এসইও ফ্রেন্ডলি আর্টিকেল লিখার নিয়ম – বাংলা আইটি ব্লগ

এসইও ফ্রেন্ডলি আর্টিকেল লিখতে চান? তাহলে আপনি একদম সঠিক জায়গাতে চলে এসেছেন। আজকের এপিসোডে আমি SEO Friendly Article লেখার যে কৌশল রয়েছে। সেই কৌশল গুলো স্টেপ বাই স্টেপ আলোচনা করবো।

কিন্তুু কিভাবে এসইও ফ্রেন্ডলি আর্টিকেল লিখতে হয়। এই বিষয়টি আপনাকে এক লাইন বা দুই লাইনে বোঝানো সম্ভব নয়। এরজন্য আপনাকে বেশ কিছু বিষয় জানতে হবে।

এসইও ফ্রেইন্ড আর্টিকেল লেখার নিয়ম
এসইও ফ্রেইন্ড আর্টিকেল লেখার নিয়ম

কথিত নয়, এটাই বাস্তব যে, গুগল শুধুমাএ সেইসব আর্টিকেলকে টপ পজিশনে রাখে। যেগুলো আর্টিকেল গুলো Google এর এলগরিদম অনুযায়ী Optimize করা হয়ে থাকে।

যদি এমনটা হয় যে, আপনি আপনার ওয়েবসাইটে কন্টেন্ট পাবলিশ করছেন। কিন্তুু আপনার কন্টেন্ট গুগলের ফাস্ট পেজে তো দুরের কথা, যদি সার্চ ইঞ্জিনে খুজেই পাওয়া না যায় ৷

তাহলে ধরে নিবেন আপনার পাবলিশ করা আর্টিকেলটি ভালোভাবে অপটিমাইজ করা হয়নি।

মনে রাখবেন, সার্চ ইঞ্জিন থেকে হিউজ পরিমানে অর্গানিক ভিজিটর নিয়ে আসার জন্য, এসইও ফ্রেন্ডলি আর্টিকেল বেশ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

এসইও ফ্রেন্ডলি আর্টিকেল কি?

সাধারন ভাষায়, যখন আপনি এসইও এর সাথে সামঞ্জস্যতা রেখে কোনো কন্টেন্টকে অপটিমাইজ করবেন। তখন তাকে বলা হবে, Seo friendly article.

কি মাথার উপর দিয়ে গেলো? তাহলে ঠান্ডা মাথায় আরেকটু ভাবুন।

মনে করুন, আপনি “অন পেজ এসইও“- নিয়ে একটি আর্টিকেল লিখলেন। এরপর সেই আর্টিকেলটিকে আপনার ওয়েবসাইটে পাবলিশ করলেন।

কিন্তুু এখানে একটা প্রশ্ন হলো যে, আপনি On Page SEO নিয়ে আর্টিকেল লিখেছেন।সেটা গুগল কিভাবে বুঝবে”?

তাই গুগল যেন আপনার আর্টিকেলের মূল সারসংক্ষেপ সম্পর্কে বুঝতে পারে। সেজন্য আপনার আর্টিকেলের মধ্যে বেশ কিছু কৌশল অবলম্বন করতে হবে।

যখন আপনি এই কৌশল গুলো প্রয়োগ করে, আপনার আর্টিকেলকে Improve করবেন। মূলত তাকে বলা হবে, এসইও ফ্রেন্ডলি আর্টিকেল। 

এসইও ফ্রেন্ডলি আর্টিকেল লেখার প্রয়োজনীয়তা

সার্চ ইঞ্জিন থেকে ভিজিটর আসুক,  এটা আমরা সবাই চাই। যদি Organic Visitors আপনার মূল টার্গেট হয়। তাহলে এই বিষয়টি আপনাকে অনেক গুরুত্বের সাথে দেখতে হবে।

কারন আপনার আর্টিকেল যদি Proper Optimize না হয়। তাহলে গুগল আপনার আর্টিকেলকে Rank করাবে না। আর আপনার আর্টিকেল গুগলে Rank না করলে, আপনি আশানুরূপ ভিজিটর পাবেন না। এটা খুব সিম্পল একটা বিষয়। 

