ছবি এডিট করার apps – সেরা ছবি এডিট করার সফটওয়্যার 

ছবি এডিট করার apps : ফেসবুকের নিউজফিড স্ক্রল করতে করতে হঠাৎ করে দেখতে পেলেন আপনার কোনো এক বন্ধু তার মোবাইল থেকে চমৎকার একটা পিক আপলোড করেছে।

ছবি এডিট করার apps - সেরা ছবি এডিট করার সফটওয়্যার 
ছবি এডিট করার apps – সেরা ছবি এডিট করার সফটওয়্যার

আর সেই ছবিটি অনেক সুন্দর হওয়ার কারনে তার পোষ্টে অনেক পরিমানে লাইক, কমেন্ট এসেছে।

হয়তবা তখন আপনার মনে প্রশ্ন জাগতে পারে যে, আপনার বন্ধুটি কি করে এতো সুন্দর একটা পিক আপলোড করলো? তাহলে শুনুন…..

আপনার সেই বন্ধুটি তার মোবাইল ফোন দিয়ে পিক তুললেও। সে কিন্তুু সেই পিকচার গুলোকে বিভিন্ন ছবি এডিট করার সফটওয়্যার দিয়ে এতো বেশি আর্কষনীয় করতে পেরেছে। 

হুমমম! আপনি ঠিকই দেখেছেন। আজকের দিনে এমন অনেক ধরনের ছবি এডিট করার apps আছে।

যার মাধ্যমে আপনিও আপনার ফোন থেকে তো ছবি তুলবেন।

কিন্তুু এই ছবি এডিট করার সফটওয়্যার গুলোর মাধ্যমে আরও বেশি আর্কষনীয় করে তুলতে পারবেন।

তবে প্রশ্ন এখানে থেকেই যাচ্ছে যে, কোনো পিকচার কে আর্কষনীয় করে তোলার জন্য সেই ছবি এডিট করার সফটওয়্যার গুলোর নাম কি কি? 

অথবা ছবি ডিজাইন সফটওয়্যার নাম কি এবং কোথায় পাবো?

ওয়েট! ওয়েট! ওয়েট! আজকের আর্টিকেলটি মূলত সেই উদ্দেশ্যেই লেখা হয়েছে।

হ্যালো ভিয়ারস, স্বাগতম আপনাকে Bangla it blog এর নতুন একটি আর্টিকেলে।

আজকে আপনি বিশ্বের জনপ্রিয় কিছু ছবি এডিট করার apps এর সাথে পরিচিত হতে চলেছেন। যার মাধ্যমে আপনি যেকোনো পিকচার কে অনেক বেশি আর্কষনীয় করে তুলতে পারবেন। 

আপনি আরো দেখুন…

অনলাইনে এমন আরো অনেক  ছবি এডিট করার ওয়েবসাইট আছে যে গুলাকে অনলাইন ফটো এডিটর নামে পরিচিত।

তবে আজকে শুধু পিক এডিটের এপ নিয়ে কথা বলবো।

💡LOOK HERE: শুধু ছবি এডিট করার apps গুলো সম্পর্কে জানবেন। এবং প্রত্যেকটা ছবি এডিট করার সফটওয়্যার এর কি কি কাজ রয়েছে। সে সম্পর্কেও বিস্তারিত ভাবে জানতে পারবেন। 

কেন ফটো এডিট করবেন?

যেহুতু আমাদের আজকের আর্টিকেল এর মূল টপিক হলো ছবি এডিট করার সফটওয়্যার নিয়ে।

সেহুতু সবার আগে আপনাকে জেনে নিতে হবে যে, কেন আপনি ফটো এডিট করবেন। তাহলে পরবর্তী আলোচনা গুলো আপনার বুঝতে সুবিধা হবে।

তো আপনি আপনার মোবাইল ফোন দিয়ে যে ফটো গুলো তুলবেন। সেগুলো কিন্তুু খুব সাধারন মানের হয়ে থাকে।

এবং ছবি তোলার সময় আপনার পিকচারে যেসব অবজেক্ট ফোকাসে থাকে। আপনার পিকচারে শুধুমাএ সেইসব অবজেক্ট গুলোই দৃশ্যমান থাকবে।

