২০২২ সালের ১২টি সেরা ফ্রিল্যান্সিং ওয়েবসাইট তালিকা

 ২০২২ সালের ১২টি সেরা ফ্রিল্যান্সিং ওয়েবসাইট তালিকাঃ আপনি কি ফ্রিল্যান্সিং করে আয় করার কথা ভাবছেন? স্বাধীনভাবে কাজ করে নিজের আর্থিক অবস্থার পরিবর্তন করতে চাচ্ছেন?

তাহলে নিশ্চয়ই কোথায় কাজ পাওয়া যাবে তা হন্যে হয়ে খুঁজে বেড়াচ্ছেন। কিন্তু  সঠিক কোনো নির্দেশনা পাচ্ছেন না। কাজ না পাওয়ায় হতাশায় ভুগছেন।

২০২১ সালের ফ্রিল্যান্সিং ওয়েবসাইট
২০২২ সালের সেরা ফ্রিল্যান্সিং ওয়েবসাইট

এই হতাশা আপনার একার নয়। চাকরির বাজারে এখন দারুন ধ্বংস। এই  ২০২২ সালে কে দিবে আপনাকে কাজ? ঘরে বসে আয় করার মত এমন সু্যোগ? আপনার সবার আগে খুঁজে নিতে হবে কে বা কারা আপনাকে কাজ দিবে?

কোথায় পাবেন নিজের দক্ষতা ভিত্তিক কাজ। এজন্যই আপনার জানতে হবে  ২০২২ সালের সেরা ফ্রিল্যান্সিং ওয়েবসাইট গুলোর তালিকা সম্পর্কে। 

অনলাইন থেকে আয় করার অনেক মাধ্যম আমরা জানি। আর  ফ্রিল্যান্সিং সম্পর্কে  শুনেনি এমন মানুষ আজকাল  খুজেঁ পাওয়া মুশকিল। যুগ যত আধুনিক হচ্ছে মানুষও আধুনিক উপায়ে আয়ের দিকে ঝুঁকছে। আর সে জন্যই ফ্রিল্যান্সিং এর কদর দিন দিন খুব বাড়ছে।

বিশেষ  করে তরুনদের মধ্যে খুবই জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে ফ্রিল্যান্সিং। আর্থিক অবস্থার পরিবর্তন করতে হাজার হাজার মানুষ বেছে নিচ্ছে ফ্রিল্যান্সিং।

এই কারনে এখন অনেক বেশি ফ্রিল্যান্সিং ওয়েবসাইট তৈরী হচ্ছে। ঘরে বসেই নিয়মিত কাজের সুযোগ করে দিচ্ছে। এসব ওয়েবসাইট আপনাকে আপনার বিশেষ দক্ষতা গুলেকে কাজে লাগিয়ে আয় করার সুযোগ দেবে।

দেশে বিদেশে যেকোনো যায়গা থেকে কাজ আনতে ফ্রিল্যান্সিং ওয়েবসাইট এর জুরি নেই। এমনই কিছু সেরা ফ্রিল্যান্সিং ওয়েবসাইট গুলোর তালিকা নিয়ে আজকে আপনাদের সামনে হাজির হয়েছি আমরা।

ফ্রিল্যান্সিং ওয়েবসাইট কি ? 

আজকাল অধিকাংশ মানুষ কমবেশি ফ্রিল্যান্সিং সম্পর্কে জানে। তবে যে জানে সেই কি ইনকাম করতে পারে? না। কারন ফ্রিল্যান্সিং সম্পর্কে শুনলেও অনেকেই জানে না ফ্রিল্যান্সিং ওয়েবসাইট আবার কি?

ফ্রিল্যান্সিং সাইটের কাজ কি? এসব কারনেই কিন্তু অনেক বেশি পিছিয়ে পড়ছেন অনেকে।  ফ্রিল্যান্সিং করে টাকা আয় করার স্বপ্ন স্বপ্নই থেকে যাচ্ছে৷ এজন্য আমাদের আগে জানতে হবে ফ্রিল্যান্সিং ওয়েবসাইট কি? 

