নতুন অনলাইন চ্যাটিং অ্যাপ গুলোর তালিকা – (চ্যাটিং অ্যাপস)

অনলাইন চ্যাটিং অ্যাপ : Latest Online Chatting Apps. যদি এখন আপনাকে অনলাইন চ্যাটিং অ্যাপ এর কথা জিজ্ঞেস করা হয়।

নতুন অনলাইন চ্যাটিং অ্যাপ গুলোর তালিকা – (চ্যাটিং অ্যাপস)
নতুন অনলাইন চ্যাটিং অ্যাপ

তাহলে অবশ্যই আপনি মেসেঞ্জার এর কথা বলবেন। কেননা মেসেঞ্জার হল এমন একটি অনলাইন চ্যাটিং অ্যাপ যেটা অধিকাংশ সময় আমরা ব্যবহার করে থাকে।

কিন্তু আপনি জানলে অবাক হয়ে যাবেন যে, মেসেঞ্জার বাদেও এমন অনেক ধরনের অনলাইন চ্যাটিং অ্যাপ রয়েছে।

যে গুলো আপনি ফেসবুক মেসেঞ্জার এর মত ব্যবহার করতে পারবেন।

এই ধরনের অনলাইন চ্যাটিং অ্যাপস এর সাহায্য আপনি কোন প্রকার ঝামেলা ছাড়াই ভিডিও কল, অডিও কল করতে পারবেন।

এর পাশাপাশি আমরা যেভাবে মেসেঞ্জারে আমাদের মেসেজ গুলো আদান প্রদান করি। ঠিক একই ভাবে আপনি অনলাইন চ্যাটিং অ্যাপ গুলোর মধ্যে এই কাজটি করতে পারবেন।

আপনার জন্য আরোও আছে…

আর অবাক করার মত বিষয় হলো, আপনি যদি এই ধরনের অনলাইন চ্যাটিং অ্যাপ গুলো ব্যবহার করেন।

তাহলে কিন্তু আপনি একবারে বিনামূল্যে ব্যবহার করতে পারবেন। সেক্ষেত্রে আপনাকে অর্থ ব্যয় করার প্রয়োজন পড়বে না।

চ্যাটিং অ্যাপ কি? | What is chatting App?

আজকের এই গুরুত্বপূর্ণ আলোচনার মাধ্যমে আমি আপনাকে অবশ্যই সেরা কিছু অনলাইন চ্যাটিং অ্যাপ এর তালিকা প্রদান করব।

তবে তার আগে আপনাকে জানতে হবে যে, এই চ্যাটিং অ্যাপ আসলে কি (chatting App ki)। চলুন সবার শুরুতেই এই বিষয় টি সম্পর্কে একটু ধারণা নেয়া যাক।

যাতে করে পরবর্তী আলোচনা গুলো আপনার বুঝতে সুবিধা হয়। সহজ ভাষায় বলতে গেলে, চ্যাটিং (Chatting) মানে হল গল্প করা।

আর বর্তমান সময় অনলাইনে আপনি বিভিন্ন ধরনের চ্যাটিং অ্যাপ দেখতে পারবেন। তো এই ধরনের অ্যাপস গুলো দিয়ে আপনি আপনার পরিচিত কিংবা অপরিচিত ব্যক্তিদের সাথে যোগাযোগ রাখতে পারবেন।

সেই ব্যক্তি গুলোর সাথে প্রয়োজন অনুসারে ছবি কিংবা ফাইল শেয়ার করতে পারবেন। সেই সাথে মেসেজের মাধ্যমে আপনারা আপনাদের যোগাযোগ রাখতে পারবেন।

তো যে অ্যাপস গুলোর মাধ্যমে এই ধরনের চ্যাটিং করা যায়। একে অপরের সাথে যোগাযোগ করা যায় এবং প্রয়োজনে কিংবা অপ্রয়োজনে ভিডিও এবং অডিও কল করা যায়।

সেই ধরনের অ্যাপস গুলো কে বলা হয়ে থাকে অনলাইন চ্যাটিং অ্যাপ।

আশা করি এই বিষয় টি সম্পর্কে আপনি পরিষ্কার ধারণা পেয়ে গেছেন। চলুন এবার অন্যান্য বিষয় গুলো জেনে নেওয়া যাক।

কেন চ্যাটিং অ্যাপ ব্যবহার করবেন?