কিন্তুু আপনি যদি সেই সাধারন ফটো গুলো কে এডিট করেন। তাহলে কিন্তুু আপনার ফটো গুলো পূর্বের তুলনায় অনেক বেশি আর্কষনীয় হবে।

অর্থ্যাৎ, একটি সাধারন পিকচার কে আপনি যখন এডিট করবেন৷ তখন সেই ছবিটি কে আরও মানসম্মত করা সম্ভব হবে।

যেমন, আপনি সাদাকালো একটি Background এর সামনে একটি ছবি তুললেন ৷

কিন্তুু কোনো একটা সময়ে আপনার মনে হলো যে, আপনার পেছনে একটা পাহাড়ের ছবি থাকলে অনেক ভালো লাগতো। এখন এই কাজটি আপনি খুব সহজেই করতে পারবেন ফটো এডিটিং এর মাধ্যমে।

এছাড়াও একটা বিষয় জেনে রাখা ভালো যে, আজকের দিনে Photo editing হলো বিরাট একটা সেক্টর।

যেখানে আপনি অন্যের ফটো এডিট করার মাধ্যমে অনলাইন থেকে বেশ ভালো পরিমান টাকা আয় করে নিতে পারবেন। তো এইসব কারন গুলোর জন্য আপনার অবশ্যই ফটো এডিটিং শেখা উচিত। 

আবার অনেকেই আছে যারা নাম এডিট সফটওয়্যার খোজে থাকে তারা এই কাজ গুলা নিচের এপ থেকে সহজেই নাম এডিট করতে পারবেন।

💡PRO TIPS: আজকের দিনে ফটো এডিট করার পর সেই ফটো গুলো কে অনলাইনে বিক্রি করেও প্রচুর পরিমান টাকা আয় করা সম্ভব। ফটো বিক্রি করে টাকা আয় করার উপায় জানতে নিচের আর্টিকেল পড়ুন।

তো যদি আপনি উপরোক্ত লিংকে থাকা আর্টিকেলটি পড়েন। তাহলে অনলাইনে ফটো বিক্রি করে টাকা ইনকাম নিয়ে আপনার মধ্যে একটা পরিস্কার ধারনা চলে আসবে। 

কিভাবে ফটো এডিট করতে হয়?

কেন আপনার ফটো এডিটিং শেখা উচিত। আশা করি উপরোক্ত আলোচনা থেকে আপনি বেশ ভালো ভাবে বুঝতে পেরেছেন।

তো এবার আপনার আরও একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় জেনে রাখা উচিত। সেটি হলো কিভাবে একটি ফটো এডিট করতে হয়। তো চলুন এবার সে নিয়ে একটা পরিস্কার ধারনা নেয়া যাক।

আপনি হয়ত ভাবতেছেন যে কিভাবে কম্পিউটার ফটো এডিটিং সফটওয়্যার ছাড়া মোবাইল দিয়ে সুন্দর করে ছবি এডিট করবেন।

তাহলে শুনুন… এখন মোবাইল দিয়ে অনেক সুন্দর সুন্দর ছবি সফটওয়্যার দিয়ে ডিজাইন করতে পারবেন।

যদি আপনি মানসম্মত ভাবে ফটো এডিট করতে চান। তাহলে আপনাকে এমন অনেক বিষয়ের দিকে বেশ গুরুত্ব দিতে হবে। যেমন,

  • কালার কনসেপ্ট (Colour Concept)
  • ফটো ব্যাকগ্রাউন্ড (Photo Background)
  • ব্যাকগ্রাউন্ড রিমুভ (Background Remove)
  • ম্যানুপুলেশন (Manipulation)

তো এগুলো ছাড়াও আরও এমন অনেক বিষয় রয়েছে। যেগুলো আমি পরবর্তী আলোচনা গুলো ধাপে ধাপে উল্লেখ করার চেস্টা করবো।

যদি আপনি সেই গুরুত্বপূর্ণ বিষয় গুলো সম্পর্কে জানতে চান ৷ তাহলে অবশ্যই পরবর্তী আলোচনা গুলো মনোযোগ সহকারে পড়বেন। 

ফটো এডিট করতে কি লাগে?