সহজভাবে বলতে গেলে বলা যায়, অনলাইনের যেসকল ওয়েবসাইটে ফ্রিল্যান্সিং এর কাজ করা হয় সে সকল ওয়েবসাইটকে ফ্রিল্যান্সিং ওয়েবসাইট বলা হয়ে থাকে।

ফ্রিল্যান্সিংয়ের কাজ অনেক ধরনের হয়ে থাকে যা নিম্নের প্যারাগ্রাফে আমরা এ সম্পর্কে আলোচনা করেছি।

আপনার জন্য আরো…

ফ্রিল্যান্সিং সাইটের কাজ কি ?

ফ্রিল্যান্সিং ওয়েবসাইট হচ্ছে এমন একটি ওয়েবসাইট যা অনলাইন মার্কেটপ্লেসের কাজ করে। যেখানে দুই ধরনের মানুষ আছে। একদল হচ্ছে  ক্লায়েন্ট। তারা তাদের কাজ নিয়ে আসেন এবং কাজ করে দেয়ার জন্য দক্ষ লোক খুঁজেন। এবং আরেকদল লোক হচ্ছে ফ্রিল্যান্সার।

যারা  এখানকার ক্লায়েন্টদের কাজ করে দেয়। এটা মূলত বায়ার সেলার সম্পর্ক। হাজার হাজার ফ্রিল্যান্সার এর মধ্যে থেকে ক্লায়েন্টকে ইমপ্রেস করে এবং কাজটি নেয়ার চেষ্টা করে।

আর ফ্রিল্যান্সিং ওয়েবসাইট এর কাজ এটাই। এসব ওয়েবসাইট ক্লায়েন্ট ও ফ্রিল্যান্সারদের মধ্যে সরাসরি একটি যোগাযোগ মাধ্যম তৈরী করে দেয়।

এখানে বায়ার তার কাজের জন্য লোক চেয়ে পোস্ট করে। আর এই কাজে যারা পারদর্শী তারা কাজের জন্য বিড করে। সেলাররা তাদের প্রোফাইল এমন করে সাজায় যাতে একজন ক্লায়েন্ট হাজার টা লোকের ভীরে তাকে বেছে নেয়।

এর ফলে বায়ার তার নির্ধারিত কাজটি করিয়ে নিতে পারে দেশ বিদেশর যেকোনো যায়গায় কর্মী থেকে।

সকল কাজে পর্যবেক্ষণের জন্য বা কোনো সমস্যার জন্য তৃতীয় পক্ষ ফ্রিল্যান্সিং ওয়েবসাইট। এ সকল কাজের কোন সমস্যা বা পেমেন্ট জাতীয় কোন ধরনের কোন সমস্যা থাকলে তৃতীয় পক্ষ ফ্রিল্যান্সিং ওয়েবসাইটের কর্মকর্তা্রা সমাধান করে দেন। আর ফ্রিল্যান্সাররাও ঘরে বসে আন্তর্জাতিক মানের কাজ করতে পারে। 

ফ্রিল্যান্সিং ওয়েবসাইটে কেন কাজ করবেন ?

আপনি যদি ফ্রিল্যান্সার হিসেবে সফল ক্যারিয়ার গড়তে চান তাহলে অবশ্যই আপনার ফ্রিল্যান্সিং ওয়েবসাইটে কাজ করা উচিত। কারন লোকাল ক্লায়েন্ট থেকে কাজ করা মোটেও সহজলভ্য না।

কারন আমাদের দেশে ফ্রিল্যান্সিং কাজ করানোর মত ক্লায়েন্ট কম আছে। যা আছে সব বিভিন্ন  কোম্পানির সাথে যুক্ত।

 তাই তখন আর স্বাধীন থাকে না। একটা প্রতিষ্ঠান এর অধীনে কাজ করতে হয়। ফ্রিলান্সার মানেই স্বাধীনভাবে কাজ করা। আর ফ্রিল্যান্সিং ওয়েবসাইট গুলোই আপনাকে এই সুযোগ করে দেয়।