অনলাইন চ্যাটিং অ্যাপ কি সে সম্পর্কে আপনি উপরের আলোচনায় বিস্তারিত জানতে পেরেছেন।

তো এই বিষয়টি জানার পাশাপাশি এবার আপনাকে গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয় সম্পর্কে জানিয়ে দিবো।

আর সেই বিষয় টি হল, আপনি কেন চ্যাটিং অ্যাপ ব্যবহার করবেন। অর্থাৎ এমন কোন কারণ গুলো রয়েছে, যে কারণ গুলোর জন্য আপনার চ্যাটিং অ্যাপ ব্যবহার করা উচিত।

চলুন এবার তাহলে সেই চ্যাটিং অ্যাপ ব্যবহার করার কারণ গুলো সম্পর্কে জেনে নেওয়া যাক।

  1. একে অপরের সাথে যোগাযোগ অক্ষুন্ন রাখার জন্য চ্যাটিং অ্যাপ এর প্রয়োজন হয়ে থাকে।
  2. দূর দূরান্তে থাকা মানুষের সাথে কথা বলার জন্য এই ধরনের অনলাইন চ্যাটিং অ্যাপ দরকার হয়।
  3. নিজের প্রয়োজনে ভিডিও কিংবা ছবির মত ফাইল গুলো এক স্থান থেকে অন্য স্থানে খুব দ্রুত স্থানান্তর করা যায়।
  4. দূর দুরান্ত থাকা মানুষদের সাথে চ্যাটিং অ্যাপ এর মাধ্যমে ভিডিও কল কিংবা অডিও কলে কথা বলা যায়।
  5. আর এই ধরনের চ্যাটিং অ্যাপ গুলো ব্যবহার করার জন্য কোন ধরনের অর্থ ব্যয় করার প্রয়োজন হয় না।

এমন কোন কারণ গুলো রয়েছে, যে কারণ গুলোর জন্য আপনার অনলাইন চ্যাটিং অ্যাপ ব্যবহার করা উচিত। সেই কারণ গুলো আমি উপরে উল্লেখ করেছি।

যেখানে আমি আপনাকে পরিষ্কার ভাবে বুঝিয়ে দিয়েছি যে, কেন চ্যাটিং অ্যাপ ব্যবহার করবেন।

এবং আশা করি এই আলোচনা থেকে আপনি উক্ত বিষয় টি সম্পর্কে পরিষ্কার ধারণা নিতে পেরেছেন।

সেরা অনলাইন চ্যাটিং অ্যাপ – (Latest Online Chatting Apps)

আমরা যারা ফেসবুক কিংবা মেসেঞ্জার ব্যবহার করি। তারা অনেকেই মনে করি যে, মেসেঞ্জার বাদে আর কোন ধরনের অনলাইন চ্যাটিং অ্যাপ নেই।

তো আপনি যদি এই বিষয় টি মনে করে থাকেন, তাহলে আপনার ধারণা সম্পূর্ণ ভুল। কেননা মেসেঞ্জার বাদেও এমন অনেক ধরনের অনলাইন চ্যাটিং অ্যাপ রয়েছে।

যে গুলোর মাধ্যমে আপনি মেসেঞ্জারের চাইতেও বেশি সুবিধা ভোগ করতে পারবেন। তো এখন জানার বিষয় হলো যে, সেই অনলাইন চ্যাটিং অ্যাপ গুলো কি।

চলুন এবার তাহলে সেই অনলাইন চ্যাটিং অ্যাপ গুলো সম্পর্কে বিস্তারিত জেনে নেওয়া যাক।