তো ভিজিটর নিয়ে আমরা একটু পরে কথা বলবো৷ তার আগে আপনাকে মূল বিষয় সম্পর্কে জানতে হবে যে, কেন আপনার আর্টিকেলকে SEO Friendly করা উচিত।

এই বিষয়টি বোঝার জন্য আপনাকে পুনরায় গুগলে যেতে হবে। গুগলে গিয়ে আপনার ইচ্ছামতো কিছু একটা লিখে সার্চ করুন। ধরে নিলাম আপনি ” অন পেজ এসইও“- লিখে সার্চ করছেন।

এরপর নিশ্চই আপনি সেই ওয়েবসাইটের লিংক দেখতে পাচ্ছেন। যারা মূলত “অন পেজ এসইও”- নিয়ে আর্টিকেল পাবলিশ করেছে, তাইনা?

এখন একটা বিষয় গভীরভাবে লক্ষ্য করে দেখুন, যে অন পেজ এসইও নিয়ে সবাই আর্টিকেল পাবলিশ করলেও। গুগল কোনো ওয়েবসাইটকে সবার উপরে দেখাচ্ছে, আবার কোনো ওয়েবসাইটকে নিচের দিকে দেখাচ্ছে।

আবার কিছু ওয়েবসাইটকে গুগলের ১ম পেজে না রেখে ২য় পেজে শো করছে। 

কিন্তুু প্রশ্ন হলো,  একই বিষয়ে আর্টিকেল লেখার পরও, গুগল কেন কিছু ওয়েবসাইটকে প্রথম সাড়িতে শো করলো।আর কেন ২য় পেজে কিছু ওয়েবসাইটকে শো করলো?

আপনি কি এই প্রশ্নের উওর দিতে পারবেন?

আপনার জন্য আরো লেখা…

এর প্রধান কারন হলো, যে আর্টিকেল গুলো প্রোপারলি অপটিমাইজ করা হয়েছে। গুগল সেই আর্টিকেল গুলোকে প্রথম সাড়িতে শো করছে।

আর যে আর্টিকেল গুলো এসইও ফ্রেন্ডলি নয়। গুগল সেই আর্টিকেল গুলোকে পর্যায়ক্রমে নিচের দিকে শো করছে।

আশা করি এই স্বল্প আলোচনা থেকে অন্ততপক্ষে এটি বুঝে গেছেন যে, কেন আপনার আর্টিকেলকে SEO Friendly করা উচিত। 

কিভাবে এসইও ফ্রেন্ডলি আর্টিকেল লিখবেন? 

আমি শুরু থেকে একটা কথা বারবার বলে আসছি যে, কোনো একটি কন্টেন্টকে এসইও ফ্রেন্ডলি করার বেশ কিছু কৌশল আছে। কিন্তুু এটা বলিনি যে, আপনাকে আসলে কোন কাজ গুলো করতে হবে। 

তো এতোক্ষন ধরে আমরা শুধু জানলাম যে,  এসইও ফ্রেন্ডলি বিষয়টা আসলে কি।  এবং এই বিষয়টি কেন এতো গুরুত্বপূর্ন।

এবার আমরা মূল টপিক নিয়ে আলোচনা করবো। তবে তার আগে একটা কথা বলে নেই। সেটি হলো আমি বারবার “এসইও ফ্রেন্ডলি”- না লিখে ” অপটিমাইজ” শব্দটির ব্যবহার করবো।

তাই যখন আপনি “অপটিমাইজ”- শব্দটি দেখবেন। তখন ধরে নিবেন যে আমি সেখানে আসলে এসইও ফ্রেন্ডলি বোঝাতে চেয়েছি।  

Planning For Optimize Content

যখন আপনি কোনো কন্টেন্ট কে অপটিমাইজ করতে চাইবেন। তখন আপনাকে পূর্ব পরিকল্পিত একটা প্ল্যানিং করতে হবে।

আর এটি তো আপনার জানা আছে যে, কোনো কাজের শুরু করার আগে উওম কাজ হলো পূর্ব পরিকল্পনা করা।

