ডাটা এন্ট্রি কি ? কিভাবে ডাটা এন্ট্রির কাজ করে ইনকাম করা যায় ?

ডাটা এন্ট্রি কি : Data Entry করে ইনকাম করা বর্তমান সময়ে খুব জনপ্রিয় হয়ে উঠছে। কারন ডাটা এন্ট্রি তে আপনি চাইলে অফলাইন কিংবা অনলাইন এই দুই পদ্ধতিতে কাজ করতে পারবেন।

এবং এই দুই পদ্ধতিতে কাজ করে যথেষ্ট পরিমান ইনকাম করতে পারবেন।

ডাটা এন্ট্রি কি ? কিভাবে ডাটা এন্ট্রির কাজ ইনকাম করা যায় ?
ডাটা এন্ট্রি কি ? কিভাবে ডাটা এন্ট্রির কাজ ইনকাম করা যায় ?

এই কাজে সচারচর বিভিন্ন কোম্পানি বা প্রতিষ্ঠানের যেসব Data (তথ্য) আছে। সেগুলো কে কোনো শিট বা ফর্মে লিপিবদ্ধ করতে হয়। এরপর সেই ডাটা গুলোকে বিভিন্ন কাজে ব্যবহার করা হয়ে থাকে।

যেমন, কখনও বা সেই ডাটা গুলোকে কোম্পানির কোনো Programme এ যুক্ত করতে হয়। আবার কখনওবা সেই ডাটা গুলোকে অন্য কোনো স্থানে পাঠিয়ে দেওয়া হয়।

অনলাইন থেকে ইনকাম করার জন্য অনেক গুলো উপায় রয়েছে। তবে সব গুলো উপায়ের মধ্যে ডাটা এন্ট্রি করে ইনকাম করার উপায় গুলো তুলনামূলক সহজ হওয়ার কারনে ৷

অনেকেই এই কাজে নিজেকে যুক্ত করছে। এবং ঘরে বসে অনলাইন এর মাধ্যমে ইনকাম করতে পারছে।

শুরুতেই একটা কথা বলি, যারা মূলত অলরেডি জানেন Data Entry কি এবং ডাটা এন্ট্রি নিয়ে কাজ করেন। তাদের জন্য এই আর্টিকেল এ তেমন কিছুই নেই।

তবে যারা একেবারে নতুন, যারা জানেন না যে ডাটা এন্ট্রি কি? কিভাবে ডাটা এন্ট্রির কাজ ইনকাম করা যায় ? তাদের জন্যই এই আর্টিকেলটি লেখা হয়েছে।

তো যদি আপনি Data Entry তে একেবারে নতুন হয়ে থাকেন। তাহলে আজকের আর্টিকেলটি আপনার জন্য অনেক গুরুত্বপূর্ণ। তাই একটু সময় নিয়ে আজকের এই আর্টিকেলটি মনোযোগ দিয়ে পড়বেন।

[💡PRO TIPS: আজকে ডাটা এন্ট্রি নিয়ে আলোচনা করার পাশাপাশি কিভাবে আপনি এখান থেকে বেশি পরিমানে ইনকাম করতে পারবেন ৷ সে নিয়ে কিছু হিডেন টিপস শেয়ার করবো।]

ডাটা এন্ট্রি কি? (Data Entry in Bangla) 

কিভাবে ডাটা এন্ট্রি করে ইনকাম করবেন। সে বিষয়ে তো অবশ্যই আলোচনা করবো। তবে সবার আগে আপনাকে জানতে হবে যে, Data Entry আসলে কি?

যখন আপনি এই বিষয়টি জানতে পারবেন। তখন পরবর্তী আলোচনা গুলো আপনার বুঝতে সুবিধা হবে।

তো সহজ কথায় যখন আপনি টাইপিং এর মাধ্যমে কোনো হার্ড কপি তে থাকা কোনো তথ্য (Data) কে সফট কপি তে রুপান্তর করবেন। এরপর সেই ডাটা গুলোকে অন্য কোনো স্থানে স্থানান্তরিত করবেন।

তখন উক্ত কাজ কে বলা হবে ডাটা এন্ট্রি।

আপনার জন্য আরো লেখা…

আর এই কাজে মূলত আপনি আপনার হাতে থাকা কম্পিউটার এর মাধ্যমে এন্ট্রি করা ডাটা গুলো কে যোগ করতে পারবেন আবার প্রয়োজন মতো সেই ডাটা গুলোকে আপডেট করতে পারবেন।

