ফ্রিল্যান্সিং কোথায় শিখব | ফ্রিল্যান্সিং শিখার উপায় | Freelancing in bangla

ফ্রিল্যান্সিং কোথায় শিখব : ফ্রিল্যান্সিং কি সে সম্পর্কে আমরা অনেকেই জানি। মূলত আপনি যদি একজন মানুষ কে এখন জিজ্ঞেস করেন যে, ফ্রিল্যান্সিং কেন করা হয়।

ফ্রিল্যান্সিং কোথায় শিখব | ফ্রিল্যান্সিং শিখার উপায় | Freelancing in bangla
ফ্রিল্যান্সিং কোথায় শিখব

তাহলে সেই মানুষ টি এক কথায় উত্তর দিতে পারবে। অনলাইন থেকে টাকা আয় করার জন্য ফ্রিল্যান্সিং করা হয়ে থাকে। তবে এই কথাটি যতটা সহজ ভাবে বলা যায়, ততটা সহজ নয়।

বরং যদি আপনি ফ্রিল্যান্সিং থেকে টাকা আয় করতে চান। তাহলে অবশ্যই আপনাকে ফ্রিল্যান্সিং সম্পর্কে যথাযথ ভাবে পর্যাপ্ত জ্ঞান অর্জন করতে হবে।

এবং এই জ্ঞান অর্জন করার পরে আপনি টাকা আয় করতে পারবেন। আর সেজন্য প্রথমে আপনাকে ফ্রিল্যান্সিং শিখতে হবে। আর সে কারণেই অনেকেই জানতে চায় যে, ফ্রিল্যান্সিং কোথায় শিখব

যদিওবা ফ্রিল্যান্সিং শেখার জন্য বিভিন্ন প্রকারের মাধ্যম রয়েছে। তবে যারা একেবারেই নতুন হিসেবে ফ্রিল্যান্সিং শিখতে চান।

তারা ফ্রিল্যান্সিং শেখার ক্ষেত্রে অনেক সময় অনেক রকমের ভুল করে থাকেন। মূলত আপনি যদি সঠিক ভাবে ফ্রিল্যান্সিং শিখতে না পারেন।

তাহলে কিন্তু আপনি খুব বেশি দূরে যেতে পারবেন না। তাই ফ্রিল্যান্সিং শেখার ক্ষেত্রে আপনাকে যথেষ্ট পরিমাণে সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে।

যেমন ধরুন, বর্তমান সময়ে বিভিন্ন অভিজ্ঞ মানুষরা ফ্রিল্যান্সিং কোর্স বিক্রি করে। এখন আপনি যদি তাদের মধ্যে ভুল মানুষদের কাছ থেকে অনলাইন ফ্রিল্যান্সিং কোর্স কিনে নেন।

তাহলে কিন্তু আপনার সময় এবং অর্থ দুটোই বৃথা যাবে। কেন ফ্রিল্যান্সিং বেকারত্ব দূরীকরণে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে?

আর এইসব যাবতীয় বিষয় গুলো কে নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করার জন্যই আজকের এই আর্টিকেল টি লেখা হয়েছে।

আপনি আরোও দেখতে পারেন…

ফ্রিল্যান্সিং কোথায় শিখব, ফ্রিল্যান্সিং কিভাবে শিখবো, ফ্রিল্যান্সিং এর ভবিষ্যৎ কি মূলত যাদের মনে এই ধরনের প্রশ্ন রয়েছে। তাদের জন্য আজকের আর্টিকেল টি অনেক বেশি হেল্পফুল হবে।

কেননা ফ্রিল্যান্সিং শেখার জন্য যেসব জানা প্রয়োজন (Freelancing in  bengali)। যে পদ্ধতি গুলো অনুসরণ করার প্রয়োজন। তার প্রত্যেক টি বিষয় নিয়ে আজকে আমি স্টেপ বাই স্টেপ আলোচনা করব।