যদি আপনি মানসম্মত ভাবে ফটো এডিট করতে চান। তাহলে এমন বেশ কিছু ইকুইপমেন্ট আছে। যেগুলো অবশ্যই আপনার প্রয়োজন হবে।

এখন আপনি যদি এই বিষয় গুলো কে তেমন একটা গুরুত্ব না দেন ৷ তাহলে কিন্তুু আপনি প্রোপারলি কোনো একটি ফটো কে এডিট করতে পারবেন না।

তবে প্রশ্ন হলো যে, ফটো এডিট করার জন্য আপনার কি কি বিষয় এর প্রয়োজন হবে? – চলুন এবার সে সম্পর্কে বিস্তারিত জেনে নেয়া যাক। 

০১| ছবি এডিট করার সফটওয়্যার 

যদি আপনি ছবি এডিট করতে চান। তাহলে সবার আগে আপনার যে বিষয়টির প্রয়োজন হবে ৷ তা হলো আপনার অবশ্যই ছবি এডিট করার সফটওয়্যার এর প্রয়োজন হবে।

কেননা, আপনার নিকট যদি সফটওয়্যার না থাকে। তাহলে কিন্তুু আপনি এই কাজ গুলো সঠিকভাবে করতে পারবেন না।

কেননা, আজকের দিনে এমন অনেক ধরনের ছবি এডিট করার apps রয়েছে।

যেগুলোর মাধ্যমে আপনি আপনার পারসোনাল ডিভাইস থেকে যে কোনো ফটো এডিট করে নিতে পারবেন।

তাই সবার আগে আপনার ছবি এডিট করার সফটওয়্যার এর প্রয়োজন হবে। 

০২| একটি উপযুক্ত ডিভাইস 

ছবি এডিট করার সফটওয়্যার থাকার পাশাপাশি আপনার কাছে আরও একটি ইকুইপমেন্ট থাকতে হবে। সেটি হলো আপনার নিকট অবশ্যই একটি উপযুক্ত ডিভাইস থাকতে হবে।

কেননা, আপনার নিকট যদি কোনো ডিভাইস না থাকে৷ তাহলে কিন্তুু আপনি এই ছবি এডিট করার সফটওয়্যার গুলো ব্যবহার করতে পারবেন না।

এখন আপনার মনে আরও একটি প্রশ্ন জাগতে পারে৷ সেটি হলো এই যে ডিভাইস এর প্রয়োজন হবে।

সেটি কি ধরনের হতে হবে, অর্থ্যাৎ আপনার কি মোবাইল থাকতে হবে নাকি আপনার কাছে একটা ভালো মানের কম্পিউটার থাকতে হবে।

যদি আপনার মনে এই ধরনের প্রশ্ন জেগে থাকে। তাহলে শুনুন, এই ফটো এডিট করার কাজটি হলো বিরাট একটা সেক্টর। এখন যদি আপনি সাধারন ভাবে একটি ছবি কে এডিট করতে চান ৷

আপনি আরো পড়ুন…

তাহলে কিন্তুু আপনি আপনার হাতে থাকা Android Mobile দিয়েই এই কাজ গুলো করতে পারবেন ৷

তবে আপনি যদি প্রফেশনালি Photo Editing এর কাজ করতে চান।

তাহলে আপনার নিকট অবশ্যই একটি ভালো মানের কম্পিউটার থাকতে হবে। অন্যথায় আপনি প্রফেশনালি ফটো কে এডিট করতে পারবেন না। 

০৩| ফটো এডিট সম্পর্কে পূর্ণাঙ্গ ধারনা 

আপনি যদি কোনো একটি ফটো কে এডিট করতে চান। তাহলে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো আপনার মধ্যে অবশ্যই ফটে এডিট সম্পর্কে পূর্নাঙ্গ ধারনা থাকতে হবে।

কেননা, আপনার ভেতরে যদি এই সেক্টর সম্পর্কে ধারনা না থাকে। তাহলে কিন্তুু আপনি এতো বড় একটা সেক্টরে সঠিকভাবে কাজ করতে পারবেন না।

কেননা, আপনি যদি না জানেন যে একটি ফটো তে কিভাবে এডিটিং করলে উক্ত ফটো কে আর্কষনীয় করা যাবে ৷ তাহলে কিন্তুু আপনি এই সেক্টর কে সঠিক ভাবে ব্যবহার করতে পারবেন না।

তাই অবশ্যই আপনার পূর্বে থেকে Photo Edit সম্পর্কে পরিস্কার ধারনা থাকতে হবে। 

ফটো এডিট করার ভালো এপ্স কোনটি? 