এখন আপনার মনে প্রশ্ন জাগতে পারে যে, “এই Data আসলে কি “? তাহলে শুনুন,

এই ডাটা গুলো যে কোনো ধরনের হতে পারে। যেমন, Text হতে পারে আবার Image হতে পারে, আবার Audio হতে পারে। তো আপনার বোঝার সুবিধার জন্য আমি কিছু ডাটা এর লিস্ট দিলাম।

যেগুলো বেশিরভাগ সময় এন্ট্রি করার কাজে ব্যবহার করা হয়ে থাকে। যেমন, 

  • Object
  • File
  • Information 
  • Media 
  • Audio
  • Video
  • Documents 
  • Image 
  • Number 
  • Text

[SHORT CUT TIPS:  মনে করুন আপনাকে ১০০০ জন ব্যক্তির নাম, মোবাইল নম্বর, স্থায়ী ঠিকানা, এনআইডি কার্ডের নম্বর দেওয়া হলো। এখন আপনি সেই তথ্য গুলোকে কোনো একটা শিটে লিখে রাখবেন।

ব্যস!  এটাই হলো Data Entry করার মূল কাজ।]

আর এই ছোটো খাটো কাজ গুলো করে এমন অনেক ব্যক্তি আছেন। যারা প্রতি মাসে ২০,০০০-২৫,০০০/- টাকা ইনকাম করতে পারছেন। 

ডাটা এন্ট্রি তে কি কি কাজ হয়?

এই কাজে মূলত বিভিন্ন Data কে লিপিবদ্ধ করতে হয়। আপনি উপরে যে লিষ্ট গুলো দেখতে পাচ্ছেন। মূলত এগুলোকে বলা হয় ডাটা। যেগুলো আপনাকে বিভিন্ন কাজের প্রয়োজনে লিপিবদ্ধ করতে হবে।

এবং প্রয়োজন অনুযায়ী সেগুলো কে এক স্থান থেকে অন্য স্থানে স্থানান্তরিত করতে হবে।

তো আপনি যদি এই কাজ গুলো করতে চান। তাহলে আপনাকে কোনো একটি বা একাধিক Documents দেওয়া হবে। এরপর আপনাকে সেই Documents এ দেওয়া তথ্য অনুযায়ী উক্ত ডাটা গুলোকে সংগ্রহ করতে হবে।

এরপর আপনার কম্পিউটার এর কিবোর্ডের সাহায্য টাইপিং করার মাধ্যমে সেই তথ্য গুলোকে অন্য কোনো স্থানে সংরক্ষন করতে হবে।

[Premium NOTE: ডাটা এন্ট্রি অনলাইন বা অফলাইন দুই ভাবেই হয়ে থাকে। তবে বেশিরভাগ ক্ষেএে এই কাজ গুলো অনলাইন এ করা হয়ে থাকে।]

ডাটা এন্ট্রি করতে কি কি যোগ্যতা প্রয়োজন?

এবার আসা যাক গুরুত্বপূর্ণ টপিকে। এখন জানার বিষয় হলো, আপনি যদি ডাটা এন্ট্রি করে আয় করতে চান ৷ তাহলে আপনার কি কি যোগ্যতার প্রয়োজন হবে। তো চলুন এবার সে বিষয়ে জেনে নেওয়া যাক।

তো আপনি যদি ডাটা এন্ট্রি করে ইনকাম করতে চান। তাহলে আপনার ভেতরে দুই ধরনের গুন থাকতে হবে। যেমন, 

  1. Typing Experience 
  2. Online Experience

সত্যি বলতে যদি আপনার ভেতরে এই দুই ধরনের Experience না থাকে। তাহলে এই কাজ করে ইনকাম করাটা আপনার জন্য বেশ কষ্টকর হয়ে পড়বে। তাই এই দুটো বিষয় নিয়ে ছোট্ট করে আলোচনা করা যাক। 

No-1: Typing Experience 

তো ডাটা এন্ট্রি করে ইনকাম করার আগে আপনাকে একজন দক্ষ Typist হতে হবে। যদি আপনি কম্পিউটার এর কিবোর্ডে নিজের আঙ্গুলকে সঠিক ভাবে চালাতে না পারে।

তাহলে এই সেক্টর এর কাজ গুলো আপনার জন্য বেশ কষ্টকর হয়ে পড়বে। কারন এখানে আপনি যে কাজ গুলো করবেন। সেগুলো আপনাকে কি-বোর্ড এর মাধ্যমে Type করতে হবে।

এখন আপনি যদি আপনার কম্পিউটার এর কি-বোর্ড এর সাথে তেমন পরিচিত না হয়ে থাকেন। তাহলে আপনি যথা সময়ে এই কাজ গুলো শেষ করতে পারবেন না। এবং এরফলে কেউ আপনাকে কাজ দিবে না।