উইচ্যাট (WeChat)

বর্তমান সময়ে আমরা অধিকাংশ মানুষ ফেসবুক কিংবা মেসেঞ্জার ব্যবহার করে থাকি। তো আপনি যদি মেসেঞ্জার এরপরে জনপ্রিয় কোন অনলাইন চ্যাটিং এপ এর কথা চিন্তা করেন।

তাহলে সবার প্রথমে যে নামটি আসবে সেটি হল, উইচ্যাট (WeChat). আর আপনি যদি আমাদের পার্শ্ববর্তী দেশ ভারতের কথা চিন্তা করে দেখেন।

তাহলে আপনি স্পষ্টভাবে লক্ষ্য করতে পারবেন যে, ভারতের মধ্যে এই উইচ্যাট নামক অনলাইন চ্যাটিং অ্যাপ টি ব্যাপকভাবে জনপ্রিয়তা অর্জন করতে পেরেছে।

তবে আপনি যদি অনলাইন চ্যাটিং করার জন্য উইচ্যাট ব্যবহার করেন। তাহলে আপনি বেশ কিছু সুবিধা ভোগ করতে পারবেন।

যেমন, এই অ্যাপস টি মূলত টুজি কিংবা থ্রিজি দুই ধরনের নেটে খুব ভালো কাজ করতে পারে। এর পাশাপাশি এই অ্যাপস এর বিশেষ একটি গুনাগুন রয়েছে।

আর সেটি হলো এর পেমেন্ট মেথড খুবই শক্তিশালী। অর্থাৎ ভবিষ্যতে এই অনলাইন চ্যাটিং অ্যাপ টি ভিসা, মাস্টার কার্ড কিংবা আমেরিকান এক্সপ্রেস এর মত প্রতিষ্ঠানে পরিণত হতে পারে।

ভাইবার (Viber)

Viber এটি হল অনলাইন এর মধ্যে অনেক উন্নত এবং ফিচার সমৃদ্ধ একটি অনলাইন চ্যাটিং অ্যাপ। আর আপনি যদি ইউরোপের দেশ গুলোর দিকে লক্ষ্য করেন।

তাহলে দেখতে পারবেন যে, সেই দেশের মানুষেরা নিজেদের মধ্যে যোগাযোগ রাখার জন্য। ভাইবার নামক এই অনলাইন চ্যাটিং অ্যাপ কে ব্যবহার করে থাকে।

এর পাশাপাশি আপনি যদি গুগল প্লে স্টোরে ভাইবার এর ডাউনলোড দেখেন।

তাহলে দেখতে পারবেন, বর্তমান সময়ে ভাইবার এর এক বিলিয়ন এর মত ব্যবহারকারী রয়েছে। যা সত্যি অবাক করে দেয়ার মত।

তো যখন আপনি ভাইবার নামক এই অনলাইন চ্যাটিং অ্যাপ টি ব্যবহার করবেন। তখন এটি ব্যবহার করার জন্য আপনাকে কোন প্রকারের অর্থ প্রদান করতে হবে না।

এবং আপনি বিনামূল্যে এই অ্যাপস এর মাধ্যমে আপনার পরিচিত কিন্তু অপরিচিত কাছের কিংবা দূরের মানুষের সাথে যোগাযোগ রাখতে পারবেন।

কেননা এই অ্যাপসের মাধ্যমে আপনি চাইলে টেক্সট, ভিডিও এবং অডিও কল করতে পারবেন।

আর অন্যান্য অনলাইন চ্যাটিং অ্যাপ গুলোর তুলনায় ভাইবার এর মধ্যে অনেক বড় সাইজের ভিডিও আদান প্রদান করা যায়।

টক্স (Tox)

এই অনলাইন চ্যাটিং অ্যাপ এর নামটি একটু নতুন মনে হতে পারে। তবে এই অ্যাপটি একবারে নতুন হলেও আপনি কিন্তু খুব সহজেই উক্ত অ্যাপসের মাধ্যমে।