আজকের দিনে আপনি যদি গুগলে গিয়ে সার্চ করেন যে “Best Photo Editing Apps For Android”- তাহলে আপনার সামনে এমন অনেক এপস এর লিষ্ট আসবে ৷

কিন্তুু এর ফলে আপনার মধ্যে একটা কনফিউশান তৈরি হয়ে যাবে। কেননা, এতো গুলো এপসের মধ্যে কোনটির মাধ্যমে ভালোভাবে কাজ করা যাবে।

আর কোনটি দিয়ে করা যাবে না, সেটা কিন্তুু আপনি বুঝতে পারবেন না।

কেননা, বর্তমান সময়ে এমন অনেক এপস ডেভলপার আছেন। যারা মূলত টাকা ইনকাম করার উদ্দেশ্য এমন Apps তৈরি করে থাকে।

কিন্তুু তারা তো ঠিকই ইনকাম করবে। তবে এরফলে আপনার অনেক লস হবে। কেননা, এই এপস গুলো ডাউনলোড এবং ইনস্টল করতে আপনাকে বেশ সময় ব্যয় করতে হবে।

এখন আপনি যদি কোনো প্রকারে ভূয়া ছবি এডিট করার সফটওয়্যার আপনার ফোনে ইনস্টল করেন। তাহলে কিন্তুু আপনার মনে একটা ভ্রান্ত ধারনা তৈরি হবে।

কিন্তুু আপনি যাতে কোনোভাবে ভূল এপস ইনস্টল না করেন।

সেই দিকটা বিবেচনা করে আপনাকে আমি এমন কিছু ছবি এডিট করার apps এর সাথে পরিচয় করিয়ে দিবো ৷

যার মাধ্যমে আপনিও অনেক আর্কষনীয় ভাবে ছবি এডিট করে নিতে পারবেন ৷

তো চলুন এবার জেনে নেয়া যাক, বর্তমান সময়ে ফটে এডিট করার জনপ্রিয় Apps কোন গুলো। 

ছবি এডিট করার সফটওয়্যার 

দেখতে দেখতে আপনি আর্টিকেল এর মূর টপিকে ফিরে এসেছেন। এতোক্ষন সময় ধরে আপনি ফটো এডিটিং নিয়ে অনেক অজানা বিষয় জানতে পেরেছেন।

আশা করি আপনি সেই বিষয় গুলো বেশ ভালোভাবে বুঝতে পেরেছেন।

তো এবার যে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়টি আপনাকে জানতে হবে। সেটি হলো আজকের দিনে জনপ্রিয় ছবি এডিট করার apps কোন গুলো।

বলে রাখা ভালো যে এখানে আমি শুধু মোবাইলে ছবি এডিট করার সফটওয়্যার এর লিস্ট গুলা আপনার জন্য শেয়ার করেছি।

তাহলে আর দেরী কেন৷ চলুন এবার সরাসরি উক্ত এপস গুলো সম্পর্কে বিস্তারিত জেনে নেয়া যাক। 

০১| Picsart (Photo Editor Apps)

যারা মূলত মোবাইল দিয়ে ফটো এডিটিং এর কাজ করে। তারা অবশ্যই এই Picsart নামক এপসটি সম্পর্কে জেনে থাকবে।

কেননা, আজকের দিনে সবচেয়ে জনপ্রিয় Mobile Photo Editing Apps হলো Picsart. কেননা, এই এপসে যে পরিমান ফিচার দেওয়া আছে।