তো আর্টিকেল অপটিমাইজ করার প্ল্যান কে আমি দুইটি ভাগে ভাগ করেছি। যথাঃ-

  • Plan-A = Content Quantity 
  • Plan-B = Keyword Placement 

কোনো একটি আর্টিকেল কে অপটিমাইজ করতে চাইলে সবার আগে Content Quantity এবং Keyword Placement সম্পর্কে ধারনা রাখতে হবে।

তো Plan-A এবং Plan-B এর মূল উদ্দেশ্য কি। এবার সে সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করা যাক। 

(Plan-A) For Content Quantity 

কোনো আর্টিকেলকে অপটিমাইজ করার আগে আপনাকে আর্টিকেলের কোয়ান্টিটি সম্পর্কে জানতে হবে। এবং সেই অনুপাতের উপর নির্ভর করে মূলত অপটিমাইজেশন এর Structure কে সাজিয়ে নিতে হবে।

মনে করুন আপনি ১০০০ শব্দের একটি আর্টিকেল লিখেন। তাহলে আপনার Optimizing Structure একরকম হবে। আবার আপনি যদি ৩০০০ শব্দের একটি আর্টিকেল লিখেন। তাহলে আপনার Optimizing Structure অন্যরকম হবে। 

(Plan-B) For Keyword Placement 

কিওয়ার্ড প্লেসমেন্ট খুব গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয়। কারন আপনি যে কিওয়ার্ডের উপর আপনার কন্টেন্ট কে Rank করাতে চান।আপনার কন্টেন্টে অবশ্যই সেই কিওয়ার্ডের ফ্লো থাকতে হবে।

মনে হয় আপনি বুঝতে পারেননি, তাইনা?

মনে করুন,আমি “অন পেজ এসইও”-  কিওয়ার্ডকে টার্গেট করে একটি আর্টিকেল লিখেছি। তারমানে আমার ফোকাস কিওয়ার্ড হলো,” অন পেজ এসইও”।

এখন আমার লেখা সেই কন্টেন্টে যে Focus Keyword আছে। সেই কিওয়ার্ড কে কোথায় কোথায় প্লেসমেন্ট করা উচিত। সে দিকটা গুরুত্বের সাথে খেয়াল রাখতে হবে।

আশা করি এই Plan-A এবং Plan-B তে যে বিষয়টি বোঝাতে চেয়েছি। আপনি তা ভালোভাবে বুঝতে পেরেছেন।

তাই চলুন এবার আমরা, এসইও ফ্রেন্ডলি আর্টিকেল লেখার সেই কৌশল গুলো সম্পর্কে বিস্তারিত জানবো। 

এসইও ফ্রেন্ডলি আর্টিকেল লেখার কৌশল

আচ্ছা বলুন তো, “একটি কন্টেন্টের মধ্যে কি কি থাকে”?  অর্থ্যাৎ কোন কোন জিনিসের সমন্বয়ে একটি কন্টেন্ট তৈরি হয়।

থাক আ]মিই বলছি, একটি কন্টেন্টে Text,  Image, parmalink, Title, Description, Heading Tag এর সমন্বয়ে গঠিত হয়

তো এখন যদি আপনাকে কোনো কন্টেন্টকে অপটিমাইজ করতে বলা হয়। তাহলে আপনাকে সেই কন্টেন্ট যেসব বিষয়ের সমন্বয়ে গঠিত।

আপনাকে সেই বিষয় গুলোকে অপটিমাইজ করতে হবে। যেমন কন্টেন্ট এর Title, Image, url ইত্যাদিকে অপটিমাইজ করতে হবে।

তো কিভাবে সেই বিষয় গুলোকে অপটিমাইজ করে কোনো একটি কন্টেন্ট কে ” এসইও ফ্রেন্ডলি”- করা ড়যায়। এবার সে বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা করবো। 

Optimize Starting Part of Article

একটি আর্টিকেল যেখান থেকে START শুরু হয়। তাকে সেই আর্টিকেল এর Starting Part বলে।

কোনো একটি আর্টিকেলের শুরুর অংশটা খুব গুরুত্বপূর্ণ একটি অংশ। তাই এই শুরুর অংশটা আপনাকে এমনভাবে অপটিমাইজ করতে হবে।