[💡PRO TIPS: খুব দ্রুত টাইপিং শেখার কিছু কৌশল আছে। যেমন, গুগল এ “Typing Master”- নামের একটি সফটওয়্যার আছে। আপনি যদি টানা ১-১.৫ মাস নিয়মিত প্রাকটিস করেন।

তাহলে অন্যদের তুলনায় আপনি খুব দ্রুত টাইপিং শিখতে পারবেন।]

No-2: Online Experience

তো আপনি উপরের আলোচনা থেকে জেনেছেন যে, ডাটা এন্ট্রির কাজ গুলো অনলাইন বা অফলাইন দুইভাবে হয়ে থাকে। তবে বলে রাখা ভালো যে, যখন আপনি কোনো কোম্পানির আন্ডারে কাজ করবেন।

এবং সেই কাজ গুলো তাদের অফিসে গিয়ে করবেন। তখন এই পদ্ধতিকে বলা হবে, Offline Data Entry.

কিন্তুু বর্তমান সময়ে কোনো কোম্পানির আন্ডারে এই কাজ গুলো পাওয়া বেশ কষ্টকর হয়ে গেছে। তাই আপনাকে অফলাইন এর চেয়ে এই কাজ গুলো অনলাইনে করার প্রতি বেশ জোর দিতে হবে।

আপনি আরো পড়ুন…

আর এই কাজ গুলো অনলাইন এর মাধ্যমে কেউ আপনাকে নিজে থেকে এসে কাজ দিয়ে যাবে না। বরং এখানেও আপনাকে ক্লায়েন্ট খুজে নিতে হবে। এরপর তাদের সাথে কথা বলতে হবে। এবং সবশেষে তারা আপনাকে কাজ দিবে।

তো এই ক্লায়েন্ট খোজা থেকে শুরু করে ইনকাম করা পর্যন্ত বেশ কয়েকটি ধাপ রয়েছে। আর এই ধাপ গুলো পার হওয়ার জন্য আপনার Online সম্পর্কে যথেষ্ট পরিমানে জ্ঞান থাকতে হবে। 

ডাটা এন্ট্রি কাজ করতে কি কি দরকার হয়?

যদি আপনি Data Entry করতে চান। তাহলে আপনার বেশ কিছু সামগ্রীর প্রয়োজন পড়বে। নিচে সেগুলো সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করা হলো। তো এই কাজ করার জন্য সবার আগে আপনার যে জিনিসটির প্রয়োজন হবে। সেটি হলো,

 মোটা-মুটি ভাল কম্পিউটারঃ যেহুতু আপনি কোনো ডাটা কে এন্ট্রি করবেন। সেহুতু আপনার হাতে অবশ্যই একটি ভালো মানের কম্পিউটার বা ল্যাপটপ এর প্রয়োজন হবে।

যেখানে আপনি খুব সহজেই কোনো File কে Open করতে পারবেন। এবং সেই ফাইল এর মধ্যে থাকা কোনো ডাটা কে যুক্ত/স্থানান্তর করতে পারবেন।

দ্রুত গতির ইন্টারনেট কানেকশনঃ মানুষ যেমন ফুসফুস ছাড়া বাঁচতে পারেনা। ঠিক তেমনি যখন আপনি অনলাইনে কোনো কাজ করবেন। এবং সেই কাজ থেকে ইনকাম করতে চাইবেন।

তখন অবশ্যই আপনার ইন্টারনেট কানেকশন টি দ্রুত গতির হতে হবে। তাহলে আপনি যেকোনো কাজ খুব দ্রুততার সাথে করতে পারবেন।

তো যদি আপনার কাছে এই দুটো জিনিস থাকে। তাহলে ধরে নিবেন যে আপনার কাছে ডাটা এন্ট্রি থেকে ইনকাম করার জন্য প্রয়োজনীয় সামগ্রী আছে। এবং আপনি ডাটা এন্ট্রি করে ইনকাম করার জন্য একেবারে প্রস্তুত।   

ডাটা এন্ট্রির (Data Entry) কত প্রকার?

যাইহোক, এতোক্ষন ধরে অনেক আলোচনা হলো। তো এবার আপনার জানা উচিত যে, Data Entry আসলে কত প্রকার। মূলত বর্তমানে ডাটা এন্ট্রি এর যতোগুলো কাজ রয়েছে। সেই সব গুলো কাজকে মোট ২ টি ভাগে ভাগ করা সম্ভব। যেমন, 

  • Online Data Entry 
  • Offline Data Entry

এখন আপনার মনে প্রশ্ন জাগতে পারে যে, ভাই এই দুটো আবার কি জিনিস। তাহলে শুনুন, 

অনলাইন ডাটা এন্ট্রি কি?