এখানে আপনার ইচ্ছে মত কাজ আপনি করতে পারবেন। ইচ্ছে না হলে কারো কাছে জবাবদিহি নেই।

ছাত্র জীবনে কিছু সময়ের জন্য করলেন। চাইলে পড়ে ছেড়ে দিলেন। কোনো বাধা নেই। আর ফ্রিল্যান্সিং ক্যারিার সফল করতে চাইলে ইন্টারন্যাশনাল ফ্রিল্যান্সিং ওয়েবসাইট গুলোতে কাজ করা ছাড়া গতি নেই।

তাই আর দেরি না করে জেনে নিন  ২০২২ এর সেরা ফ্রিল্যান্সিং ওয়েবসাইট গুলোর তালিকাঃ-

১. আপওয়ার্ক ফ্রিল্যান্সিং ওয়েবসাইট 

Upwork.com বিশ্বের অন্যতম বড় অনলাইন মার্কেটপ্লেস হল আপওয়ার্ক। এর আগের না‌ম ছিল ইল্যান্স-ওডেস্ক। সেই  নামের মার্কেটপ্লেসটিই নতুন একটি নাম নিয়ে যাত্রা শুরু করেছে। প্রতিষ্ঠানটির নতুন নাম  হয়েছে এখন আপওয়ার্ক। এখানে আপনি প্রায় সব ধরনের কাজ করতে পারবেন।

এর ব্যাপ্তি ও প্রভাব অন্য প্রতিষ্ঠানের চেয়ে অনেক  অনেক বেশি। যা হয়ত আপনি চিন্তাও করতে পারবেন না। এমন বড় বড় কম্পানি আছে যেমন মাইক্রোসফট, অটোম্যাটিক  কোম্পানি। এরা কিন্তু  কোনো কোনো দিক থেকে আপওয়ার্ক এর সাথে যুক্ত।

বাড়তি আয় করতে অথবা প্রধান জীবিকা নির্বাহ হোক, আপওয়ার্কে সব ধরনের ফ্রিল্যান্সারই নিয়মিত কাজ করে থাকেনফ্রিল্যান্সারদের কাছে অনেক বড় চ্যালেঞ্জ হল কাজ পাওয়ার  জন্য ক্লায়েন্ট খুঁজে বের করা।

আপওয়ার্ক এর মত প্লাটফর্ম ক্লায়েন্ট এবং ফ্রিল্যান্সার সবার জন্যই  উপযুক্ত। আপওয়ার্ক একে অপরকে খুঁজে পাওয়ার ব্যাপারটা সহজ করে দেয়। 

আপওয়ার্কে যেসব কাজ পাওয়া যায়ঃ

  • সফটওয়্যার ডেভলপমেন্ট
  • লিটারেচার (লেখা ও এডিটিং)
  • কপিরাইটিং
  • এডভার্টাইজিং
  • টিচিং
  • অনুবাদ করা
  • কন্ঠ প্রদান (ভয়েস ওভার)
  • আর্ট ডিরেকশন
  • সাপোর্ট, ভার্চুয়াল এসিস্ট্যান্ট
  • ফটোগ্রাফি এবং এডিটিং
  • ভিডিও প্রোডাকশন
  • ওয়েব ডিজাইন
  • সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন (এসইও)
  • মার্কেটিং
  • সোস্যাল মিডিয়া ম্যানেজমেন্ট
  • গ্রাফিক ডিজাইন
  • প্রোগ্রামিং ইত্যাদি

আপওয়ার্কে কাজ করার মাধ্যম দুটি। একটি হল- আপওয়ার্ক এ ওদের ওয়েবসাইট দিয়ে কাজ করার যায়। দ্বিতীয় হচ্ছে  আপওয়ার্কের নিজস্ব  অ্যাপ থেকেও একাউন্ট ম্যানেজমেন্ট করা যায়।

এছাড়াও  জব অ্যাপ্লাই  করা যায়। ক্লায়েন্টের সাথে দরকারী মেসেজিংও করা যাবে।

আপনি আর পড়তে পাড়েন…

সবচেয়ে স্বস্তির বিষয় হল, তাদের পেমেন্ট সিস্টেম অনেক বেশি নিরাপদ। আপওয়ার্কে অনেক ধরনের ফিক্সড প্রাইস কাজ পাওয়া যায়। আবার প্রতি ঘন্টা হিসেবে (আওয়ারলি) কাজ পাওয়া যায়। মোট কথা সব রকম পারিশ্রমিকে ব্যাপক কাজ পাওয়া যায় আপওয়ার্কে।