তাই আপনি যদি ফ্রিল্যান্সিং শিখতে চান। তাহলে চেষ্টা করবেন আজকের পুরো আর্টিকেল টি মনোযোগ সহকারে পড়ার। তাহলে চলুন সরাসরি মূল আলোচনা তে ফিরে যাওয়া যাক।

ফ্রিল্যান্সিং কি (What is Freelancing in bangla)

Freelancing কোথায় শিখব সেই বিষয় টি নিয়ে আজকে আমি বিস্তারিত ভাবে আলোচনা করব। তবে তার আগে এই ফ্রিল্যান্সিং কি সে সম্পর্কে আপনার একটু ধারণা থাকা উচিত।

কারণ যখন আপনি জানতে পারবেন যে, ফ্রিল্যান্সিং কাকে বলে। তখন আপনার আজকের আলোচিত পরবর্তী আলোচনা গুলো বুঝতে সুবিধা হবে।

তাই এবার আমি খুব স্বল্প পরিসরে ফ্রিল্যান্সিং কি যে বিষয়টি কে বুঝিয়ে বলার চেষ্টা করব। তো চলুন এবার তাহলে সে সম্পর্কে জেনে নেওয়া যাক।

সহজ কথায় বলতে গেলে, অনলাইনে আপনি যখন কাজ করবেন। আর সেই কাজ করার মাধ্যমে নিজের দক্ষতার বিনিময়ে অনলাইনের বিভিন্ন প্ল্যাটফর্মে সার্ভিস প্রদান করবেন।

তখন আপনাকে বলা হবে, ফ্রিল্যান্সার। অর্থাৎ অনলাইন এর বিভিন্ন মার্কেটপ্লেসে যারা কাজ করে। তাদের কে বলা হয়ে থাকে ফ্রিল্যান্সার।

অপরদিকে যারা অনলাইন মার্কেটপ্লেস গুলো তে কাজ প্রদান করে। তাদের কে বলা হয়ে থাকে, ক্লায়েন্ট।

তো যখন আপনি অনলাইন এর মার্কেট প্লেস গুলো তে নির্দিষ্ট কোন এক বা একাধিক ক্লায়েন্ট এর আন্ডারে কাজ করবেন।

এবং এই কাজ করার বিনিময়ে সেই ক্লায়েন্ট যখন আপনাকে অর্থ প্রদান করবে। মূলত এই যাবতীয় কাজের প্রক্রিয়া গুলো কে একত্রে বলা হয়ে থাকে, ফ্রিল্যান্সিং।

যাকে আমরা সহজ কথায় বলে থাকি অনলাইন থেকে টাকা আয় করার বিশেষ একটি মাধ্যম।

কেন ফ্রিল্যান্সিং শিখবেন ?

দেখুন এই পৃথিবীতে প্রত্যেকটা মানুষের স্বপ্ন কিন্তু একরকম হয় না। বরং ভিন্ন ভিন্ন মানুষের ভিন্ন ভিন্ন রকম স্বপ্ন হয়ে থাকে। যেমন আমরা অনেকেই চাই ডক্টর কিংবা ইঞ্জিনিয়ার হব।

আবার আপনি এমন অনেক মানুষ কে খুঁজে পাবেন। যাদের স্বপ্ন হলো নিজেকে একজন সফল ফ্রিল্যান্সার হিসেবে তৈরি করা।

তো যে মানুষ গুলো আসলে ফ্রিল্যান্সিং শিখে নিজের ক্যারিয়ার করতে চায়। সেই মানুষ গুলো কে প্রতিনিয়ত একটি প্রশ্নের সম্মুখীন হতে হয়।

আর সেই প্রশ্ন টি হল যে, কেন ফ্রিল্যান্সিং শিখবেন এবং মোবাইল দিয়ে ফ্রিল্যান্সিং কিভাবে শিখবো। চলুন এবার তাহলে এ বিষয় টি নিয়ে একটু বিস্তারিত ভাবে আলোচনা করা যাক।

