

এবং এই ধরনের রোবট গুলো শুধুমাত্র নিজের ঘরের কাজের জন্য ব্যবহার করা হয়ে থাকে বলে এই রোবট গুলোকে বলা হয়ে থাকে ঘরোয়া রোবট।

যেমন ধরুন, আমাদের বাড়িতে ভ্যাকুয়াম ক্লিনার, পুল ক্লিনার ইত্যাদি কাজে ব্যবহার করার জন্য এই ধরনের ঘরোয়া রোবট গুলোকে ব্যবহার করা হয়ে থাকে।

Different kind of Robot

দেখুন উপরের আলোচনায় আমি শুধু মাত্র তিন প্রকারের রোবট এর কথা উল্লেখ করেছি। তবে এগুলো ছাড়াও আরও বিভিন্ন ধরনের রোবট রয়েছে যেগুলোকে মূলত বিভিন্ন কাজে ব্যবহার করা হয়ে থাকে।

সেজন্য এবার আমি সেই সব ধরনের রোবট গুলোকে একটা লিস্ট আকারে দিচ্ছি। আপনি সেখান থেকেই জেনে নিতে পারবেন যে রোবট কত প্রকারের রয়েছে। যেমন,

  1. টেলিফোনেড রোবট
  2. বিনোদন রোবট 
  3. সামরিক রোবট
  4. মেডিকেল রোবট
  5. হিউম্যানয়েড রোবট
  6. দুর্যোগের রোবট
  7. শিল্প রোবট
  8. ঘরোয়া রোবট
  9. মহাকাশ রোবট

বর্তমান বিশ্বে আপনি যত প্রকারের রোবট দেখতে পারবেন সেগুলো উপরে লিস্ট আকারে প্রদান করা হয়েছে।

তবে সময় বদলানোর সাথে সাথে আপনি উন্নত প্রযুক্তির বদৌলতে আরও বিভিন্ন প্রকারের রোবট দেখতে পারবেন। যা আমাদের জীবনকে আরও সহজ থেকে সহজতর করতে সহায়তা প্রদান করবে।

রোবট ও মানুষের মধ্যে পার্থক্য

রোবট কি সেই আলোচনায় আপনি জানতে পেরেছেন যে রোবট হল এমন এক ধরনের যন্ত্র যা মানুষের সাথে সাদৃশ্য রয়েছে।

তবে এই আলোচনা গুলো জানার পর এবার আপনার মনে একটি প্রশ্ন জেগে থাকতে পারে যে একটি রোবটের সাথে একজন মানুষের আসলে পার্থক্য কি কি।

তো চলুন এবার তাহলে রোবট ও মানুষের মধ্যে পার্থক্য গুলো সম্পর্কে একটু ধারনা নেওয়া যাক। যাতে করে কেউ আবার রোবট এবং মানুষকে সমান সমান ভেবে না বসে।

দেখুন প্রথমত রোবট হলো এক ধরনের আধুনিক প্রযুক্তি সম্পন্ন বিশেষ যন্ত্র যার মাধ্যমে মানুষের করা কাজগুলোকে অনেক কম সময়ের মধ্যে অধিক পরিমাণ কাজকে করানো সম্ভব।

কিন্তু একটা বিষয় আপনি ভেবে দেখলেই খুঁজে পাবেন যে মানুষ ইচ্ছা করলে আধুনিক বুদ্ধিমত্তা সম্পন্ন একজন রোবট কে তৈরি করতে পারবে।

কিন্তু একটি রোবট ইচ্ছা করলেও একজন আদর্শ মানুষ তৈরি করতে পারবে না। আরেক একটি রোবটের সঙ্গে মানুষের যে পার্থক্য রয়েছে তার মূল পয়েন্ট হল এটিই।

এর পাশাপাশি একটি রোবট চাইলেই ঘন্টার পর ঘন্টা কোন প্রকার ক্লান্তি ছাড়াই অনেক ভারী ভারী কাজ করতে পারবে।

অপরদিকে মানুষ যেহেতু রোবট নয় সেক্ষেত্রে মানুষের মধ্যে ক্লান্তি থাকবে এবং কোন একটি কাজ করতে গিয়ে সে মানুষটি অবশ্যই একটা সময়ে গিয়ে ক্লান্তি বোধ করবে।

