সিপিইউ (CPU) কি ? কিভাবে সিপিইউ কাজ করে বিস্তারিত জেনে নিন

CPU কি : বর্তমানে আমরা প্রযুক্তির যুগে বাস করছি। আর প্রযুক্তির সাথে তাল মেলানোর জন্য নিজের কাছে একটা কম্পিউটার থাকা অনেক গুরুত্বপূর্ণ হয়ে দাড়িয়েছে।

সিপিইউ (CPU) কি ? কিভাবে সিপিইউ কাজ করে বিস্তারিত জেনে নিন
সিপিইউ (CPU) কি ? কিভাবে সিপিইউ কাজ করে বিস্তারিত জেনে নিন

আর সেই কারনে এখন ক্রমাগত ভাবে বেড়ে উঠছে কম্পিউটার এর ব্যবহার। আর কোনো একটি Computer এর সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ অংশ হলো সিপিইউ।

যাকে ছাড়া একটি কম্পিউটার কখনও সম্পূর্ণতা পাবে না।

সত্যি বলতে সুর্য ছাড়া যেমন দিনের আশা করা বৃথা। ঠিক তেমনিভাবে একটি CPU ছাড়া কোনো কম্পিউটার এটাও অকল্পনীয়।

কেননা, আমরা কম্পিউটারে মনিটরের স্ক্রিনে যা কিছু দেখতে পাই। তাই সবকিছু সিপিইউ পরিচালনা করে থাকে।

কিন্তুু এখনও এমন অনেক মানুষ আছেন, যারা দীর্ঘদিন থেকে কম্পিউটার ব্যবহার করে।

অথচ সিপিইউ কি  (cpu ki) এবং CPU কিভাবে কাজ করে সে সম্পর্কে বিস্তারিত কিছু জানেনা।

আর সেইসব মানুষের উদ্দেশ্যেই আজকের এই আর্টিকেল টি লেখা হয়েছে।

আপনার জন্য আরো লেখা…

যদি আপনি নিয়মিত কম্পিউটার ব্যবহার করে থাকেন। তাহলে আজকের এই আর্টিকেলে আলোচিত বিষয় গুলো আপনার জন্য অনেক হেল্পফুল হবে ৷

কারন, আজকে আমি CPU কি, তা নিয়ে স্টেপ বাই স্টেপ বিস্তারিত আলোচনা করবো। আর সে কারনে পুরো লেখাটি মন দিয়ে পড়ার চেস্টা করবেন। 

CPU কি ? সিপিইউ বলতে কি বুঝায়

What is CPU In Bangla? মূলত CPU শব্দটি হলো একটি সংক্ষিপ্ত রুপ যার পূর্নরুপ হলো Control Processing unit. আমরা সবাই যে কম্পিউটার গুলো ব্যবহার করি।

সেগুলো তে বিভিন্ন ধরনের হার্ডওয়্যার, সফটওয়্যার এবং আউটপুট ডিভাইস এর সমন্বয়ে গঠিত হয়ে থাকে। তো যখন এগুলোকে কোনো প্রকার নির্দেশনা দেয়া হয়।

তখন সেই instructions গুলো সিপিইউ গ্রহন করে। এবং এই নির্দেশ গুলোকে প্রসেস করার পর সেগুলোকে প্রসেস করে Output প্রদান করে।

এবং তারপর আমরা কম্পিউটার স্কিনে নির্দেশ করা সেই বিষয় গুলোকে দেখতে পাই।

তবে এই বিষয়টিকে এতো সহজভাবে না বলে একটু সংঙ্গায়িত করা যাবে। সেটি হলো, কোনো একটি কম্পিউটার এর সাথে সংযুক্ত থাকা সকল উপাদান বা সকল উপকরন আসলে কিভাবে কাজ করবে।