২.ফ্রিল্যান্সার ওয়েবসাইট

freelancer.com  ফ্রিল্যান্সারদের জন্য আরেকটি খুব বড় একটি কাজের ক্ষেত্র ফ্রিল্যান্সিার সাইটটি । এটি অন্যতম সেরা একটি  সাইট।  ২০০৯ সালে এটি অস্ট্রেলিয়ার সিডনিতে প্রতিষ্ঠিত হয়। আর বর্তমানে এটির মূল কার্যালয় লন্ডন, ম্যানিলা, ভনকোভার এবং বুয়েন্স আয়ার্সে অবস্থিত।

মুক্তপেশাজীবীদের জন্য অনলাইন মার্কেট প্লেসের  দারুন ওয়েবসাইট। ওয়েবসাইটটির সকল কর্মীরা এর মাধ্যমে বিভিন্ন কোম্পানির কাজ অনলাইনের মাধ্যমে ঘরে বসেই করতে পারেন। ফ্রিল্যান্সার নামের এই ওয়েবসাইটি মুক্ত পেশাজিবীদের কাছে খুব জনপ্রিয় মাধ্যম।

বিশেষ করে নতুনদের জন্য খুবই উপযোগী। নতুনরাই সাধারনত এই ওয়েবসাইটেই প্রথম একাউন্ট খুলে থাকেন। এটি একটি ট্রাস্টেড মার্কেটপ্লেস।

নিয়মিত কাজ করলে পেমেন্ট নিয়ে কেনো রকম ঝামেলা হবে না। তাই আপনিও খুলে ফেলতে পারেন ফ্রিল্যান্সার ডটকম এ একটি একাউন্ট।  

৩.ফাইভার ফ্রিলান্সিং ওয়েবসাইট

Fiverr.com যারা নতুন নতুন ফ্রিল্যান্সার আছেন তাদের  জন্য ফাইভার হবে খুবই উপকারী একটি ওয়েবসাইট। এই ওয়েবসাইট  হচ্ছে ছোট ছোট কাজে বা সেবা প্রদানের  জন্য বিখ্যাত।

এটা এমন একটা মার্কেটপ্লেস যেখানে বিভিন্ন ধরনের ছোট বড় অনলাইন সেবা আদান প্রদান করা হয়।

আপনি যদি ফাইভারে কাজ করতে চান  আপনাকে অবশ্যই কিছু শর্ত মেনে ফাইভার ব্যাবহার করতে হবে। সুতরাং এই মার্কেটপ্লেস ব্যাবহার শুরু করার আগে এখানে কাজ করার সকল নিয়ম কানুন ও শর্তগুলো ভাল করে পড়ে নিতে হবে।

জেনে নিন ফাইভার সম্পর্কে কিছু গুরুত্বপূর্ণ তথ্য-

-ফাইভারে কিন্তু রেজিস্টার্ড ব্যবহারকারী ছাড়া বাইরের কেউ  কোনো রকম সার্ভিস আদান প্রদান করতে পারবেন না। তবে এখানের রেজিষ্ট্রেশন পুরোটাই ফ্রি।

-এখানকার সকল সেলারকে সব কাজ গুলো অবশ্যই সঠিক সময়ে করতে হবে। সঠিক ভাবে কাজ করে নিয়মিত জমা দিতে হবে। 

-কোনো কারন ছাড়াই যদি  কোনো  নিয়মিত অর্ডার ক্যান্সেল করের তাহলে সমস্যা তৈরী হবে।

-আর কোনো সেলার বেশি পরিমানে অর্ডার ক্যান্সেল করলে সেই সেলারের প্রোফাইল  রেপুটেশন নষ্ট হয় যাবার সম্ভাবনা আছে। এবং সেলারের গিগের রেঙ্কের উপরেও খুবই খারাপ প্রভাবও ফেলে। 