আপনার পরিচিত মানুষদের সাথে চ্যাটিং করতে পারবেন। আর অবাক করার মতো বিষয় হলো, যখন আপনি চ্যাটিং করার জন্য এই টক্স নামক অ্যাপটি ব্যবহার করবেন।

তখন আপনার কোন ধরনের ট্রাকিং পদ্ধতি খুঁজে পাবেন না।

অর্থাৎ আপনি যে সকল তথ্য আদান-প্রদান করবেন, যে মেসেজ গুলো দিবেন। সে গুলো কিন্তু কখনোই ট্রাকিং করে পাওয়া সম্ভব হবে না।

এতে করে আপনি ব্যক্তিগত ভাবে আলাদা একটা নিরাপত্তা পাবেন।

তবে চাইলে একজন ব্যবহারকারী খুব সহজেই এই টক্স নামক অনলাইন চ্যাটিং অ্যাপটি ব্যবহার করতে পারবে। এর পাশাপাশি যখন আপনি উক্ত এপটি ব্যবহার করবেন।

তখন আপনি আরও বিশেষ কিছু ফিচার দেখতে পারবেন। তার মধ্যে অন্যতম হলো, এই অ্যাপস এর মধ্যে থাকা এনক্রিপ্টেড সিস্টেম।

যার মাধ্যমে আপনি নিরাপত্তার সাথে আপনার পরিচিত মানুষদের মধ্যে তথ্য আদান প্রদান করতে পারবেন।

এর পাশাপাশি রয়েছে ভিডিও কল, অডিও কল করার বিশেষ সুবিধা।

এবং আপনি চাইলে নিজস্ব ফন্ট এর মাধ্যমে এই অ্যাপ কে নিজের মতো করে ব্যবহার করতে পারবেন। যা আপনার কাছেও অনেক বেশি ভালো লাগবে।

টেলিগ্রাম (Telegram)

এতক্ষণ ধরে আপনি বিভিন্ন ধরনের অনলাইন চ্যাটিং অ্যাপ সম্পর্কে জেনেছেন। তো এবার আমি আপনাকে চমৎকার একটি অ্যাপ এর সাথে পরিচয় করিয়ে দিব।

যে অ্যাপ টি ব্যবহার করার জন্য কোন প্রকার অর্থ ব্যয় করার প্রয়োজন হয় না। এর পাশাপাশি আপনি এই অ্যাপটি সম্পূর্ণ বিজ্ঞাপন মুক্ত হিসেবে ব্যবহার করতে পারবেন।

কারণ এই অ্যাপটি ব্যবহার করার সময় আপনাকে কোন ধরনের বিজ্ঞাপন দেখানো হবে না।

সেই সাথে উক্ত অ্যাপস এর মধ্যে আপনি যথেষ্ট নিরাপত্তার সহীত আপনার গুরুত্বপূর্ণ তথ্য আদান প্রদান করতে পারবেন।

কেননা এই অ্যাপটি হলো সম্পূর্ণ এনক্রিপ্টেড অর্থাৎ এখানে কোন ধরনের ট্রাকিং পদ্ধতি নাই।

এছাড়াও আপনি যখন এই অনলাইন চ্যাটিং অ্যাপ টি ব্যবহার করবেন।

তখন আপনি লক্ষ্য করতে পারবেন যে, টেলিগ্রাম এর মধ্যে থাকা একটি চ্যাটিং গ্রুপে ২ লক্ষ পর্যন্ত মেম্বার যুক্ত করতে পারবেন।

যা আসলে সত্যি অবাক করে দেয়ার মত। এবং এই সুবিধাটি আপনি অন্যান্য কোন অনলাইন চ্যাটিং অ্যাপ এর মধ্যে পাবেন না।