সেটি মূলত সিপিইউ এর উপর নির্ভর করে। আর সে কারনেই CPU কে কম্পিউটার এর মস্তিষ্কের সাথেও তুলনা করা হয়ে থাকে।

মস্তিস্ক ছাড়া যেমন জীবন অচল, ঠিক তেমনিভাবে যদি CPU না থাকে। তাহলে কম্পিউটার কোনো কাজ করতে পারবেন না। 

CPU এর পূর্ণরূপ কি ? (Full form of CPU)

 CPU এর একটি পূর্নরুপ আছে তবে বলার সুবিধার জন্য আমাদের মধ্যে বেশিরভাগ মানুষ শুধমাত্র সিপিইউ বলে থাকি।

তো এই CPU এর একটা Full Form আছে। সেটি হলো, Control Processing Unit. কিন্তুু এখন যদি আপনাকে প্রশ্ন করা হয় যে, কেন সিপিইউ কে কন্ট্রেল প্রসেসিং ইউনিট বলা হয়।

তাহলে এর উত্তরটা কি আপনি দিতে পারবেন?

থাক! আপনাকে বলতে হবেনা, বরং আমিই বলছি। দেখুন, একটি কম্পিউটার কিন্তুু নিজে থেকে কোনো কাজ করেনা। প্রথমে তাকে নির্দেশনা (instruction) দিতে হয়।

এবং এই নির্দেশনা পাওয়ার পর CPU সেগুলো কে গ্রহন করে। এবং নির্দেশ মোতাবেক যে কাজ গুলো আছে, সেগুলোকে প্রসেস করে।

এবং সবশেষে CPU থেকে Output প্রদান করে। যা আমরা কম্পিউটার মনিটরের স্ক্রিনে দেখতে পাই। আর সেই কারনে সিপিইউ কে বলা হয়, কন্ট্রোল প্রসেসিং ইউনিট। 

CPU কিভাবে কাজ করে ?

আমরা সবাই জানি যে, একটি কম্পিউটার এর মধ্যে যত গুলো ডিভাইস সংযুক্ত করা থাকে। তার মধ্যে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ অংশ হলো সিপিইউ।

একজন মানুষের যেমন মস্তিস্ক ছাড়া চলতে পারবে না ৷ ঠিক তেমনি ভাবে যদি CPU না থাকে। তাহলে একটি কম্পিউটার নির্দেশমতো কাজ করতে পারবে না।

তবে এ বিষয় গুলো তো আমাদের সবার কমবেশি জানা আছে।

কিন্তুু কখনও কি আপনার মনে প্রশ্ন জেগেছে যে, এই CPU কিভাবে কাজ করে ? আর কি কারনে সিপিইউ কে একটি মস্তিষ্কের সাথে তুলনা করা হয়েছে ? 

যদি এ বিষয়ে আপনার কোনো ধারনা না থাকে। তবে নিচের আলোচনা গুলোর দিকে খেয়াল রাখুন। কারন CPU কিভাবে কাজ করে তা নিয়ে এবার পর্যায়ক্রমে আলোচনা করার চেস্টা করবো ৷

প্রথমে আপনাকে জানতে হবে যে, সিপিইউ কিন্তুু অনেক ছোট ছোট Transistor (ট্রানজিস্টর) এর সমন্বয়ে তৈরি করা হয়ে থাকে।

আর পুরো CPU টা হলো বিশেষ এক ধরনের চিপ। যাকে মূলত মাদারবোর্ড এর সাথে সংযুক্ত করা হয়। আর মাদারবোর্ড এর সাথে যুক্ত থাকা এই চিপ এর মধ্যে যে ট্রানজিস্টর গুলো থাকে।

এগুলোর মাধ্যমেই কম্পিউটার এর কোনো প্রোগ্রাম কে রান (Run) করা হয়ে থাকে।

কেননা, একটি সিপিইউ কে মূলত বিভিন্ন ধরনের আউটপুট অপারেশন সম্পন্ন করতে হয়। যেমন, এরিথমেটিক্যাল অপারেশন, লজিক্যাল অপারেশন কিংবা ইনপুট এর মতো অনেক ধরনের অপারেশন করতে হয়।