-ফাইভারের সকল গিগের প্রাইস বা যেকোনো  সেবার মূল্য শুরু হয় মাত্র ৫ ডলার থেকে। এরপর সেলার তার পছন্দমত প্রাইস লিমিট বাড়াতে পারেন খুব সহজেই। 

 -ফাইভারে কোনো ক্লায়েন্ট যখন কোনো একটা গিগ  অর্ডার করেন, তখন ক্লায়েন্ট ফাইভারকে গিগের সম্পূর্ণ মূল্য কাজ দেবার আগেই পরিশোধ করে দেন। তাই সেলারের পেমেন্ট নিয়ে কোনো ঝামেলা বা দুশ্চিন্তা করার দরকার  নেই।

-ফাইভার এমনই একটি প্লাটফর্ম যেখানে যোগ্যতা, সামর্থ্য ও কর্মদক্ষতার ভিত্তিতে একজন সেলার কে বিভিন্ন পজিটিভ বা নেগেটিভ  রেঙ্ক দেয়া হয়।

৪. পিপল পার আওয়ার ফ্রিলান্সিং ওয়েবসাইট

peopleperhour.com  পিপল পার আওয়ার হচ্ছে একটি ডুয়াল মারকেটপ্লেস। এখানে আপনি আপমার আপনার সার্ভিস সেল করতে পারবেন। আবার ফ্রিল্যান্সার এর মত মুক্ত জবে বিড করতে পারবেন।

তবে বিডিং সিস্টেম থেকে সার্ভিস সেল করাটাই এখানে বেশি করে থাকেন সবাই।

এখানে আপনি প্রায় সব ধরণের কাজ বিক্রি ও কিনতে পারবেন। এখানেও অনেক ভাল ভাল ক্লায়েন্ট পাওয়া যায়। আর পেমেন্ট ও অনেক বেশি। এখানে যেসব কাজ পাবেন-

  • -মার্কেটিং
  • -সোস্যাল মিডিয়া ম্যানেজমেন্ট
  • -গ্রাফিক ডিজাইন
  • -প্রোগ্রামিং ইত্যাদি
  • -ওয়েবসাইট ডিজাইন
  • – অ্যাপ্লিকেশন
  • -ইনফোগ্রাফিক
  • -সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন (এসইও)

আর পেমেন্ট নিয়ে দুশ্চিন্তা করার কোনো কারন নেই। পিপল পার আওয়ার একটি ট্রাস্টেড ওয়েবসাইট। 

৫. Guru ফ্রিলান্সিং ওয়েবসাইট

গুরু : ( guru.com) একটি ফ্রিল্যান্সিং সাইট যেখানে আপনি বিভিন্ন ধরনের কাজ পাবেন । এখানে আপনি পুরো পৃথিবীর অনেক নামীদামী ও ভাল মানের ফ্রিল্যান্সারদের সাথে কাজ করতে পারবেন। এখানে সার্চ ইঞ্জিন অপ্টিমাইজেশন নিয়ে অনেক কাজ পাওয়া যায়।

এছাড়াও গুরু ফ্রিল্যান্সিং ওয়েবসাইট এ আপনি পাবেন- প্রোগ্রামিং ও ডেভেলপমেন্ট,  রাইটিং ও ট্রান্সলেটিং, আর্ট ও ডিজাইন,সেলস ও মার্কেটিং সম্পর্কিত অনেক জব। 

৬. 99 Designs ফ্রিলান্সিং ওয়েবসাইট 

99designs.com এই  ফ্রিল্যান্স সাইট থেকে ডিজাইনাররা ইউনিক কাজ করতে পারে। ডিজাইন  সম্পর্কে খুটিনাটি  সবকিছু খুঁজে পেতে পারেন। আজকাল ডিজাইনের জন্য সবচেয়ে পরিচিত একটি ফ্রিল্যান্সিং সাইট হচ্ছে এই  ৯৯ডিজাইনস।

এখানে আর্ট, ভেক্টর, ইডিট,ফটোশপ ও ডিজাইনের কাজগুলো অন্য জায়গার তুলনায় সবচেয়ে বেশি পাওয়া যায় । আপনি এখানে যেসব কাজ পাবেন তা হচ্ছে ।