সেইসাথে উক্ত অ্যাপস এর মধ্যে আপনি পরিষ্কার ভাবে অডিও এবং ভিডিও কল করতে পারবেন।

এর পাশাপাশি আপনি চাইলে আপনার কাছে থাকা ছবি, ভিডিও, আপনি অন্যান্য ব্যক্তিদের সাথে টেলিগ্রামের মাধ্যমে শেয়ার করতে পারবেন।

হাইক (Hike)

এখন যদি আপনাকে জিজ্ঞেস করা হয় যে, বলুন তো একটি অনলাইন চ্যাটিং অ্যাপ এর মাধ্যমে কি কি কাজ করা যায়।

আর সেই প্রশ্নের উত্তরে অবশ্যই আপনি বলবেন যে, ভিডিও কল, অডিও কল সহ, টেক্সট মেসেজ আদান প্রদান করা যায়।

তো এর বাইরেও যদি আপনি বাড়তি কিছু সুবিধা ভোগ করতে চান।

তাহলে আপনাকে হাইক নামক এই অনলাইন চ্যাটিং অ্যাপ টি ব্যবহার করতে হবে।

কেননা এই অনলাইন চ্যাটিং অ্যাপ এর মাধ্যমে আপনি শুধুমাত্র ভিডিও কল কিংবা অডিও কল করার পাশাপাশি। আপনি বিভিন্ন ধরনের খবর সম্পর্কে জানতে পারবেন।

যেটা আপনি অন্যান্য কোন চ্যাটিং অ্যাপ এর মধ্যে খুঁজে পাবেন না। যেমন ধরুন, আপনি ক্রিকেট খেলা দেখতে ভালোবাসেন।

আপনি আরোও দেখতে পারেন…

এখন এই ক্রিকেট খেলার যাবতীয় আপডেট গুলো জানার জন্য। আপনাকে আর অন্য কোন অ্যাপস কিংবা ব্রাউজার এর মধ্যে প্রবেশ করতে হবে না।

বরং আপনার ফোনের মধ্যে যদি হাইক নামক এই অনলাইন চ্যাটিং অ্যাপ টি ইন্সটল করা থাকে। তাহলে আপনি এই অ্যাপসের মাধ্যমে যাবতীয় আপডেট খবর গুলো সম্পর্কে জানতে পারবেন।

এর পাশাপাশি একটি অনলাইন চ্যাটিং এপ এর মধ্যে যে সকল গুনাবলী থাকার প্রয়োজন হয়। তার সকল কিছুই আপনি এই হাইক নামক অ্যাপস এর মধ্যে পাবেন।

থ্রিমা (Threema)

এতক্ষণের আলোচনার মাধ্যমে আমি আপনাকে বিভিন্ন ধরনের এনক্রিপ্টেড অনলাইন চ্যাটিং এপ্স এর কথা বলেছি।

তো এবার আমি আপনাকে আরও একটি সুরক্ষিত অনলাইন চ্যাটিং অ্যাপ এর কথা বলব। যে অ্যাপের নাম হলো, থ্রিমা। কেননা এটি হল একটি ওপেন সোর্স অনলাইন চ্যাটিং অ্যাপ।

এবং এই অ্যাপ টি মূলত সুইজারল্যান্ড থেকে পরিচালনা করা হয়ে থাকে। যার ফলে আপনি যখন চ্যাটিং করার জন্য এই অ্যাপ টি ব্যবহার করবেন।

তখন আপনি বাড়তি কিছু নিরাপত্তা সুবিধা করতে পারবেন। তবে দুঃখজনক হলেও সত্য যে, এই অ্যাপস এর মধ্যে এত বেশি ফিচার রয়েছে।

যেগুলো ব্যবহার করার জন্য আপনাকে অর্থ ব্যয় করার প্রয়োজন হবে। অর্থাৎ এতক্ষণ ধরে আমি যে সকল অনলাইন চ্যাটিং অ্যাপ নিয়ে কথা বলেছি।