দেখুন একটি মানুষ ফ্রিল্যান্সিং শেখার বেশ কিছু কারণ রয়েছে। তবে এই ফ্রিল্যান্সিং শেখার জন্য সবচেয়ে মূল যে কারণ গুলো আছে। এবার আমি সে গুলো কে পয়েন্ট আকারে উল্লেখ করার চেষ্টা করব।

আর আপনি যদি সেই কারণ গুলো সম্পর্কে জানতে চান। তাহলে নিচের আলোচিত আলোচনায় নজর রাখুন।

  1. দেখুন একটি মানুষ যেমন চাকরি করে নিজের ক্যারিয়ার গড়ে নিতে পারে। ঠিক তেমনি ভাবে আপনি ফ্রিল্যান্সিং করে নিজের ক্যারিয়ার গড়ে নিতে পারবেন।
  2. ফ্রিল্যান্সিং এর মাধ্যমে আপনি নিজের ঘরে বসে অনলাইন থেকে প্রচুর পরিমাণ টাকা আয় করে নিতে পারবেন।
  3. যদি আপনি একজন সফল ফ্রিল্যান্সার হতে পারেন। তাহলে আপনাকে আর কাজ করার জন্য ঘরের বাইরে যাওয়ার প্রয়োজন পড়বে না।
  4. কোন একটি প্রতিষ্ঠানে কাজ করার সময় সেই প্রতিষ্ঠানে আপনার বস থাকবে। কিন্তু যদি আপনি একজন ফ্রিল্যান্সার হতে পারেন। তাহলে আপনি নিজেই আপনার বস হতে পারবেন।
  5. ফ্রিল্যান্সিং করার সময় আপনার আয় এর মধ্যে কোন প্রকার সীমাবদ্ধ তা থাকবে না। অর্থাৎ আপনি চাইলে প্রতি মাসে লক্ষ লক্ষ টাকা আয় করতে পারবেন।
  6. যদি আপনার ফ্রিল্যান্সিং এর কোন সেক্টরে পর্যাপ্ত পরিমাণে দক্ষতা থাকে। তাহলে আপনি বিদেশের জনপ্রিয় কোম্পানি তে চাকরি করার সুযোগ পাবেন।
  7. যখন আপনার ফ্রিল্যান্সিং এর কোন একটি কাজে পর্যাপ্ত পরিমাণে দক্ষতা থাকবে। তখন আপনার অনলাইন ইনকাম করার অনেক গুলো পথ উন্মুক্ত হয়ে যাবে।

তো যে মানুষ গুলো আপনাকে প্রতিনিয়ত প্রশ্ন করে যে, ফ্রিল্যান্সিং কেন ফিরবেন। সে মানুষ গুলো কে আপনি উপরোক্ত এই উত্তর গুলো দিতে পারবেন।

কেননা ফ্রিল্যান্সিং করার ক্ষেত্রে আপনি এই সুবিধা গুলো ভোগ করতে পারবেন। যা আপনি বাস্তবিক জীবনে চাকরি করার ক্ষেত্রে পাবেন না।

ফ্রিল্যান্সিং এর কাজ গুলা কি কি

এতক্ষণের আলোচনা থেকে আপনি জানতে পারলেন যে, কেন ফ্রিল্যান্সিং শিখবেন এবং ফ্রিল্যান্সিং কাকে বলে। তবে এখন আপনি এমন অনেক মানুষ কে খুঁজে পাবেন।

যাদের মনে একটি প্রশ্ন বারবার ঘুরপাক খেয়ে থাকে। আর সেই প্রশ্ন টি হল, ফ্রিল্যান্সিং এর কাজ গুলা কি কি। মূলত আপনি যদি ফ্রিল্যান্সিং মার্কেট প্লেস গুলো তে নজর রাখেন।

তাহলে দেখতে পারবেন যে, সেখানে কিন্তু বিভিন্ন ধরনের কাজ রয়েছে। আর সে কারণেই এই কাজ গুলো সম্পর্কে আমরা অনেকেই জানতে চাই।