  • -লোগো ডিজাইন
  • -ব্যবসায়িক কার্ড ডিজাইন
  • -ওয়েবসাইট ডিজাইন
  • -অ্যাপ্লিকেশন
  • -ইনফোগ্রাফিক
  • -টি-শার্ট ডিজাইন 
  • -কার্ড, আমন্ত্রনপত্র ডিজাইন
  • -পণ্য প্যাকেজ, বই, এবং পত্রিকার কভার ইত্যাদি।

৭. Truelancer ফ্রিলান্সিং ওয়েবসাইট

truelancer.com আপওয়ার্ক এর মতো করে কাজ করে এমন একটি ওয়েবসাইট হচ্ছে ট্রুল্যান্সার। অনলাইন ফ্রিল্যান্স কাজের অনেক ধরনের প্রজেক্ট এতে পাওয়া যায়। Truelancer ওয়েবসাইট এর কাজ কর্মের ধরন অনেক টা আপওয়ার্কের মতো।

কারন এখানে ক্লায়েন্ট তার নিজের কাজ পোস্ট করেন। এবং ফ্রিল্যান্সাররা তাদের কাজে বিড করেন বা এপ্লাই করেন। সুন্দর প্রোফাইল ও ভাল কাজ করে এমন বিডার রাই বেশি কাজ পান।

আর এটি নিঃসন্দেহে একটি ট্রাস্টেড মার্কেটপ্লেস। আপনি পেমেন্ট নিয়ে দুশ্চিন্তা না করলেই হবে। এখানে আপনি সহজে যেসব কাজ পাবেন না তাহল- 

  • -কপিরাইটিং
  • -এডভার্টাইজিং
  • -টিচিং
  • -অনুবাদ করা
  • -ফটোগ্রাফি এবং এডিটিং
  • -ভিডিও প্রোডাকশন
  • -ওয়েব ডিজাইন
  • -লোগো ডিজাইন
  • -ব্যবসায়িক কার্ড ডিজাইন 
  • -কন্ঠ প্রদান (ভয়েস ওভার)
  • -আর্ট ডিরেকশন
  • -সাপোর্ট, ভার্চুয়াল এসিস্ট্যান্ট

৮. Pro Blogger ফ্রিলান্সিং ওয়েবসাইট

problogger.com লেখালিখি যারা খুব ভাল করেন তাদের জন্য উপযুক্ত হল এই সাইট। খুব ভাল একটি ব্লগিং সাইট এটি।  এখানে আপনি নিজেকে একজন দক্ষ লেখক হিসেবে গড়ে তুলতে পারবেন। এখানে মানসম্মত ও ভাল কাজের দারুন কদর করা হয়।

অনেক বছর থেকে চলে আসছে এই সাইট। তাই নিঃসন্দেহে বিশ্বস্ত একটি সাইট এটি। এখানে আপনি যেসব বিষয়ের উপরে লিখতে পারবেন তা হল-

  • – শিক্ষামূলক   বিষয়বস্তু
  • -প্রযুক্তি ব্লগার
  • -সামগ্রী পরিচালক 
  • -প্রোডাক্ট রিভিউ 
  • – লিগ্যাল পেপার 

৯. Behance বিহান্স ওয়েবসাইট

behance.net সৃজনশীল এবং ইউনিক আইডিয়া নিয়ে যারা কাজ করেন  বা করতে চান তাদের জন্য খুবই উপযুক্ত ফ্রিল্যান্সিং ওয়েবসাইট হচ্ছে এটি। কারন এখানে গতানুগতিক কাজের থেকে ইউনিক কাজের কদর ও চাহিদা বেশি। এখানে আপনি যেসব কাজ পাবেন তা হল-

  • -গ্রাফিক্স ডিজাইনার
  • -মাল্টিমিডিয়া
  • -কার্ড ডিজাইন
  • -অ্যাপ্লিকেশন
  • -ইনফোগ্রাফিক
  • -টি-শার্ট ডিজাইন