সে গুলো ব্যবহার করার জন্য আপনাকে কোন প্রকার অর্থ ব্যয় করার প্রয়োজন পড়বে না। কিন্তু আপনি যদি থ্রিমা নামক এই অনলাইন চ্যাটিং অ্যাপ ব্যবহার করেন।

তাহলে বিশেষ কিছু সুবিধা ভোগ করতে পারবেন। আর এই সুবিধা গুলো ভোগ করার জন্য অবশ্যই আপনাকে টাকা দেয়ার প্রয়োজন পড়বে।

তো যেহেতু আপনি আপনার অর্থ ব্যয় করে এই অ্যাপ টি ব্যবহার করবেন। সেহুতু এই অ্যাপসের মধ্যে আপনি আরো অনেক বেশি সুবিধা ভোগ করতে পারবেন এটাই স্বাভাবিক।

তো যদি আপনার অর্থ ব্যয় করার মত সামর্থ্য থাকে। তাহলে আপনি এই অনলাইন চ্যাটিং অ্যাপ টি ব্যবহার করে দেখতে পারেন।

জিওচ্যাট (Jiochat)

আপনি হয়তো বা জেনে থাকবেন যে, ভারতের মধ্যে রিলায়েন্স নামক একটি বিশাল ইন্ডাস্ট্রি রয়েছে।

আর তাদের তৈরি করা বিশেষ এক ধরনের অনলাইন চ্যাটিং অ্যাপ হল, জিওচ্যাট। যেটা মূলত ভারতের মধ্যে ব্যাপক হারে জনপ্রিয়তা অর্জন করতে পেরেছে।

কারণ আপনি যদি এই অ্যাপটি আপনার ফোনের মধ্যে ইন্সটল করে রাখেন।

তাহলে আপনি একবারে এইচডি কোয়ালিটি তে আপনার প্রিয় মানুষ গুলোর সাথে ভিডিও কিংবা অডিও কলে কথা বলতে পারবেন।

এর পাশাপাশি যখন আপনার গুরুত্বপূর্ণ ফাইল গুলো আদান-প্রদান করার প্রয়োজন হবে।

তখন আপনি এই কাজটি জিওচ্যাট নামক online chating app এর মাধ্যমে খুব সহজেই করতে পারবেন।

এর পাশাপাশি এই অ্যাপ টি শুধুমাত্র চ্যাটিং করার কাজে ব্যবহার করা হয় বিষয়টা আসলে এমন নয়।

রং যখন আপনার ফোনের মধ্যে এই অ্যাপ টি ইন্সটল করা থাকবে। তখন আপনি বিভিন্ন ধরনের আপডেট নিউজ গুলো সবার আগে জেনে নিতে পারবেন।

যেমন, বিভিন্ন ধরনের খেলা ধুলার নিউজ, আপকামিং মুভির নিউজ ইত্যাদি খবর গুলো সবার আগে জেনে নিতে পারবেন।

এর পাশাপাশি এই অ্যাপস এর মাধ্যমে খুব লো ইন্টারনেটের মাধ্যমেও খুব ভালো ভাবে অডিও এবং ভিডিও কলে কথা বলা সম্ভব।

যেটা আপনার কাছে অনেক বেশি ভালো লাগবে।

সিগন্যাল (Signal)

আজকের আলোচনার সর্বশেষ অনলাইন চ্যাটিং অ্যাপ এর নাম হলো, সিগন্যাল। মূলত এটি গোটা পৃথিবীর মধ্যে কার্যকরী একটি অনলাইন চ্যাটিং অ্যাপ।

এবং পৃথিবীর অনেক মানুষ তাদের ব্যক্তিগত তথ্য আদান-প্রদান সহো। ভিডিও কল এবং অডিও কল করার জন্য এই সিগন্যাল নামক অনলাইন চ্যাটিং অ্যাপ টি ব্যবহার করে থাকে।

আর অবাক করার মত বিষয় হলো যে, আপনার কাছে এন্ড্রয়েড ফোন থাকলে আপনি এই অনলাইন চ্যাটিং ব্যবহার করতে পারবেন।