যেন গুগল আপনার আর্টিকেলকে ইনডেক্স করার সময়। খুব সহজেই বুঝতে পারে যে আপনি আসলে কোন টপিক নিয়ে আর্টিকেল পাবলিশ করেছেন।

[Pro TIPS: →ভিজিটরকে ধরে রাখার জন্য, আপনার আর্টিকেল এর শুরুর অংশটি একটু আর্কষনীয় হতে হবে। প্রথম অংশটুকু পড়ার পর, ভিজিটর যেন চলে না যায়।

আর আমি শুরুতেই একটা কথা বলেছি যে, গুগল শুধুমাত্র সেইসব ওয়েবসাইট কে Rank করাও। যে ওয়েবসাইট এর “Main Topic”- সম্পর্কে গুগল বুঝতে পারে]

How To Optimize Starting Part of Article?

কোনো একটি আর্টিকেল এর শুরুর অংশটি অপটিমাইজ করার বেশ কিছু কৌশল আছে। যেমন, 

  • আপনার আর্টিকেল এর প্রথম ১৫০-২৫০ শব্দ খুব গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে। তাই চেস্টা করবেন এর মধ্যে যেন মোট ২ বার Main Keyword থাকে। 
  • এবং মেইন কিওয়ার্ডকে অবশ্যই Bold Style (বোল্ড স্টাইল)  করে দিবেন। যেন কিওয়ার্ড গুলি নজরে আসে। 
  • আর আপনি আসলে কোন টপিকে এই আর্টিকেল লিখছেন। সেটা প্রথম ২০০-২৫০ শব্দে ফুটিয়ে তোলার চেস্টা করবেন ।

ব্যাস!  আপনাকে আর কিছু করতে হবে না। শুধু উপরের Tips গুলো Follow করতে হবে। 

H1 H2 H3 H4 TAG

মনে রাখবেন, হেডিং ট্যাগ এর কাজ হলো, ‘আপনার মূল টপিক কে ফোকাস করা”। অর্থ্যাৎ আপনি যে বিষয়ে আর্টিকেল লিখছেন, তা এক লাইন বা দুই লাইনে মাধ্যমে বুঝিয়ে দেয়া। 

এছাড়াও Google Indexer যখন আপনার কন্টেন্ট কে ক্রল করবে। তখন সবার আগে আপনার হেডিং ট্যাগ গুলোকে Check করবে। তারপর আপনার কন্টেন্ট এর বাকি অংশগুলো তে নজর দিবে। 

How To Optimize Heading Tag?

যদি আপনি আপনার কন্টেন্ট এর হেডিং ট্যাগকে অপটিমাইজ করতে চান। তাহলে আপনাকে বেশ কিছু কৌশল অবলম্বন করতে হবে। যেমন,

  • মনে রাখবেন, আপনার হেডিং ট্যাগ এ যে শব্দ গুলো ব্যবহার করবেন। সেগুলো যেন আপনার Main Keyword কে ফোকাস করে। 
  • সবসময় চেস্টা করবেন আপনার মেইন কিওয়ার্ড কে ব্যবহার করার।
  • হেডিং কে এমনভাবে সাজিয়ে নিবেন। যেন আপনার মেইন কিওয়ার্ড নিয়ে কোনো প্রশ্ন যুক্ত থাকে। 

এখানে আর জানার মতো তেমন কিছু নেই। ইতিমধ্যে আপনি এসইও ফ্রেন্ডলি আর্টিকেল এর ৫০% জেনে গেছেন। এবার বাকি ৫০% সম্পর্কেও জেনে নিন। 

Make Readable Article

মনে করুন, আপনাকে একটি ১০ মিনিটের ভিডিও দেখতে বলা হলো। এখন সেই ভিডিওটি যদি আপনার ভালো লাগে, তাহলে আপনি সম্পূর্ণ ভিডিওটি মনোযোগ দিয়ে দেখবেন, তাইনা? 