চলুন এবার তাহলে সেই ফ্রিল্যান্সিং এর কাজ গুলো সম্পর্কে জেনে নেওয়া যাক।

  1. গ্রাফিক্স ডিজাইন
  2. ওয়েব ডিজাইন
  3. প্রোগ্রামিং
  4. এসইও
  5. কনটেন্ট রাইটিং 
  6. ভিডিও এডিটিং 
  7. লোগো ডিজাইন 
  8. কভার ফটো ডিজাইন 
  9. অ্যাপস ডেভেলপমেন্ট 
  10. ওয়েব ডেভেলপমেন্ট
  11. ভার্চুয়াল অ্যাসিস্ট্যান্ট
  12. ট্রান্সলেশন

যদিও বা উপরের আলোচনায় আমি মোট ১২ টি ফ্রিল্যান্সিং এর কাজ সম্পর্কে বলেছি। তবে এর বাইরে আপনি আরো এমন অনেক ডজন ডজন কাজ দেখতে পারবেন।

আর আপনি যদি সেই সব গুলো ফ্রিল্যান্সিং এর কাজ সম্পর্কে জানতে চান। তাহলে অবশ্যই আপনাকে বর্তমান সময়ের জনপ্রিয়তার শীর্ষে থাকা সেই ফ্রিল্যান্সিং প্ল্যাটফর্ম গুলো তে যেতে হবে।

কিভাবে ফ্রিল্যান্সিং শিখবেন ?

যদিওবা আর্টিকেলের শুরু থেকে এখন পর্যন্ত আমি ফ্রিল্যান্সিং নিয়ে বেশ কিছু বিষয়ে আলোচনা করেছি।

তবে আজকের আর্টিকেল এর মূল আলোচ্য বিষয় হলো, ফ্রিল্যান্সিং কোথায় শিখব, ফ্রিল্যান্সিং কাজ করার জন্য কিসের প্রয়োজন।

আপনি আরোও পড়তে পারেন…

অর্থাৎ আপনি যদি একজন নতুন ব্যক্তি হয়ে থাকেন। এবং আপনার যদি ফ্রিল্যান্সার হওয়ার স্বপ্ন থাকে। তাহলে এই প্রশ্ন টি আপনার মনে বারবার ঘুরপাক খাবে যে, ফ্রিল্যান্সিং কোথায় শিখব বা কিভাবে ফ্রিল্যান্সিং শুরু করবো।

আর আপনি যদি এই প্রশ্নের সঠিক উত্তর পেতে চান। তাহলে আপনাকে নিচের আলোচিত আলোচনা গুলো মনোযোগ দিয়ে পড়তে হবে।

কারণ একটি মানুষ এর যদি ফ্রিল্যান্সার হওয়ার স্বপ্ন থাকে। তাহলে সেই মানুষ টি বিভিন্ন পদ্ধতি অনুসরণ করে ফ্রিল্যান্সিং শিখতে পারবে।

আর আপনিও সেই মানুষ গুলোর মত সেই পদ্ধতি গুলো অনুসরণ করে। খুব সহজেই ফ্রিল্যান্সিং শিখতে পারবেন। তবে এবার আমি আপনাকে বেশ কিছু উপায় এর সাথে পরিচয় করিয়ে দেয়ার চেষ্টা করব।

যে গুলো মূলত একজন নতুন ব্যক্তির ফ্রিল্যান্সিং শেখার জন্য অনেক বেশি হেল্পফুল হবে। চলুন এবার তাহলে ফ্রিল্যান্সিং শেখার উপায় গুলো সম্পর্কে জেনে নেওয়া যাক।

ফ্রিল্যান্সিং শেখার প্রতিষ্ঠান (Freelancing learning institution)

বর্তমান সময়ে আপনি যদি ফ্রিল্যান্সিং শিখতে চান। তাহলে আপনি প্রতিটা এলাকাতেই কম বেশি বিভিন্ন ধরনের আইটি প্রতিষ্ঠান দেখতে পারবেন।