সহজ কথায় যে কাজ গুলো করার জন্য আপনার Internet Connection এর প্রয়োজন হবে। ডাটা এন্ট্রির সেই কাজ গুলোকে বলা হয়, Online Data Entry.

যখন আপনি অনলাইন থেকে কোনো কাজ করবেন। তখন আপনার বাইরে যাওয়ার কোনো প্রয়োজন পড়বে না। সেজন্য আপনি নিজের ঘরে বসে কম্পিউটার বা ল্যাপটপ এর মাধ্যমে কাজ করতে পারবেন। 

অফলাইন ডাটা এন্ট্রি কি? 

যখন আপনি Data লিপিবদ্ধ করার জন্য কোনো প্রকার ইন্টারনেট এর সাহায্য নিবেন না। তখন সেই কাজ কে বলা হবে অফলাইন ডাটা এন্ট্রি।

আর এই Offline Data Entry এর কাজ গুলো আপনাকে কোনো অফিসে বা চাকরিরত স্থানে বসে করতে হবে। যেহুতু আপনি অফিসে বসে থেকেই কাজ গুলি করতে পারবেন।

সেহুতু সেখানে আপনার কোনো প্রকার Internet এর প্রয়োজন পড়বে না। আর সে কারনে এই সব কাজ গুলোকে বলা হয়, অফলাইন ডাটা এন্ট্রি।

কিভাবে ডাটা এন্টির কাজ করা যায়

একটা কথা আগেই বলা ভালো। সেটি হলো, আপনি যদি Data Entry এর কাজ গুলো করে টাকা আয় করতে চান। তাহলে আপনার কোনো প্রকার বিশেষজ্ঞ হওয়ার প্রয়োজন নেই।

কারন এই সেক্টরে আপনি অনেক সহজ সহজ কাজ করতে পারবেন। তবে আপনার যদি কম্পিউটার এর Typing Speed অনেক বেশি থাকে। তাহলে আপনি অন্যদের তুলনায় খুব দ্রুততার সাথে কাজ করতে পারবেন।

আর এটা তো জানেন যে, আপনি অনলাইনে যতো বেশি কাজ করবেন। আপনার ইনকাম ঠিক ততো বেশি হবে। তো চলুন এবার জেনে নেয়া যাক আপনি আসলে কোন কোন পদ্ধতিতে ডাটা এন্ট্রি এর কাজ গুলো করতে পারবেন ৷

তো আপনি ভিন্ন ভিন্ন উপায়ে এই কাজ গুলো করতে পারবেন। যেমন, 

১. হাতে লেখা তথ্য টাইপ করা

এই পদ্ধতিতে কোনো Buyer আপনাকে কোনো এক বা একাধিক তথ্যের ফাইল দিবে। এখন আপনাকে সেই ফাইল গুলোকে কিবোর্ড এর মাধ্যমে MS Excel এ টাইপ করতে হবে।

সবশেষে আপনি যখন সঠিকভাবে সেই তথ্য গুলোকে টাইপ করা শেষ করবেন ৷ তখন সেগুলোকে একটি File হিসেবে তৈরি করার পর আপনার বায়ার/স্যার কে জমা দিতে হবে ৷ 

২. অডিও শুনে টাইপ করা

এই পদ্ধতিতে আপনি যে বায়ার বা কোম্পানির আন্ডারে কাজ করবেন। সে/তিনি আপনাকে একটি Audio Formet এর ফাইল দিবে। আপনাকে মনোযোগ দিয়ে সেই অডিওটি কে শুনতে হবে।

এরপর সেই অডিওতে থাকা প্রয়োজনীয় তথ্য গুলোকে নোট করে রাখতে হবে। অথবা সরাসরি সেই তথ্য গুলোকে কোনো শীট যেমন, Microsoft Excel এ টাইপিং করে জমা করতে হবে। ব্যাস! এইটুকুই আপনার কাজ। 

৩. ভিডিও বা ইমেজ দেখে টাইপ করা

ডাটা এন্ট্রি করার আরও একটি জনপ্রিয় পদ্ধতির নাম হলো, ভিডিও বা ইমেজ দেখে টাইপ করা। কারন এই কাজটি আপনি চাইলে খুব সহজেই এবং অনেক কম সময় এর মধ্যেই করে নিতে পারবেন।