তা আমার দেখামতে অন্যান্য এপস গুলোতে খুব কম ই দেয়া থাকে।

আর সে কারনেই মূলত বর্তমান সময়ে বেশিরভাগ ইউটিউবার তাদের থাম্বনেইল তৈরি করার জন্য এই এপসটি কে ব্যবহার করে থাকে।

আর সবচেয়ে মজার বিষয় হলো, এই এপসের বেশিরভাগ ফিচার আপনি বিনামূল্যে ব্যবহার করতে পারবেন।

আর আপনি যদি আরও বেশি প্রফেশনাল ফিচার ব্যবহার তৈরি করতে চান। তাহলে আপনাকে পেইড মেম্বারশিপ নিতে হবে।

উক্ত এপসে আপনি এমন অনেক ফিচার দেখতে পারবেন।

যেমন, Cutout, Cropping Feature, Stretch, Stylish text, Custom Font সহো অনেক অনেক ফিচার দেখতে পারবেন।

যে ফিচার গুলোর মাধ্যমে আপনি খুব সহজেই আপনার ছবি কে নিচের চাহিদা মতো এডিট করে নিতে পারবেন। 

০২| Lightroom (Make Photo Colourful)

আমি উপরের আলোচনায় একটি কথা বলেছি। তা হলো একটি ফটো কে সঠিকভাবে এডিট করার জন্য অবশ্যই আপনার কালার সম্পর্কে সঠিক কনসেপ্ট থাকতে হবে।

অর্থ্যাৎ, কোনো একটি ফটো তে কি কি কালার দিলে উক্ত ছবিটি আরও বেশি আর্কষনীয় করা যাবে। সেটাকেই বলা হয়ে থাকে Colour Concept.

আর সত্যি বলতে কোনো একটি ছবিকে ফুটিয়ে তোলার জন্য এটি বেশ গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয়।

আর এই গুরুত্বপূর্ণ কাজটি আপনি মাএ কয়েক ক্লিকের মাধ্যমে করতে পারবেন Lightroom নামক একটি এন্ড্রয়েড এপস এর মাধ্যমে।

কেননা, এই এপসটিতে আপনি যে পরিমান কালারিং ফিচার দেখতে পারবেন। তা আপনি অন্য কোনো ছবি এডিট করার সফটওয়্যার এ দেখতে পারবেন না।

মূলত এই এপসটি কে এই বিষয়টির উপর ভিওি করেই ডিজাইন করা হয়েছে।

তাই চাইলে আপনিও যেকোনো ছবি কে কালার ফুল করার জন্য উক্ত এপস টিকে ব্যবহার করে দেখতে পারেন ৷

উক্ত ছবি এডিট করার apps এ আপনি ছবি কে কালার ফুল করার জন্য বিভিন্ন ধরনের ফিচার দেখতে পারবেন।

যার মাধ্যমে আপনি শুধু কয়েকটা ক্লিক করবেন। আর আপনার ছবি গুলো অটোমেটিক বিভিন্ন কালার এর সম্বন্বয়ে অনেক বেশি আর্কষনীয় হয়ে উঠবে। 

০৩| Prisma (Photo To Cartoon) 

আমাদের মধ্যে এমন অনেক মানুষ আছেন। যারা চায় তাদের নিজের ছবি গুলো কার্টুন ফেস এ তৈরি করতে। তো এইসব মানুষ গুলোর জন্য চমৎকার একটি এপস হলো Prisma.

কেননা, এই এপস এর মাধ্যমে আপনি মাএ একটি ক্লিক করবেন। আর সাথে সাথে আপনার সিলেক্ট করা ছবিটি অটোমেটিক ভাবে Cartoon এ পরিনত হয়ে যাবে।

তবে অন্যান্য এপস গুলোতে ছবি এডিট করার জন্য আপনাকে যে পরিমান শ্রম দিতে হবে। তার চুল পরিমান শ্রম দেয়ার প্রয়োজন হবে না।

যদি আপনি Prisma নামক এই এপসটি ব্যবহার করেন। কেননা, উক্ত এপসে আপনি শুধু পিক সিলেক্ট করে দিবেন৷ আর বাকি কাজ গুলো এই এপসটি নিজে থেকেই করে নিবে।