যেখানে ফ্রিল্যান্সিং এর বিভিন্ন কাজ গুলো হাতে-কলমে দেখিয়ে দেওয়া হয়ে থাকে। এবং চাইলে আপনিও এই ধরনের আইটি প্রতিষ্ঠান গুলো তে নিজেকে যুক্ত করতে পারবেন।

এবং ফ্রিল্যান্সিং এর নির্দিষ্ট একাধিক কাজ গুলো এই ধরনের প্রতিষ্ঠান থেকে শিখে নিতে পারবেন। তবে যখন আপনি এই ধরনের প্রতিষ্ঠান গুলো তে যুক্ত হতে চাইবেন।

তখন আপনার বেশ কিছু বিষয় এর দিকে খেয়াল রাখতে হবে। যেমন:

  1. সেই প্রতিষ্ঠান এর বয়স কত 
  2. উক্ত আইটি প্রতিষ্ঠানে কি ধরনের অভিজ্ঞ ব্যক্তিদের দ্বারা শিক্ষাদান করা হয়। 
  3. সেই প্রতিষ্ঠানের ফ্রিল্যান্সিং শিখে কতজন ব্যক্তি বর্তমানে নিজের ক্যারিয়ার গড়তে পেরেছে। 
  4. যারা আপনাকে ফ্রিল্যান্সিং শেখাবে তাদের পোর্টফলিও আছে কিনা। 
  5. ফ্রিল্যান্সিং শেখার জন্য সে প্রতিষ্ঠানে মোট কত টাকা দিতে হবে। 
  6. উক্ত প্রতিষ্ঠানে ফ্রিল্যান্সিং শিখতে হলে হিডেন চার্জ আছে কিনা

তোর যখন আপনি কোন আইটি প্রতিষ্ঠান থেকে ফ্রিল্যান্সিং শিখতে চাইবেন। তখন অবশ্যই এই বিষয় গুলোর দিকে যথেষ্ট খেয়াল রাখবেন।

অনলাইনে ক্লাস করে

বর্তমান সময়ে অনলাইন এর সহজলভ্যতা হওয়ার কারণে। কোন কিছু শেখার জন্য এখন অনলাইন কে বেছে নেওয়া হয়েছে। কেননা আজকের দিনে এমন অনেক সফটওয়্যার রয়েছে।

যে গুলোর মাধ্যমে অনলাইনের সাহায্য ক্লাস করা যায়। তো আপনি অভিজ্ঞ ব্যক্তিদের কাছ থেকে এই ধরনের অনলাইন কে কাজে লাগিয়ে ফ্রিল্যান্সিং শিখতে পারবেন।

তবে যে ব্যক্তির কাছ থেকে আপনি ফ্রিল্যান্সিং শিখবেন। অবশ্যই সেই ব্যক্তি সম্পর্কে ভালোভাবে জেনে নিবেন। আর তারপরেই তার কাছ থেকে ফ্রিল্যান্সিং শেখার চেষ্টা করবেন।

ইউটিউব এর ভিডিও দেখে

আপনি যদি ফ্রিল্যান্সিং সম্পর্কে ব্যাসিক ধারণা আগে নিতে চান তাহলে আপনাকে সাজেস্ট করব ইউটিউবের বিভিন্ন ভিডিও দেখতে।

এখানে আপনি অনেক ব্যাসিক বিষয়ে ভিডিও পাবেন যার থেকে আপনার অনেক ভাল ধারণা পাবেন।

এর পর আপনি ব্যাসিক শেষ করে এডভান্স লেভেলের অনেক ভিডিও দেখতে পারবেন ইউটিউব থেকে তবে আপনাকে খুঁজে খুঁজে বের করে নিতে হবে।

একজনের কাছে সব ভিডিও কখনই পাবেন না ইউটিউব ভিডিও থেকে যদি ফ্রিল্যান্সিং শিখতে চান।