আর এই সব গুলো কাজ করা হয় CPU এর অভ্যন্তরে থাকা ছোট ছোট আকারের ট্রানজিস্টর এর মাধ্যমে। আর এরাই কোনো প্রোগ্রাম কে রান করার পর আউটপুট প্রদর্শন করে থাকে।

আমি উপরেই একটা কথা বলেছি যে, সহজ ভাষায় Cpu কে কম্পিউটার এর ব্রেন বলা হয়। কেননা, যখন বাইরে থেকে কম্পিউটার এর হার্ডওয়্যার বা সফটওয়্যার গুলো কে কোনো নির্দেশনা দেয়া হয়।

তখন CPU সেই সব গুলো নির্দেশকে রিসিভ করে। এবং তার চিপে থাকা ট্রানজিস্টর গুলোন মাধ্যমে নির্দেশনা অনুযায়ী কোনো প্রোগ্রাম কে রান করে থাকে। 

সিপিইউ এর সহায়ক গুলো কি কি?

আপনি আর্টিকেলের শুরু থেকে অনেক অজানা বিষয়ে জানতে পেরেছেন। যেমন, সবার শুরুতে আপনি জানতে পেরেছেন যে, সিপিইউ কি । এবং CPU কি এখানে আমি বারবার একটা কথা বলেছি।

সেটি হলো, সিপিইউ কে কম্পিউটার এর ব্রেন বলা হয়। কিন্তুু কম্পিউটার এর ব্রেন কোনো কাজ একাই করতে পারেনা। বরং এই কাজ গুলো করার জন্য সিপিইউ এর অনেক সহায়কের প্রয়োজন হয়ে থাকে।

তবে জানার বিষয় হলো যে, একটি সিপিইউ আসলে কি কি সহায়ক এর সমন্বয়ে কাজ করে থাকে। তো চলুন এবার সে বিষয়ে বিস্তারিত জেনে নেয়া যাক।

আসলে এমন কোন কোন সহায়ক আছে, যার মাধ্যমে CPU সঠিকভাবে কাজ করতে পারে। তো সিপিইউ মোট ৩ টি সহায়কের সমন্বয়ে কাজ করে থাকে। সেগুলো হলোঃ

  1. Memory
  2. Control Unit
  3. Alu 

হুমম! উপরে আপনি যে ৩ টি নাম দেখতে পাচ্ছেন। এগুলো হলো কোনো একটি Cpu এর মূল সহায়ক। যাকে কেন্দ্র করে সিপিইউ কোনো নির্দেশনা কে গ্রহন এবং প্রসেস করার কাজ করে থাকে।

আর সে কারনে এই ৩ টি সহায়ক সম্পর্কে একটু বিস্তারিত জেনে নেয়া উচিত। চলুন এবার সে গুলো সম্পর্কে পরিস্কার ধারনা নেয়া যাক। 

০১| Memory (মেমোরি)

কম্পিউটারে কোনো তথ্যকে ধারন করা থেকে শুরু করে, সেই তথ্য কে জমা করে রাখা এবং প্রয়োজনের সময় ঐ তথ্য গুলোকে ফেরত দেয়া পর্যন্ত।

এইসব গুলো কাজ করার পেছনে মেমোরি (Memory) এর ভূমিকা অপরিসীম। প্রথম এই মেমোরি গুলো বাইরে থেকে প্রদান করা ডাটা গুলোকে গ্রহন করে।

আপনি আরো দেখতে পারেন…

এরপর সেই Data বা information গুলো জমা করে রাখে এরপর সেই জমা করে রাখা ডাটা গুলোকে প্রসেস করার পর আউটপুট প্রদান করে থাকে।