আর যদি ভালো না লাগে, তাহলে আপনি ২-১ মিনিট দেখার পর, সেই ভিডিও দেখা বন্ধ করে দিবেন। এটা কমন একটা বিষয় বস।

এসইও আর্টিকেল আপনার জন্য…

এবার আপনার কন্টেন্ট এর কথা চিন্তা করুন। ভিজিটর যখন আপনার কন্টেন্ট ষ্পষ্টভাবে পড়তে পারবে। তখন পুরো আর্টিকেলো একবার হলেও চোখ বুলাবে।

এই চোখ বুলানোর জন্য ভিজিটর যে সময়টুকু ব্যয় করবে। তা আপনার ওয়েবসাইট এর Bounch Rate কে অনেক গুন কমিয়ে দিবে। 

How To Make A Readable Article? 

আপনার কন্টেন্ট কে আকর্ষনীয় করার জন্য বেশ কিছু Tips আছে।  এবার সেই টিপস গুলো সম্পর্কে বিস্তারিত জানবো। 

  • আপনার কন্টেন্ট এ Easy Word ব্যবহার করতে হবে। আপনি যদি আপনার কন্টেন্টে কঠিন শব্দ চয়ন করেন৷ তাহলে ভিজিটর সেই কন্টেন্ট পড়ার সময় শব্দের অর্থ বুজতে পারবে না। যার ফলে তারা আপনার আর্টিকেল পড়ার আগ্রহ হারিয়ে ফেলবে। 
  • মনে রাখবেন, আপনার কন্টেন্ট কে ছোট ছোট Paragraph এ ভাগ করে নিতে হবে।কারন যখন আপনার কন্টেন্ট এর Paragraph গুলো বড় হবে। তখন ভিজিটর আপনার কন্টেন্ট পড়ার আগ্রহ হারিয়ে ফেলবে। এবং আপনার কন্টেন্টকে দ্রুত স্ক্রল করে চলে যাবে৷ 
  • কন্টেন্ট এর মাঝে মাঝে লোভনীয় কিছু শব্দ যুক্ত করতে হবে। যেমন, PRO Tips / NOTE ইত্যাদি শব্দগুলো Bold করে সেখানে আকর্ষনীয় কিছু শব্দ যুক্ত করার চেস্টা করবেন। এর ফলে ভিজিটর যখন আপনার কন্টেন্ট স্ক্রল করবে। তখন সেই লোভনীয় শব্দগুলো নজরে আসবে৷ এবং সেখানে কি লেখা আছে, তা পড়ার চেস্টা করবে। 

এছাড়াও আপনি নিজে থেকে কিছু কৌশল বের করবেন৷ যেন ভিজিটরকে আপনার কন্টেন্ট এ বেশিক্ষন ধরে রাখতে পারেন। 

Use Multiple Image in Article

একটি কন্টেন্ট এ আপনি যতোবেশি ইমেজ ব্যবহার করবেন ৷  আপনার কন্টেন্ট ততোটাই এসইও ফ্রেন্ডলি হবে।  এবং ভিজিটর আপনার কন্টেন্ট এ আগের তুলনায় অনেক বেশি সময় ধরে স্থায়ী হবে।

তাই চেষ্টা করবেন, আপনার কন্টেন্ট এ প্রচুর পরিমানে ইমেজ ব্যবহার করার ৷

যারা মূলত SEO এক্সপার্ট, আপনি যদি তাদের কন্টেন্ট এর দিকে তাকান। তাহলে দেখতে পারবেন, তারা তাদের কন্টেন্ট এ প্রচুর পরিমানে ইমেজ ব্যবহার করে।

তাদের মতে, যে কন্টেন্ট এ যতো বেশি ইমেজ ব্যবহার করা হয়। সেই কন্টেন্ট ততো বেশি SEO Friendly হয়ে থাকে। 

How To Optimize Article Image

মনে রাখবেন আপনার কন্টেন্ট এ শুধু ইমেজ ব্যবহার করলেই হবে না। বরং ব্যবহার করা সেই ইমেজ গুলো যথেস্ট অপটিমাইজ করতে হবে।

কোনো আর্টিকেলে ব্যবহার করা ইমেজ কে অপটিমাইজ করার বেশ কিছু টিপস রয়েছে। সেগুলোর মধ্যে কিছু উল্লেখযোগ্য টিপস হলো, 