সেই কারণে একটি রোবট এর বিশ্রামের প্রয়োজন না হলেও একজন মানুষের অবশ্যই বিশ্রাম নেয়ার প্রয়োজন হবে।

যেহেতু আমরা মানুষ সেহেতু আমাদের মধ্যে অবশ্যই আবেগ এবং অনুভূতি কাজ করবে। যেমন সামনে থাকা কোন ব্যক্তি যখন কষ্টে জর্জরিত থাকবে তখন আমাদের মনে একটু হলেও আবেগ কাজ করবে।

কিন্তু একটি রোবটের এই ধরনের কোন প্রকার আবেগ অনুভূতি থাকবে না।

কারণ তারা যেহেতু যান্ত্রিক যন্ত্র সেহেতু তাদের মধ্যে এ ধরনের আবেগ থাকবে না এটাই স্বাভাবিক।

তবে এর পাশাপাশি একজন মানুষের মধ্যে যে হিংসা বিদ্বেষ রাগ ঘৃণা রয়েছে সেগুলো কিন্তু একটি কৃত্রিম রোবট এর মধ্যে খুঁজে পাওয়া যাবে না।

রোবট ও রোবটিক্স এর মধ্যে পার্থক্য কি ?

যেহেতু আপনি রোবট কি সে সম্পর্কে জানতে এসেছেন সেহুতু আরো একটা বিষয় জেনে নেওয়া উচিত। সেটি হল যে রোবট ও রোবটিক্স এর মধ্যে পার্থক্য কি।

কারণ আমাদের মধ্যে এমন অনেক মানুষ আছেন যারা মূলত রোবট এবং রোবটিক্স কে একই বিষয় মনে করে থাকে। চলুন এবার তাহলে স্বল্প আকারে এই দুটোর মধ্যে পার্থক্য কি জেনে নেওয়া যাক।

দেখুন উপরের আলোচনা থেকে আপনি জানতে পেরেছেন যে রোবট হলো এক ধরনের যন্ত্র।

যাকে মূলত বাইরে থেকে নিয়ন্ত্রণ করা হয়ে থাকে এবং এই রোবটগুলো যা কিছু করে থাকে সেগুলোর জন্য পূর্ব থেকেই নির্দেশনা দেওয়া হয়ে থাকে।

অপরদিকে আপনি রোবটিক্স এর ক্ষেত্রে একটু ভিন্নতা দেখতে পারবেন। কারণ রোবটিক্স হল প্রযুক্তির এমন একটি শাখা, যা মূলত শারীরিক রোবট নিয়ে কাজ করে থাকে।

আমাদের শেষকথা

প্রিয় পাঠক বর্তমান পৃথিবীতে রোবটের ব্যবহার ব্যাপক হারে বৃদ্ধি পাচ্ছে। বিভিন্ন ধরনের শিল্প কারখানা থেকে শুরু করে মেডিকেল পর্যন্ত প্রায় সব ক্ষেত্রেই এই ধরনের রোবট কে ব্যবহার করা হচ্ছে।

আর সে কারণেই রোবট কি সে সম্পর্কে জেনে নেওয়াটা আমাদের জন্য অতি গুরুত্বপূর্ণ একটা বিষয়।

আর আজকের আর্টিকেলে আমি রোবট কি এই বিষয়টি নিয়েই পূর্ণাঙ্গভাবে আলোচনা করার চেষ্টা করছি।

আপনি আরোও পড়ুন…

আশাকরি আলোচিত এই আলোচনা থেকে আপনি রোবট কি সে সম্পর্কে পরিষ্কার ধারণা পেয়ে গেছেন।

তবে আপনি যদি বিভিন্ন অজানা বিষয় গুলোকে সহজ ভাষায় জানতে চান তাহলে অবশ্যই আমাদের সাথে থাকবেন। আর আর্টিকেলের এই পর্যন্ত আসার জন্য আপনাকে জানাচ্ছি অশেষ ধন্যবাদ।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

HandsUp! কপি করা যাবে না বস!

Scroll to Top
Share via
Copy link
Powered by Social Snap