বিভিন্ন প্রকারের ফ্রি সোর্স থেকে

দেখুন আপনার যদি ফ্রিল্যান্সিং শেখার ইচ্ছা থাকে। তাহলে আপনি বিভিন্ন প্রকার ফ্রি সোর্স এর মাধ্যমে ফ্রিল্যান্সিং শিখতে পারবেন।

যেমন ধরুন, আপনি যদি ইউটিউব এর অভিজ্ঞ ব্যক্তিদের ভিডিও দেখেন। তাহলে আপনার ফ্রিল্যান্সিং সম্পর্কিত অনেক নলেজ চলে আসবে। এর পাশাপাশি আপনি যদি গুগল এর মাধ্যমে সার্চ করেন।

তাহলে আপনি ফ্রিল্যান্সিং সম্পর্কিত অনেক অজানা বিষয় সম্পর্কে জেনে নিতে পারবেন।

তো চাইলে আপনি কোন প্রকার অর্থ ব্যয় না করে। নিজের শ্রম দিয়ে এই ধরনের ফ্রি সোর্স থেকে খুব সহজেই ফ্রিল্যান্সিং শিখে নিতে পারবেন।

ফ্রিল্যান্সিং করার কোর্স থেকে

এমন অনেক ধরনের অভিজ্ঞ ব্যক্তি রয়েছেন। যারা মূলত দীর্ঘদিন থেকে ফ্রিল্যান্সিং সেক্টর এর সাথে যুক্ত আছেন। এবং ফ্রিল্যান্সিং থেকে টাকা আয় করার পাশাপাশি তারা তাদের অর্জন করা অভিজ্ঞতা গুলো।

বিভিন্ন কোর্সের মাধ্যমে শেয়ার করে থাকেন। আর যখন আপনি সেই কোর্স গুলো নিতে যাবেন। তখন আপনাকে টাকা দিয়ে কিনতে হবে।

মূলত টাকা দিয়ে আপনি এই ধরনের কোর্স কিনে ফ্রিল্যান্সিং সম্পর্কে অভিজ্ঞতা নিতে পারবেন। তবে এই ধরনের কোর্স কেনার আগে খুব সাবধানতা অবলম্বন করবেন।

কেননা বর্তমান সময়ে অনেক প্রতারক রয়েছে। যারা মূলত কোর্স দেয়ার নাম করে অন্যের টাকা হাতিয়ে নেয়

ফ্রিল্যান্সিং শিখতে কত টাকা লাগে ?

উপরের আলোচনা থেকে আপনি ফ্রিল্যান্সিং কোথায় শিখব সে সম্পর্কে পরিষ্কার ধারণা পেয়ে গেছেন। এবং এই আলোচনা তে আমি আপনাকে বেশ কিছু ফ্রিল্যান্সিং শেখার উপায় শেয়ার করেছি।

তো এখন হয়তো বা অনেকের মনে একটি প্রশ্ন জেগে থাকতে পারে। আর সেই প্রশ্ন টি হল যে, ফ্রিল্যান্সিং শিখতে মোট কত টাকা ব্যয় করতে হয়।

তো আপনার মনেও যদি এই ধরনের প্রশ্ন জেগে থাকে। তাহলে এবারের আলোচনা টি আপনার জন্য অনেক বেশি প্রয়োজনীয়।

দেখুন ফ্রিল্যান্সিং শিখতে কত টাকা লাগে। এটা মূলত নির্ভর করবে আপনি ফ্রিল্যান্সিং এর কোন কাজটি শিখবেন তার উপর।

যেমন ধরুন, আপনি যদি গ্রাফিক্স ডিজাইন শিখতে চান। তাহলে আপনার যে পরিমাণ টাকার প্রয়োজন হবে। তার থেকে অনেক বেশি টাকার প্রয়োজন হবে যদি আপনি প্রোগ্রামিং শিখতে চান।

অপরদিকে আপনি যদি কন্টেন্ট রাইটিং এর কাজ শিখতে চান। তাহলে কিন্তু আপনার অনেক কম টাকা ব্যয় করার প্রয়োজন হবে।