  • আর্টিকেলে ব্যবহার করা ইমেজের Alt tag, Caption যুক্ত করতে হবে। 
  • যথাসাধ্য চেস্টা করবেন ইমেজের সাইজ একটু কম রাখার জন্য। এসইও এক্সপার্টদের মতামত অনুযায়ী, আর্টিকেলে ব্যবহার করা ইমেজের সাইজ 50-100 kb এর মধ্যে থাকা ভালো। 
  • মনে রাখবেন, আপনি আপনার আর্টিকেলে যে সব ইমেজ ব্যবহার করবেন। সেই ইমেজ গুলো যেন আপনার আর্টিকেলের রিলেটেড হয়।
  • কোন প্রকার কপি ইমেজ ব্যবহার করা থেকে বিরত থাকবেন ৷ যেমন, অন্য কোনো ওয়েবসাইট থেকে ইমেজ ডাউনলোড করে তা আপনার আর্টিকেলে সরাসরি ব্যবহার করা থেকে বিরত থাকবেন।
  • চাইলে সেই ইমেজ গুলোকে আপনার ফোন বা কম্পিউটার থেকে ভালোভাবে Edit করে নিবেন। 

Make Eye Catching Title of You Article 

টাইটেল কোনো একটি কন্টেন্টের খুব গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে। আপনি আসলে কোন টপিক নিয়ে আর্টিকেল লিখছেন। আপনি কোন কিওয়ার্ডকে টার্গেট করে আর্টিকেল পাবলিশ করছেন।

Title আপনার আর্টিকেলের মূল সারসংক্ষেপ কে এক লাইনের মাধ্যমে প্রকাশ করে। তাই আপনার আর্টিকেল এর টাইটেলকে Eye Catching বা Clickebate করার চেস্টা করবেন।

এছাড়াও আমার লেখা অন পেজ এসইও আর্টিকেলটিতে স্পষ্টভাবে বলে দিয়েছি যে, ভিজিটর যখন গুগলে কোনো কিছু লিখে সার্চ করে ৷

তখন সার্চ ইঞ্জিন রেজাল্টে যে টাইটেল গুলো লোভনীয় হয়। ভিজিটর শুধুমাএ সেই লিংক গুলোকে ক্লিক করে থাকে। তাই আপনি আপনার কন্টেন্ট কে যতোবেশি গুরুত্ব দিবেন৷ ঠিক ততোটাই গুরুত্ব দিতে হবে আপনার কন্টেন্ট এর টাইটেলকে৷ 

How To Optimize Your Article Title

একটি কন্টেন্ট এর টাইটেল কতটা গুরুত্বপূর্ণ। আশা করি আপনি তা ভালোভাবে বুঝতে পেরেছেন। তাই কোনো একটি আর্টিকেলকে অপটিমাইজ করার জন্য অবশ্যই আপনার আর্টিকেলের টাইটেলকে অপটিমাইজ করতে হবে।

কোনো আর্টিকেলের টাইটেল কে অপটিমাইজ করার জন্য বেশ কিছু কৌশল রয়েছে৷ যেমন, 

  • Title এ সর্বোচ্চ ৫০-৬০ শব্দ ব্যবহার করার চেস্টা করবেন৷ 
  • অবশ্যই আপনার মূল কিওয়ার্ড আপনার টাইটেলে থাকতে হবে। 
  • আপনার Main Keyword এর সাথে সামন্জস্যতা রেখে আরও কিছু লোভনীয় শব্দ যুক্ত করতে হবে। 
  • টাইটেলে (|),(-) এই চিহ্ন গুলো ব্যবহার করতে পারবেন। 
  • আপনার টাইটেলে শব্দ চয়ন এমন হতে হবে। যেন আপনার মূল কিওয়ার্ডকে টার্গেট করে যেন কোনো প্রশ্ন করা বুঝায়। যেমন আপনার মূল কিওয়ার্ড যদি “Make Money Online”- হয়।তাহলে আপনার টাইটেল ” How to make money online” এমন হওয়া উওম। 