কিন্তুু অন্যান্য ছবি এডিট করার সফটওয়্যার গুলো তে আপনি অফলাইনে কাজ করতে পারলেও Prisma Apps এ আপনাকে নেট কানেকশন চালু করে কাজ করতে হবে।

আর আপনি যদি বিনামূল্যে এই এপসটি ব্যবহার করেন। তাহলে আপনি এই এপসে অনেক কম ফিচার ব্যবহার করতে পারবেন।

আর আপনি যদি বেশি পরিমানে Feature ব্যবহার করতে চান। তাহলে আপনাকে পেইড মেম্বারশিপ নেয়ার প্রয়োজন হবে। 

০৪| Pixlr (Best Photo Editor Apps)

আজকের আর্টিকেল এর সর্বশেষ এপস এর নাম হলো Pixlr. যার মাধ্যমে আপনি মোবাইল দিয়েই অনেক প্রফেশনাল মানের ফটো এডিট করতে পারবেন।

আর আপনার মতো এমন অনেক মানুষ আছেন। যারা মূলত ছবি এডিট করার apps হিসেবে এই এপসটি কে ব্যবহার করে থাকে।

সবচেয়ে মজার বিষয় হলো, এই এপসটি আপনি একেবারে বিনামূল্যে ব্যবহার করতে পারবেন।

অর্থ্যাৎ উক্ত এপসে যে পরিমান ফিচার রয়েছে৷ সেগুলো ব্যবহার করার জন্য আপনাকে কোনো প্রকার পে করতে হবে না।

তাছাড়া উক্ত এপসে আপনি অনেক প্রফেশনাল মানের ফিচার দেখতে পারবেন।

আপনার জন্য আরো লেখা…

যেমন, Colour Gradient, Photo Filter, Effect, Cropping Tools, Custom Font সহো অনেক ধরনের ফিচার রয়েছে।

তাই আপনি একবার হলেও উক্ত এপস টি ব্যবহার করে দেখতে পারবেন। 

Best Photo Editing Apps List For Android 

উপরে আলোচিত ছবি এডিট করার সফটওয়্যার ছাড়াও এমন আরও অনেক ছবি এডিট করার apps রয়েছে। যেগুলো আজকের দিনে জনপ্রিয়তার শীর্ষে অবস্থান করে আছে।

কিন্তুু আমি যদি একটি একটি করে সবগুলো এপস সম্পর্কে বিস্তারিত বলি। তাহলে আর্টিকেলটি অনেক বেশি বড় হয়ে যাবে।

তাই নিচে আপনাকে কিছু জনপ্রিয় ছবি এডিট করার apps List দিলাম। আপনি আপনার পছন্দ মতো যেকোনো এপস কে ব্যবহার করে দেখতে পারবেন।

  • Snapseed
  • Photo Editor Pro
  • Photoshop
  • Photo director
  • Youcam Perfect
  • Adobe Lightroom
  • PHOTOGENICS
  •  LightX
  • Camera 360

উপরে যে Photo Editing Apps List দেওয়া হয়েছে। সেগুলো আজকের দিনে অনেক বেশি জনপ্রিয়।

তাই আপনি উপরের যে কোনো এপস গুলো ফটো এডিট করার জন্য ব্যবহার করে দেখতে পারবেন ৷ 

ছবি এডিট করার সফটওয়্যার নিয়ে আমাদের শেষকথা 

আজকের এই আর্টিকেলে আমি বিশ্বের সেরা কিছু ছবি এডিট করার সফটওয়্যার নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করেছি।

আশা করি আজকের আলোচিত ছবি এডিট করার apps গুলো আপনার অনেক বেশি ভালো লেগেছে ।

তবে এরপরও যদি আপনার আরও কোনো ছবি এডিট করার apps সম্পর্কে বিস্তারিত জানার থাকে।

তাহলে কমেন্ট করে জানাবেন ৷ আমি আপনার কমেন্ট পাওয়মাএ এই আর্টিকেল কে পুনরায় আপডেট করে দিবো।

Bangla it blog এর সাথে থাকার জন্য আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই লেখা কপি করবেন না!
Scroll to Top
Share via
Copy link
Powered by Social Snap