এর পাশাপাশি আপনি কোন মাধ্যমে ফ্রিল্যান্সিং শিখবেন। সেটার উপরেও কিন্তু নির্ভর করবে আপনার কত টাকা ব্যয় করতে হবে।

যেমন ধরুন, আপনি যদি কোর্স কিনেন তাহলে আপনার আট থেকে দশ হাজার টাকার মধ্যে ফ্রিল্যান্সিং শেখার কাজ সম্পন্ন হবে।

অপরদিকে আপনি যদি কোন জনপ্রিয় আইটি সেন্টার থেকে ফ্রিল্যান্সিং শিখতে চান। তাহলে আপনাকে ২০ থেকে ৩০ হাজার টাকা পর্যন্ত ব্যয় করতে হবে।

আর সে কারণেই মূলত ফ্রিল্যান্সিং শিখতে কত টাকা লাগে। সেটা কখনো স্পষ্ট করে বলা সম্ভব হয় না। আবার অনেক সময় দেখা যায় ৫০০ টাকাতেও অনেকেই ফ্রিল্যান্সিং শিখায়।

ফ্রিল্যান্সিং কোর্স ফ্রি

আমাদের মধ্যে এমন অনেক মানুষ আছেন। যারা মূলত ফ্রিল্যান্সিং কোর্স ফ্রী খুঁজে থাকেন। তো যে মানুষ গুলো মূলত এই ধরনের ফ্রি কোর্স খুঁজে থাকেন।

তাদের কে আমি আমার পক্ষ থেকে কোন কোর্স এর রেকমেন্ড করতে পারব না। কারণ বর্তমান সময়ে আপনি যদি অনলাইনে একটু খোঁজাখুঁজি করেন।

তাহলে এই ধরনের অনেক ফ্রিল্যান্সিং শেখার ফ্রী কোর্স খুজে পাবেন। এবং সেই কোর্স গুলোর মধ্যে যেগুলো আপনার কাছে অনেক ভালো মনে হবে।

আপনি সেই গুলো কোর্স দেখে ফ্রিল্যান্সিং শিখতে পারবেন। তবে আপনি যদি একান্ত ভাবেই ফ্রিল্যান্সিং ফ্রি কোর্স খুঁজে থাকেন। তাহলে অবশ্যই নিচে কমেন্ট করে জানিয়ে দিবেন।

ফ্রিল্যান্সিং কোর্স ইন বাংলাদেশ

বর্তমানে আমাদের বাংলাদেশে আপনি এমন হাজার হাজার মানুষ কে খুঁজে পাবেন। যারা মূলত দীর্ঘদিন থেকে ফ্রিল্যান্সিং সেক্টরের সাথে যুক্ত রয়েছে।

আর এই অভিজ্ঞ ব্যক্তিরা তাদের ফ্রিল্যান্সিং প্ল্যাটফর্ম থেকে অর্জিত অভিজ্ঞতা। এবং নিজের ভেতরে থাকার দক্ষতা গুলো শেয়ার করার জন্য।

বিভিন্ন প্রকারের কোর্স তৈরি করে থাকেন। তো আপনি চাইলে এই ধরনের অভিজ্ঞ ব্যক্তিদের কাছ থেকে ফ্রিল্যান্সিং শিখতে পারবেন কোর্স নেয়ার মাধ্যমে।

আবার অনেক জায়গাতে সরকারী ভাবে ফ্রিল্যান্সিং এর ট্রেইনিং দেওয়া হয়ে থাকে।

আপনি চাইলে গুগলে ফ্রিল্যান্সিং কোর্স চট্টগ্রাম, ফ্রিল্যান্সিং কোর্স গাজীপুর বা আপনার লোকেশনের নাম লিখে সার্চ করে আপনার আশে পাঁশের ফ্রিল্যান্সিং কোর্স করার আইটি ফার্ম এর নাম জানতে পারবেন।

ফ্রিল্যান্সিং শিখার পর কোথায় কাজ পাবেন?