কিভাবে আপনার কন্টেন্ট এর টাইটেলকে আর্কষনীয় করবেন। সে বিষয়ে আমার ওয়েবসাইটে “অন পেজ এসইও “- এই আর্টিকেলে তা বিষদভাবে আলোচনা করা হয়েছে। আপনি চাইলে সেই আর্টিকেলটি পড়ে নিতে পারেন। 

Optimize Article Parmalink

অন্যান্য বিষয় গুলোর মতো একটি আর্টিকেলের Parmalink খুব গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে।

একটা বিষয় চিন্তা করে দেখুন, আমরা যখন গুগলে কোনো কিছু তথ্য জানার চেস্টা করি ৷ তখন একসাথে Tab এর মাধ্যমে বেশ কয়েকটি ওয়েবসাইট Open করে থাকি।

এক্ষেএে ভিজিটর যেন তার ব্রাউজারের Tab Option থেকে আপনার ওয়েবসাইট চিনে নিতে পারে। সেই দিকটিও আপনাকে বেশ নজরে রাখতে হবে।

এছাড়াও সার্চ ইঞ্জিন রেজাল্টে যখন আপনার ওয়েবসাইটের লিংক শো করবে। তখন আপনার আর্টিকেলের Title এর পরেই আপনার Permalink শো করে থাকে ৷

তাই আপনার আর্টিকেলের Parmalink কে গুরুত্বের সাথে অপটিমাইজ করতে হবে। 

How To Optimize Parmalink of Your Article 

আপনি খুব সহজেই আপনার আর্টিকেলের Parmalink কে অপটিমাইজ করতে পারবেন। যেমন, 

  • Parmalink কে যথাসম্ভব শর্ট করার চেস্টা করবেন। 
  • Url এ অবশ্যই আপনার Focus Keyword থাকতে হবে। 
  • আপনার আর্টিকেলের ইআরএল এর প্রতিটা শব্দের মধ্যে (-) চিহ্নটি ব্যবহার করতে হবে। 
  • ইউআরএল এ Ending জাতীয় শব্দ ব্যবহার করা থেকে বিরত থাকবেন। যেমন, আমার মূল কিওয়ার্ড যদি Seo friendly article হয়।তাহলে আমি ইউআরএল এ সরাসরি (seo-friendly-article) ব্যবহার করবো। 
  • (How/To/Of) এই জাতীয় শব্দ গুলোকে Parmalink এর Ending word বলা হয়ে থাকে। 

Optimize Description Of Article 

একটি আর্টিকেল কতটুকু এসইও ফ্রেন্ডলি হবে, তার অনেকটাই নির্ভর করবে আপনার আর্টিকেলের ডেসস্ক্রিপশন এর উপর ।

কারন, গুগল সার্চ রেজাল্টে যখন কেউ কোনো বিষয়ে সার্চ করে। তখন সবার আগে Title এরপর Url এবং সর্বশেষে ডেসস্ক্রিপশনকে শো করে।

এখন অর্গানিক ভিজিটরকে টার্গেট করতে হলে, অবশ্যই আপনার আর্টিকেল এর Description কে অপটিমাইজ করতে হবে। না হলে আপনার আর্টিকেল সার্চ ইঞ্জিনের Top Position এ থাকলেও আশানুরূপ ভিজিটর পাওয়া যাবে না। 

How To Optimize Article Description 

কিছু কিছু কৌশল আছে, যেগুলো অনুসরন করলে খুব সহজেই একটি কন্টেন্ট এর ডেসস্ক্রিপশনকে অপটিমাইজ করা সম্ভব। তাদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য কিছু কৌশল হলো,

  • ডেসস্ক্রিপশনে অবশ্যই আপনার Main Keyword থাকতে হবে। 
  • এছাড়াও আপনার আর্টিকেলের Description এ সেইসব শব্দ গুলোকে ব্যবহার করবেন। যে শব্দ গুলো আপনার LSI Keyword এর আওতায় পড়ে। 
  • মনে রাখবেন, আপনার ডেসস্ক্রিপশন ১৫০-২০০ শব্দের মধ্যে হওয়া ভালো৷ 

আপাততো এই কয়েকটি কৌশল অবলম্বন করলে, আপনি আপনার Description কে অপটিমাইজ করতে পারবেন। 

Avoid Keyword Density 

যদি আপনি কিওয়ার্ড ডেনসিটি এমন একটা বিষয়। যা আপনার কন্টেন্ট কে অপটিমাইজ করার ক্ষেএে বেশ প্রভাব ফেলবে। প্রথমে আপনাকে জানতে হবে, Keyword Density আসলে কি জিনিস। 

প্রশ্নঃ কিওয়ার্ড ডেনসিটি কি?