তবে কম্পিউটার এর মেমোরি কে আবার ২ টি ভাগে ভাগ করা হয়ে থাকে। মূলত এই দুই ধরনের মেমোরি একটি CPU এর জন্য অনেক গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে।

তো প্রকারভেদের দিক থেকে এই ২ প্রকার মেমোরি কার্ড এর নাম হলোঃ 

  • Ram Memory: কম্পিউটারে থাকা এমন সব ডাটা যা এখনও প্রসেস করা হয়নি। যেসব ডাটা গুলো কে বলা হয়, Unprocessed Data. তো এই ধরনের ননপ্রসেস ডাটা গুলো যে মেমোরি তে জমা হয় ৷ সেই মেমোরি কে বলা হয় Ram Memory. 
  • Rom Memory: কম্পিউটারে থাকা এমন সব ডাটা যা অলরেডি প্রসেস করা হয়েছে। আর সেই সব Data যে মেমোরি তে জমা করে রাখা হয়। তাকে বলা হয়, Rom Memory. 

তো একটি কম্পিউটারের সাথে সংযুক্ত থাকা সিপিইউ এর মধ্যে যে মেমোরি থাকে। আশা করা যায় তার গুরুত্ব সম্পর্কে পরিস্কার ধারনা পেয়ে গেছেন।

এবার চলুন Cpu এর অন্যান্য সহায়ক গুলো সম্পর্কে বিস্তারিত জেনে নেয়া যাক। 

০২| Control Unit (কন্ট্রোল ইউনিট)

একটি সিপিইউ এর সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ অংশ হলো Control Unit. মূলত যখন কম্পিউটার কে কোনো নির্দেশনা দেয়া হয়। তখন সেই নির্দেশনা কে প্রসেস করার কাজ গুলো এই কন্ট্রোল ইউনিট করে থাকে।

আর সে কারনে, CPU তে থাকা এই Control Unit কে কম্পিউটার ম্যানেজার বলা হয়ে থাকে। অপরদিকে এই ডিভাইস এর আরও একটি সংক্ষিপ্ত রুপ আছে। সেটি হলো, Control Unit কে CU দ্বাড়াও প্রকাশ করা হয়। 

০৩| ALU (এএলইউ)

Arithmetic Logical Unit এর সংক্ষিপ্ত রুপ কে বলা হয় ALU. মূলত আমরা যখন কম্পিউটার এর সাহায্য কোনো হিসেব বা পরিমাপ করি।

তখন সিপিইউ তে থাকা ALU নামক ডিভাইসটি অনেক গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে। যেমন, আমরা আমাদের প্রয়োজনে কম্পিউটার দিয়ে নানা রকমের যোগ/বিয়োগ/গুন/ভাগ করে থাকি।

তো এই পরিমাপ গুলো সঠিক ভাবে করার জন্য ALU এর অবদান অপরিসীম।

তবে কাজের দিক থেকে ভিওি করে Alu কে আবার দুইটি ভাগে ভাগ করা হয়ে থাকে। যেমনঃ

  1. Alu এর প্রথম কাজ হলো গানিতিক ক্রিয়া গুলো কে সম্পন্ন করা। আমরা যেসব Mathematical Operation করার নির্দেশ দেই। সেগুলো কে নির্ভুল ভাবে সম্পন্ন করাই হলো Alu এর প্রধান কাজ। 
  2. Alu এর দ্বিতীয় কাজটি হলো পরিমাপ করা। একজন ইউজার যখন কম্পিউটার কে কোনো কিছু পরিমাপ করার নির্দেশ দেয়। তখন সেই পরিমাপ গুলোকে নির্ভুল ভাবে প্রদর্শন করাই হলো Alu এর দ্বিতীয় কাজ। 