মনে করুন, ফ্রিল্যান্সিং কোথায় শিখব এ বিষয়টি জানার পরে। আপনি নির্দিষ্ট একটি মাধ্যম থেকে ফ্রিল্যান্সিং শিখলেন। এখন আপনার প্রধান কাজ হবে বিভিন্ন প্রকার অনলাইন মার্কেট প্লেস গুলো তে যুক্ত হওয়া।

তবে সে সময় অনেকেই বুঝে উঠতে পারে না যে। ফ্রিল্যান্সিং শেখার পর কোথায় কাজ পাওয়া যাবে।

তো যাদের মনে এই ধরনের প্রশ্ন জেগে থাকে। তাদের কে বলব, আপনি যে বিষয়ে ফ্রিল্যান্সিং শিখেছেন। সেই বিষয়ে কোন কোন মার্কেট প্লেস গুলো তে কাজ পাওয়া যায়।

সেই মার্কেট প্লেস গুলো আপনাকে খুঁজে নিতে হবে। আর যখন আপনি সেই মার্কেট প্লেস গুলো খুঁজে পাবেন। তখন আপনাকে সে গুলো তে গিয়ে আপনার দক্ষতার বিনিময়ে সার্ভিস প্রদান করতে হবে।

নিচে আমি কিছু জন্যপ্রিয় ফ্রিল্যান্সিং ওয়েবসাইটের নাম দিলাম যেগুলাতে মানুষ ভাল পরিমানের আয় করে আসতেছে অনেক সময় থেকেই।

  • Upwork
  • Fiverr
  • Freelancer
  • PeoplePerHour
  • Toptal
  • Guru
  • FlexJobs
  • 99designs

ফ্রিল্যান্সিং করে কত টাকা আয় করা যাবে ?

আর্টিকেলের শুরুতেই আমি আপনাকে একটা কথা বলেছি যে। ফ্রিল্যান্সিং করার সবচেয়ে বড় একটা সুবিধা হল। এখানে আপনার টাকা আয় করার মধ্যে কোন প্রকার সীমাবদ্ধতা থাকবে না।

অর্থাৎ আপনার যদি ফ্রিল্যান্সিং সম্পর্কে পর্যাপ্ত পরিমাণে দক্ষতা থাকে। এবং আপনি যদি নিয়মিত ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেস গুলো তে কাজ করতে পারেন।

আপনার জন্য আরোও লেখা…

তাহলে আপনি আপনার ইচ্ছামত টাকা আয় করতে পারবেন। যেমন ধরুন আপনি আপনার কাজের বিনিময়ে প্রতি মাসে লক্ষ লক্ষ টাকা আয় করতে পারবেন।

তবে আপনার এই টাকা আয় করার ক্ষেত্রে কোন প্রকার সীমাবদ্ধতা থাকবে না।

ফ্রিল্যান্সিং কোথায় শিখব এই নিয়ে কিছু কথা

প্রিয় পাঠক, আমাদের মধ্যে এমন অনেক মানুষ আছেন। যারা মূলত জানতে চায় যে, ফ্রিল্যান্সিং কোথায় শিখব। আর সেই মানুষ গুলো কে উদ্দেশ্য করেই আজকের এই আর্টিকেল টি লেখা হয়েছে।

কারণ আজকের এই আর্টিকেলের মাধ্যমে আমি আপনাকে। ফ্রিল্যান্সিং শেখার বেশ কিছু উপায় এর সাথে পরিচয় করিয়ে দেয়ার চেষ্টা করেছি।

আর আপনি চাইলে এই ধরনের উপায় গুলোকে কাজে লাগিয়ে ফ্রিল্যান্সিং শিখতে পারবেন। এই রকম আরো আর্টিকেল পড়তে আমাদের ওয়েবসাইট নিয়মিত ভিজিট করুন।

Leave a Comment

Your email address will not be published.

HandsUp! কপি করা যাবে না বস!

Scroll to Top
Share via
Copy link
Powered by Social Snap