যখন আপনি আপনার আর্টিকেলে অধিক মাএায় Focus Keyword কে ব্যবহার করবেন। তখন তাকে বলা হয়,  Keyword Density. কোনো একটি আর্টিকেলকে এসইও ফ্রেন্ডলি করার জন্য অবশ্যই আপনাকে মেইন কিওযার্ডকে ব্যবহার করতে হবে। 

তবে মনে রাখবেন, আপনার মেইন কিওয়ার্ডকে আবার এতোবেশি ব্যবহার করা যাবে না। যার কারনে আপনার আর্টিকেল Ranking Up হওয়ার পরবর্তীতে Ranking Down হয়ে যায়।

আপনার জন্য আরো…

হ্যাঁ, এটা সত্য যে আর্টিকেলের মধ্যে মেইন কিওয়ার্ডকে ফোকাস রাখা উচিত। তবে এখানে আপনার মেইন কিওয়ার্ড ব্যবহারে কিছু সীমাবদ্ধতা থাকবে। এবং এই সীমাবদ্ধতা অবশ্যই মেনে চলতে হবে। 

যদি আপনি তা না মানেন,তাহলে গুগল মনে করবে আপনি তাদেরকে প্রেসার দিচ্ছেন। যেন গুগল আপনার আর্টিকেলকে Rank করায়। যা আপনার এসইওতে একেবারে নেগেটিভ ইফেক্ট ফেলবে। 

আমরা কি কি শিখলামঃ

আজকের এই আর্টিকেলে আমরা শিখেছি, “এসইও ফ্রেন্ডলি আর্টিকেল কি ” এবং “কেন আপনার আর্টিকেলকে এসইও ফ্রেন্ডলি করা উচিত”।

এছাড়াও একটি আর্টিকেলকে কি কি পদ্ধতি বা কৌশলের মাধ্যমে এসইও ফ্রেন্ডলি করা যায়।সে বিষয় গুলো আমরা আলাদা ভাবে স্টেপ বাই স্টেপ আলোচনা করেছি।

সবশেষে আমরা জেনেছি যে, কিওয়ার্ড ডেনসিটি কি। এবং কেন আপনার কিওয়ার্ড ডেনসিটিকে Avoid করা উচিত। 

আমাদের শেষকথাঃ

ইতিমধ্যে আমার ওয়েবসাইটে এসইও রিলেটেড অনেক আর্টিকেল পাবলিশ করা হয়েছে। আপনার প্রয়োজন হলে, সেই আর্টিকেল গুলো পড়ে নিতে পারবেন। 

এবং সেই ধারাবাহিকতায় কিভাবে এসইও ফ্রেন্ডলি আর্টিকেল লেখা যায়। সে সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করা হলো। 

তো এই আর্টিকেলটি পড়ার পর, যদি কোথাও বুঝতে না পারেন। কিংবা আমার দেয়া কোনো তথ্যে ভুল থাকে। তাহলে অবশ্যই কমেন্ট করে জানাবেন। আমি যথাসাধ্য চেস্টা করবো, আপনাদের হেল্প করার।

এসইও সম্পর্কে নতুন নতুন টিপস & ট্রিকস পেত চাইলে, বাংলা আইটি ব্লগের সাথে থাকবেন। ধন্যবাদ 

Related article

3 thoughts on “এসইও ফ্রেন্ডলি আর্টিকেল লিখার নিয়ম – বাংলা আইটি ব্লগ”

  1. নাইমুল ইসলাম

    আচ্ছা ভাই, অনলাইনে ইনকাম নিয়ে লেখালেখি করলে তা কি এডসেন্স এপ্রুভ করে না?

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই লেখা কপি করবেন না!
Scroll to Top
Share via
Copy link
Powered by Social Snap