ইত্যাদি। তাই সৃজনশীল কাজ নিয়ে যাদের আগ্রহ   তাদের জন্য খুব ভালো একটি জব সাইট।

১০. Scripted ফ্রিলান্সিং ওয়েবসাইট

www.scripted.com  কনটেন্ট রাইটিং এ যারা মাস্টার তারা দেরি না করে এই ওয়েবসাইট এ কাজ করে দিন। এসইও ফ্রেন্ডলি কনটেন্ট যারা লিখেন তাদের জন্যে খুব দরকারী ও ভালো একটি ওয়েবসাইট।

এখানে আপনি বিভিন্ন আন্তর্জাতিক মানের প্রতিষ্ঠানের সাথে কাজ করতে পারবেন। তাদের হয়ে লিখতে পারবেন। 

বাংলাদেশী ফ্রিল্যান্সিং ওয়েবসাইট তালিকা

 ২০২২ সালের সেরা ফ্রিল্যান্সিং ওয়েবসাইট গুলোর তালিকা তো আপনি জানলেন।  কিন্তু এমন অনেক নতুন ফ্রিল্যান্সার আছেন যারা কাজ শুরু করতে চাচ্ছেন।

কিন্তু ইংরেজি ভাষায় দুর্বলতার কারনে আন্তর্জাতিক মানের ওয়েবসাইট গুলোতে কাজ করতে পারছেন না। এছাড়াও এসব ওয়েবসাইট গুলোর প্রতিযোগিতা অনেক বেশি।

তাই আমাদের দেশের তরুন ফ্রিল্যান্সাররা বেশি গতি করতে পারেন না।  তাদের চিন্তার অবসান ঘটাতেই বাংলাদেশই অনলাইন মার্কেটপ্লেস তৈরী হয়েছে।  সম্পূর্ণ বাংলা ভাষায় কাজ করতে পারবেন।

এমন দুটি ওয়েবসাইট সম্পর্কেও আজকে আপনাদের বলব।

১. বিল্যান্সার ফ্রিলান্সিং ওয়েবসাইট

www.belancer.com : আমাদের দেশের অনেক ফ্রিল্যান্সার আছেন যাদের কাজ কিন্তু পুরো পৃথিবী জুড়ে  দারুন ভাবে সমাদৃত।

তবে এটা খুবই দূঃখের বিষয় যে, আমাদের নিজস্ব তেমন অনলাইন কাজের প্লাটফর্ম নেই। মূলত সবার এমন দুঃশ্চিতার সময়োপযোগী অবসান ঘটাতেই ২০১৩ সালে ‘আমার ডেস্ক’ যাত্রা শুরু করে।

এই ওয়েবসাইটে দেওয়া কাজগুলো সবই বাংলাদেশের ভেতরের ক্লায়েন্টদের। বিল্যান্সারের প্রতিষ্ঠাতা মো. শফিউল আলম। এটি আমাদের দেশের ফ্রিল্যান্সারদের জন্য একটি দেশি অনলাইন মার্কেটপ্লেস। এখন এর পরিবর্তিত নাম দেয়া হয়েছে  বিল্যান্সার (www.belancer.com)। 

সেলার  ও ক্লায়েন্টদের মধ্যে  সংযুক্তি তৈরীর জন্য Belancer.com একটি প্রোফেশনাল বাংলাদেশী অনলাইন মার্কেটপ্লেস। অনেকে অনলাইনে কাজ করার জন্যে দেশি ফ্রিল্যান্সিং সাইট বেশি পছন্দ করেন। তাদের কথা ভেবেই কিন্তু প্রতিষ্ঠা করা হয়। এই বিল্যান্সার।

অবশ্যয় পরবেন…

যারা বাংলায় কাজ করতে আগ্রহী তারা এখানে কাজ করতে পারেন। অথবা যারা নতুন   তাদের জন্য একটি বড় সুযোগ হল বিল্যান্সার ওয়েবসাইট ।

এখানে যেসব ফ্রিল্যান্সাররা কাজ করে সবাই বাংলাদেশি। আপনি যদি বাংলাদেশের মধ্যে ফ্রিল্যান্সার হিসেবে কাজ করতে চান তবে এটি আপনার জন্য বেস্ট।