সিপিইউ তে থাকা Alu এর উপরোক্ত কাজ গুলো ছাড়াও আরো অনেক ধরনের কাজ করে থাকে।

যেমন, কোনো ডাটার সাথে অন্য ডাটাকে তুলনা করা, Data Select এবং ডাটা ম্যাচিং এর কাজ গুলোও Alu নির্ভুল ভাবে করতে পারে। 

CPU core কি ? (What is CPU core)

সিপিইউ কি জানার পর আপনাকে আরও একটি বিষয়ে ধারনা নিতে হবে। সেটি হলো, Cpu Core কি। কেননা, কোনো একটি CPU এর সাথে কোর (Core) এর সম্পর্ক অতি নিবিড়।

কিন্তুু আপনি যদি এই বিষয়ে তেমন কিছু না জেনেই চলে যান। তবে CPU কি সে সম্পর্কে আপনার ধারনা অসম্পূর্ণ থেকে যাবে।

তো সিপিইউ কি, এটি জানার পর চলুন এবার জেনে নেয়া যাক, CPU Core কাকে বলে।

দেখুন, আপনি যদি অতীতের সিপিইউ গুলোর দিকে নজর রাখেন। তাহলে আপনি একটা বিষয় খেয়াল করতে পারবেন। সেটি হলো, সেই সময়ের CPU গুলোর মধ্যে বেশিরভাগ Single Core Processor ছিলো।

কিন্তুু এদের বড় সমস্যা ছিলো যে, এগুলো দিয়ে একের অধিক কাজ করা যেত না। যার কারনে, বর্তমান সময়ে একটি কম্পিউটার দিয়ে যেমন Multitasking কাজ করতে পারছেন।

সেই পুরোনো আমলের Cpu গুলো দিয়ে এতো বেশি কাজ করা যেতনা। যার কারনে, আধুনিক প্রযুক্তি সর্বদাই Cpu Core কে উন্নতকরনের চেষ্টা চালিয়ে গেছে।

আর সময় পরিবর্তন এর সাথে সাথে সিপিইউ কোর এর মধ্যে ঘটেছে ব্যাপক বিপ্লব।

আজকের দিনে পূর্বের তুলনায় অনেক উন্নতমানের CPU Core দেখতে পারবেন। চলুন এবার সেগুলো সম্পর্কে এক এক করে জেনে নেয়া যাক। 

০১| Dual core

যেসব সিপিইউ তে মোট দুটো করে প্রসেসিং ইউনিট থাকে। তাকে বলা হয়, Dual Core Processor. অতীতের দিনে যেসব সিঙ্গেল কোর প্রসেসর ছিলো।

সেই প্রসেসর গুলোর তুলনায় অনেক শক্তিশালী হলো ডুয়েল কোর প্রসেসর। মূলত এই ধরনের প্রসেসর দিয়ে আপনি খুব সহজেই যে কোনো ধরনের Multitasking কাজ করতে পারবেন।

তবে আজকের দিনে এই Duel Core Processor গুলো দিয়েও আপনি তেমন একটা মাল্টিটাস্ক এর কাজ করতে পারবেন না।

কারন, এই সিপিইউ কোর টি উদ্ভাবনের পরে এমন আরো অনেক উন্নত মানের Core আবিস্কার হয়েছে।

সেগুলো পূর্বের তুলনায় অনেক বেশি শক্তিশালী। চলুন এবার সেগুলো সম্পর্কে বিস্তারিত জেনে নেয়া যাক। 

০২| Quad core

পূর্বে আলোচিত যতগুলো সিপিইউ এর কোর নিয়ে কথা বলা হয়েছে। তাদের মধ্যে অধিক শক্তিশালী কোর এর নাম হলো, Quad core.