অথবা আপনি চাইলে পিসি ভার্সনের মধ্যেও এই অনলাইন চ্যাটিং অ্যাপটি ডাউনলোড করে ব্যবহার করতে পারবেন।

সেই সাথে উক্ত অ্যাপস টি আপনার ব্যক্তিগত তথ্য গোপনীয়তার দিক থেকে যথেষ্ট গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে।

Best Online Chatting App List 

আর্টিকেলের শুরু থেকে এখন পর্যন্ত আমি আপনাকে বিভিন্ন ধরনের অনলাইন চ্যাটিং অ্যাপ এর সাথে পরিচয় করিয়ে দিয়েছি।

তো আশা করি এই অ্যাপস গুলো আপনার অনেক বেশি ভালো লাগবে। তবে এর বাইরেও আপনি আরো অনেক ধরনের অনলাইন চ্যাটিং অ্যাপ সম্পর্কে জানতে পারবেন।

তবে এখন যদি আমি প্রত্যেক টা অ্যাপ নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করি। তাহলে এই আর্টিকেলের সাইজ অনেক বড় হয়ে যাবে।

সে কারণে এবার আমি আপনাকে সেরা অনলাইন চ্যাটিং অ্যাপ এর তালিকা প্রদান করব।

যেখান থেকে আপনি সকল ধরনের অ্যাপ গুলো সম্পর্কে জেনে নিতে পারবেন। যেমনঃ

  1. হোয়াটসঅ্যাপ (Whatsapp),
  2. ফেসবুক মেসেঞ্জার (Facebook Messenger),
  3. ভাইবার (Viber),
  4. উইচ্যাট (WeChat),
  5. টেলিগ্রাম (Telegram),
  6. স্ন্যাপচ্যাট (Snapchat),
  7. স্কাইপ (Skype),
  8. ইমু (Imo),
  9. লাইন (Line),
  10. উইকার মি (Wicker Me)

তো আমরা যারা মনে করি যে মেসেঞ্জার বাদে আর কোন ধরনের অনলাইন চ্যাটিং অ্যাপ নেই।

তাদের জন্য উপরে বেশ কয়েকটি জনপ্রিয় অনলাইন চ্যাটিং অ্যাপ এর তালিকা প্রদান করা হয়েছে ।

আপনি চাইলে মেসেঞ্জার এর পাশাপাশি এই অনলাইন চ্যাটিং অ্যাপ গুলো ব্যবহার করে দেখতে পারবেন।

অনলাইন চ্যাটিং অ্যাপ নিয়ে আমাদের কিছু কথা

প্রিয় পাঠক, আমি যথাযথ ভাবে চেষ্টা করি যেন আপনি টেকনোলজি রিলেটেড যাবতীয় বিষয় গুলো সম্পর্কে খুব সহজ ভাষায় জেনে নিতে পারেন।

আর সেই ধারাবাহিকতা রক্ষা করার জন্য আজকে আমি চমৎকার সব অনলাইন চ্যাটিং অ্যাপস এর তালিকা প্রদান করেছি।

আপনি আরোও পড়তে পারেন…

তো আশা করি এই অনলাইন চ্যাটিং অ্যাপ গুলো ব্যবহার করে আপনার অনেক ভালো লাগবে।

এবং আজকের আলোচিত কোন অনলাইন চ্যাটিং অ্যাপ টি আপনার সবচেয়ে ভালো লেগেছে। তা অবশ্যই নিচে কমেন্ট করে জানিয়ে দিবেন। 

আর এই ধরনের গুরুত্বপূর্ণ তথ্য গুলো সবার আগে পেতে চাইলে, অবশ্যই আমাদের সাথে থাকার চেষ্টা করবেন। ধন্যবাদ! এতক্ষণ ধরে পুরো লেখা টি পড়ার জন্য। 

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!
Scroll to Top
Share via
Copy link
Powered by Social Snap