এই পদ্ধতিতে আপনি যার আন্ডারে কাজ করবেন। অর্থ্যাৎ সেটা হতে পারে আপনি কোনো কোম্পানি বা বায়ার। তো সেই ব্যক্তি আপনাকে কখনও বা Video পাঠাবে।

এবং সেই ভিডিওতে প্রয়োজনীয় কিছু তথ্য বা Data দেওয়া থাকবে। সেই DATA গুলোকে আপনি নোট করে রাখবেন। এরপর সেগুলোকে লিপিবদ্ধ করবেন।

আবার অনেক সময় ভিডিও দেয়ার পাশাপাশি আপনাকে কিছু Image (ছবি) ও দেওয়া হবে। এই ইমেজ গুলোতে বিভিন্ন কোম্পানি বা মানুষ বা অন্য কিছুর তথ্য দেওয়া থাকবে।

আপনাকে সেই তথ্য গুলোকে কোনো শিটের মধ্যে লিপিবদ্ধ করে রেখে দিতে হবে। 

৪. ক্যাপচা এন্ট্রি করা

মূলত উপরে আপনি যে Image Entry এর কথা জানতে পারলেন। সেটির মতো সেম বিষয় মনে হলেও Captcha Entry এর দিক থেকে এই দুটো বিষয় কখনই এক নয়।

কারন ক্যাপচা এন্ট্রি হলো সাংকেতিক চিহ্ন। যা কখনও বা সংখ্যাকে প্রকাশ করে। আবার কখনওবা অক্ষর বা হ্যাশ ট্যাগ হতে পারে। আপনাকে সেগুলোকে Entry করতে হবে।

কারন যতো গুলো মানুষ এই আর্টিকেলটি পড়ছেন। তাদের মধ্যে প্রায় ৭০% মানুষ মোবাইল ব্যবহারকারী। তো মূল কথা হলো, ডাটা এন্ট্রি এর কাজ গুলো মোবাইল দিয়ে করতে আপনার যে পরিমান সময় লাগবে।

আপনি যদি সেই পরিমান সময় দিয়ে Computer কিংবা Laptop এ কাজ করেন। তাহলে আপনি মোবাইলের তুলনায় ২ গুন বেশি কাজ করতে পারবেন।

কারন আমি আগেই বলেছি যে, অনলাইনে আপনি যতো বেশি সময় দিয়ে কাজ করতে পারবেন। আপনার ইনকাম এর পরিমান ঠিক ততো বেশি বৃদ্ধি পাবে।

আর আপনি যদি মোবাইলে এন্ট্রি করার কাজ করেন। তাহলে আপনার মধ্যে অনেক ধরনের সীমাবদ্ধতা থাকবে। যেমন, আপনাকে যদি বড় কোনো File দেওয়া হয়। সেটিকে Open করতে অনেক বেশি সময় লাগবে।

আবার কোনো ডাটাকে যখন আপনি কোনো শীটে লিপিবদ্ধ করতে চাইবেন। তখন আপনি বেশ বিপাকে পড়ে যাবেন। কারন কম্পিউটার এর মতো Microsoft Excel আপনি মোবাইল ফোনে ব্যবহার করতে পারবেন না।

আপনি আরো দেখুন…

সত্যি বলতে ডাটা এন্ট্রি করে আয় করার জন্য আপনার একটা Computer বা ল্যাপটপ হলে অনেক ভালো হয়।

মোবাইল দিয়েও আপনি এই কাজ গুলো করতে পারবেন ৷ কিন্তুু মোবাইলে আপনাকে অনেক বেশি পরিমানে সময় ও শ্রম ব্যয় করতে হবে। 

আমাদের শেষকথা 

আশা করি ডাটা এন্ট্রি করে ইনকাম করার সমস্ত আলোচনা গুলো ভালোভাবে বুঝতে পেরেছেন। এরপরও যদি আপনার কোনো কিছু জানার থাকে। তাহলে কমেন্ট করে জানাবেন।

আমি আপনার Comment এর অপেক্ষায় থাকবো। বাংলা আইটি ব্লগ সব সময় আইটি এবং অনলাইন ইনকাম সহ নানা রকম ব্লগিং নিয়ে আর্টিকেল প্রকাশ করেছে। 

আপনি চাইলে আমাদের অন্য পোস্ট গুলা দেখে আসতে পাড়েন।

2 thoughts on “ডাটা এন্ট্রি কি ? কিভাবে ডাটা এন্ট্রির কাজ করে ইনকাম করা যায় ?”

  1. ডাটা এন্ট্রির জন্য মার্কেটপ্লেস কি কি আছে?

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: কপি করা যাবে না !!
Scroll to Top
Share via
Copy link
Powered by Social Snap