যেখানে একটি নয়, দুটি নয় বরং মোট ৪ টি করে প্রসেসিং ইউনিট দেওয়া থাকে।

আর সে কারনে এই ধরনের CPU Core দিয়ে আপনি অধিক পরিমানে Multitasking এর কাজ করতে পারবেন কোনো প্রকার ঝামেলা ছাড়াই।

তবে যেহুতু অন্যান্য প্রসেসর গুলোর তুলনায় অধিক বেশি শক্তিশালী। সেহুতু এই Quad Core Processor গুলোর দাম একটু বেশি হয়ে থাকে।

কেননা, এই ধরনের প্রসেসর দিয়ে আপনি কম্পিউটার দিয়ে অনেক বড় বড় কাজ একবারে অনায়াসে করতে পারবেন।

আর সে কারনে এই প্রসেসর গুলোর দাম তুলনামূলক বেশি হয়ে থাকে। 

০২| Hexa core

মোট ৬ টি প্রসেসর নিয়ে গঠিত অসীম শক্তিশালী প্রসেসর হলো Hexa Core. কেননা, এই ধরনের প্রসেসর থাকলে ঐ কম্পিউটার দিয়ে একসাথে বিভিন্ন কাজ একই সাথে করতে পারবেন।

এই ধরনের Processor গুলে এতোটাই শক্তিশালী যে, আপনি যেকোনো কাজ অতি দ্রুত শেষ করতে পারবেন ৷ আর যেহুতু আপনি কাজের দিক থেকে এতো সুবিধা পাবেন ৷

সেহুতু এই Hexa Core এর দামও একটু বেশি দিতে হবে। 

০৩| Octa core

নাম শুনেই হয়তবা আপনি ধরে ফেলেছেন যে, আমি Octa core প্রসেসর এর কথা বলছি। যেসব সিপিইউ গুলো 9th generation এর পরে তৈরি করা হয়েছে ৷

সেগুলো কে octa core হিসাবে ধরা হয়ে থাকে। সবচেয়ে মজার বিষয় হলো এই ধরনের Processor গুলোতে ৮ টি করে আলাদা আলাদা প্রসেসিং ইউনিট আছে।

যা অন্য সব প্রসেসর এর থেকে একেবারে আলাদা ৷

আপনি আরো পড়তে পারেন…

কিন্তুু সব শ্রেনীর মানুষের জন্য এই ধরনের high configuration এর সিপিইউ কেনা সম্ভব নয়।

কারন এগুলো অনেক দামী হয়ে থাকে। যা অনেকের সাধ্যের বাইরে চলে যাবে। 

আজকে কি কি শিখলেন? 

এই আর্টিকেল থেকে আপনি কি কি শিখলেন। তা একবার পুনরায় আলোচনা করবো। যেমনঃ

  • সিপিইউ এর বিভিন্ন অংশ
  • সিপিইউ চিত্র
  • সিপিইউ এর কাজ
  • সিপিইউ এর উপাদান
  • সিপিইউ এর ব্লক চিত্র
  • সিপিইউ কত প্রকার
  • সিপিইউ এর বিভিন্ন যন্ত্রাংশ

আশা করি আজকের আলোচিত সিপিইউ কি রিলেটেড সমস্ত বিষয় গুলো বুঝতে পেরেছেন। 

 সিপিইউ কি নিয়ে আমাদের শেষকথা 

হ্যালো পাঠক, এই পর্যন্ত আসার জন্য আপনাকে অনেক ধন্যবাদ। আজকে আমি আলোচনা করেছি সিপিইউ কি এই বিষয়টি নিয়ে ৷

আশা করি আপনি আজকের CPU কি নিয়ে লেখা সমস্ত বিয়ষটি বুঝতে পেরেছেন ৷

এর পরেও যদি আপনার কোন প্রশ্ন থাকে তাহলে কমেন্ট বক্সে জিজ্ঞাসা করুন।

নতুন কিছু জানার জন্য বাংলা আইটি ব্লগের সাথে থাকুন। ধন্যবাদ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

HandsUp! কপি করা যাবে না বস!
Scroll to Top
Share via
Copy link
Powered by Social Snap