এখানে আপনি যেসব কাজ পাবেন

  • -এসইও এর কাজ
  • -ওয়েবসাইট ডেভলপমেন্ট ও ডিজাইন 
  • -আর্টিকেল রাইটিং, 
  • -গ্রাফিক্স ডিজাইন ও আর্ট
  • -মোবাইল অ্যাপ্লিকেশন ডেভলপমেন্ট 
  • -অনলাইন মার্কেটিং / ডিজিটাল মার্কেটিং 

২. kajkey ফ্রিলান্সিং ওয়েবসাইট

বাংলাদেশীদের জন্য আরেকটি জনপ্রিয় দেশী ফ্রিল্যান্সিং ওয়েবসাইট হচ্ছে কাজ-কি। এখানে আপনি সব ধরনের দেশী ক্লায়েন্ট ও ফ্রিল্যান্সার দেখতে পাবেন। বাংলা ভাষায় এত সুন্দর ও গোছানো ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেস খুঁজে পাওয়া মুশকিল।

কাজ-কি ওয়েবসাইটে আপনি খুব সহজেই বিকাশে পেমেন্ট নিতে পারবেন।

অনেকেই আর্ন্তজাতিক মানের কাজ করতে পারে না কারন পেমেন্ট সিস্টেম মিলে না। তাদের জন্য সুবিধা দিচ্ছে কাজ-কি ওয়েবসাইট।

এখানে আপনি যেসব কাজ পাবেন তা হল-

-গ্রাফিক ডিজাইন 

-ওয়েব সাইট তৈরি 

-ফেসবুক এডস

– iOS ডেভলপমেন্ট 

-এনিমেট সিসি 

-এমাজন ওয়েব সার্ভিস 

-ওয়ার্ডপ্রেস 

-ফোটোশপ 

-মাইকোসফট ওয়ার্ড

-আফটার ইফেক্টস 

-ইলাস্ট্রেটর 

-এডোবি প্রিমিয়ার প্রো 

 ইত্যাদি।

বর্তমানে  ফ্রিল্যান্সিং অনেক বেশি  চাহিদা সম্পন্ন একটি পেশা। অনেকেই এখন গতানুগতিক চাকরি না করে ফ্রিল্যান্সিং করার দিকে ঝুঁকছেন। ফ্রিল্যান্সিংয়ে আপনার কাছে স্বাধীনভাবে কাজ করার সুযোগ থাকে। আর  আয়ের পরিমাণও গতানুগতিক কাজের তুলনায়  বেশি।

তাই আপনিও যদি একজন সফল ফ্রিল্যান্সার হিসেবে নিজেকে দেখতে চান আপনার জানতে হবে ফ্রিল্যান্সিং ওয়েবসাইট গুলোর খুটিনাটি। এতে আপনিও হতে পারবেন আন্তর্জাতিক মানের একজন ফ্রিল্যান্সার।

আমাদের শেষ কথাঃ

আশা করি ২০২২ সালের সেরা ফ্রিল্যান্সিং ওয়েবসাইট গুলোর তালিকা নিয়ে আমাদের আজকের এই আয়োজন আপনাদের ব্যপাক কাজে লাগবে। এসব ফ্রিল্যান্সিং ওয়েবসাইট গুলোতে কাজ শুরু করে আপনিও সুন্দর একটি ক্যারিয়ার গড়তে পারবেন।

অনলাইন থেকে আয় করার উপরে আমাদের বাংলা আইটি ব্লগে অনেক গুলা আর্টিকেল আছে এবং কিভাবে ব্লগিং অ্যান্ড  এসইও করবেন সব আছে। আপনার জন্য রইলো অনেক অনেক শুভকামনা। 

6 thoughts on “২০২২ সালের ১২টি সেরা ফ্রিল্যান্সিং ওয়েবসাইট তালিকা”

  1. Md Zahangir Alam

    একেবারে যারা নতুন তারা খুব উপকার হবে এই পোষ্ট থেকে। ধন্যবাদ বাংলা আইটি ব্লগ কে।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!
Scroll to Top
Share via
Copy link
Powered by Social Snap